kalerkantho


এমবাপ্পের ছায়াও এখন অনেক বড়

১১ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



এমবাপ্পের ছায়াও এখন অনেক বড়

দারুণ শুরুর পর ইনজুরিতে শেষ তিন মাস ছিলেন মাঠের বাইরে। এরপর মাঠে ফিরলেও বিশ্বকাপটা প্রত্যাশামতো কাটেনি নেইমারের। ওদিকে এ সময়ে এমবাপ্পে নিজেকে ছাড়িয়ে গেছেন প্রতিনিয়ত। ১৮০ মিলিয়ন ইউরোর দলবদলের ফিতে পিছিয়ে নেই খুব একটা। আর ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ে দুর্দান্ত খেলে এমনকি কিংবদন্তি পেলের সঙ্গে তুলনীয় হচ্ছেন এমবাপ্পে। পিএসজির নতুন মৌসুমের আলোকমশাল তাই নেইমারের চেয়ে এ ফরাসির হাতেই দেখছে অনেকে।

 

লিওনেল মেসির ছায়া এড়ানো ছিল বার্সেলোনা ছাড়ার অন্যতম কারণ। কিন্তু ওই ‘ছায়ার ভূত’ যে নেইমারের পিছু তাড়া করছে ঠিকই! না হয় সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলারের নয়, তবে কিলিয়ান এমবাপ্পের ছায়াটাও তো প্যারিস সেন্ত জার্মেইতে ক্রমে দীর্ঘ হয়ে উঠছে এ ব্রাজিলিয়ানের জন্য। কাল থেকে শুরু পিএসজির মৌসুমটা তাই নেইমারের জন্য বড্ড গুরুত্বপূর্ণ।

ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের শিরোপা ধরে রাখার অভিযান পিএসজির শুরু হবে কাল, কায়েনের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে নেইমারেরই থাকার কথা ছিল। বার্সা থেকে বিশ্বরেকর্ড ২২২ মিলিয়ন ইউরোতে ফরাসি ক্লাবে নাম লিখিয়েছেন গেলবার। দারুণ শুরুর পর ইনজুরিতে শেষ তিন মাস ছিলেন মাঠের বাইরে। এরপর মাঠে ফিরলেও বিশ্বকাপটা প্রত্যাশামতো কাটেনি নেইমারের। ওদিকে এ সময়ে এমবাপ্পে নিজেকে ছাড়িয়ে গেছেন প্রতিনিয়ত। ১৮০ মিলিয়ন ইউরোর দলবদলের ফিতে পিছিয়ে নেই খুব একটা। আর ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ে দুর্দান্ত খেলে এমনকি কিংবদন্তি পেলের সঙ্গে তুলনীয় হচ্ছেন এমবাপ্পে। পিএসজির নতুন মৌসুমের আলোকমশাল তাই নেইমারের চেয়ে এ ফরাসির হাতেই দেখছে অনেকে।

জুভেন্টাসে ক্যারিয়ারের স্বর্ণসময় কাটিয়ে এবার পিএসজিতে নাম লিখিয়েছেন জিয়ানলুইজি বুফন। এমবাপ্পের গুণমুগ্ধ এ কিংবদন্তি গোলরক্ষকও। ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিতে জুভেন্টাসের হয়ে মোনাকোর ওই টিনএজারের বিপক্ষে খেলার স্মৃতি মনে আছে তাঁর। পিএসজির ক্লাব ম্যাগাজিনে সেই স্মৃতিচারণা বুফনের, “ওই খেলার পর আমার বন্ধু জুভ সেন্টারব্যাক আন্দ্রেয়া বারজাগলির বলা কথাটি আমার মনে আছে। ও বলছিল, ‘জিজি, আমার ২০ বছরের ক্যারিয়ারে বল পায়ে এত দ্রুতগতির কাউকে সেভাবে দেখিনি। ওকে থামাতে আমার ভীষণ কঠিন সময় গেছে।’ বারজাগলির মতো একজন শীর্ষ মানের ডিফেন্ডারের এমন কথার তাৎপর্য আছে। কারণ এটি স্পষ্ট যে অন্যদের চেয়ে এমবাপ্পের একটু বেশিই সামর্থ্য রয়েছে। ও যদি উন্নতি ধরে রাখতে পারে, তাহলে ফুটবল ইতিহাসের দারুণ কিছু পৃষ্ঠা লিখতে পারবে।”

ওই একই আকাঙ্ক্ষা নিয়ে পিএসজিতে এসেছিলেন নেইমারও। কিন্তু হঠাৎই যেন খানিকটা বেপথু। তাঁর রিয়াল মাদ্রিদে যাওয়া নিয়েও বিস্তর গুঞ্জন। তা অবশ্য উড়িয়ে দিয়ে ক্লাবের হয়ে নতুন মৌসুমে নিজেকে উজাড় করে দিতে চান নেইমার, ‘হ্যাঁ, আমি প্যারিসে থাকছি। পিএসজির সঙ্গে আমার চুক্তি রয়েছে। আর দলবদলের গুঞ্জন? এগুলো গণমাধ্যমের তৈরি। পিএসজিতে কেন এসেছি, তা সবার জানা। আশা করছি, এটি হবে দুর্দান্ত এক মৌসুম।’

হতেই হবে। নইলে যে মেসির ছায়া থেকে সরে এমবাপ্পের ছায়ায় ঢাকা পড়ার দশা হবে নেইমারের! পিএসজির হয়ে ফরাসি লিগ জয় হয়তো তেমন বড় চ্যালেঞ্জের নয়। তবে নেইমার-এমবাপ্পে-কাভানিরা মিলে ক্লাবকে ইউরোপসেরা করাতে পারলে, সেটি হবে বড় অর্জন। চ্যালেঞ্জটা যেমন এই ফুটবলারদের জন্য, তেমনি পিএসজির নতুন কোচ থোমাস ট্যুচেলের জন্যও! এএফপি মার্কা



মন্তব্য