kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

কেউ তাদের ভুলটা ধরিয়ে দিচ্ছে না

১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



কেউ তাদের ভুলটা ধরিয়ে দিচ্ছে না

কেউ তাদের ভুলটা ধরিয়ে দিচ্ছে না

বিকেএসপিতে ও পরে জাতীয় দলের সহকারী কোচ হিসেবে সাকিবকে কাছ থেকে দেখা মোহাম্মদ সালাউদ্দিনও মনে করেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অস্ত্রোপচার করিয়ে মাঠে ফিরবেন শতভাগ সুস্থ সাকিব। সেই সঙ্গে তিনি তরুণ ক্রিকেটারদের পথচলার নানা দিকনির্দেশনাও দিলেন কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মাধ্যমে

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : সাকিব আল হাসানকে তো অনেক দিন ধরেই চেনেন আপনি। আঙুলের অস্ত্রোপচারের জন্য এশিয়া কাপে তাঁর না খেলার একটা শঙ্কা তৈরি হয়েছে। ব্যাপারটা কিভাবে দেখছেন?

মোহাম্মদ সালাউদ্দিন : সাকিবের তো আঙুলে চোট দেশের মাটিতে সেই ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে পাওয়া। এরপর তো সে ইনজেকশন নিয়ে খেলছে। এটা সারতে তিন সপ্তাহ সময় লাগবে বলা হলেও আসলে সব মিলিয়ে ছয় সপ্তাহের মতো লেগে যাবে। তাই যত তাড়াতাড়ি হয়ে যায়, ততই ভালো। কারণ পরের দিকে তো আর সময় নেই।

প্রশ্ন : এশিয়া কাপে গেলবারের ফাইনালিস্ট বাংলাদেশ। টুর্নামেন্ট হিসেবেও দর্শক আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকবে। তার চেয়ে বরং আসন্ন জিম্বাবুয়ে সফরের সময়টা কি বেছে নেওয়া যেত না?

সালাউদ্দিন : আমার মনে হয়, আর ইনজেকশন নিয়ে খেলতে পারছে না বলেই সে দ্রুত অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্তে গেছে। আসলে একজন ক্রিকেটারের, বিশেষ করে সাকিবকে যখন বোলিং ও ব্যাটিং দুটোই করতে হয়; একটা হাতে যদি সমস্যা থাকে তাহলে সে কখনোই মাঠে তার শতভাগ দিতে পারবে না। হাফফিট হয়ে খেলার চেয়ে বরং সুস্থ হয়েই সে মাঠে ফিরুক।

প্রশ্ন : বেশ কয়েক দিন ধরেই একটা প্রবণতা দেখা যাচ্ছে যে বাংলাদেশ দলে পাঁচজন সিনিয়র ক্রিকেটারের বাইরে কেউ পারফরম করছেন না বা নিয়মিত ভালো করতে পারছেন না। কোচ হিসেবে এর পেছনের কারণটা কী মনে হয় আপনার কাছে?

সালাউদ্দিন : কেউ যদি বলে তারা (তরুণ ক্রিকেটার) পরিশ্রম করছে না, তাহলে ভুল বলা হবে। তারা যথেষ্টই পরিশ্রম করছে। তবে আমার কাছে মনে হয়েছে, তাদের পদ্ধতিতে কোথাও ভুল হচ্ছে। যে ভুলটা শুধরে নেওয়া দরকার বা যে জায়গাটাতে উন্নতি করা দরকার, সেটা তারা করছে না। হয় তারা নিজেদের ভুলটা বুঝতে পারছে না অথবা কেউ তাদের ভুলটা ধরিয়ে দিচ্ছে না।

প্রশ্ন : মনোজগত্টা কি তাদের বড্ড বেশি এলোমেলো, ফলে মনঃসংযোগটা ধরে রাখতে পারছে না?

সালাউদ্দিন : আমি বলব, তারা অন্যের কথায় খুব বেশি প্রভাবিত হচ্ছে। কেউ একজন বলল এভাবে করো, কিছুদিন সেটা অনুসরণ করছে। এরপর আরেকজনেরটা। নিজস্ব কোনো ধরন তাদের গড়ে উঠছে না।

প্রশ্ন : লিটন কুমার দাসের প্রতিভা আর তাঁর প্রত্যাশার অঙ্কটা প্রায়ই মেলে না। এ নিয়ে আপনার কী ধারণা?

সালাউদ্দিন : আমার খুব অদ্ভুত লাগে যে লিটনকে টি-টোয়েন্টি আর টেস্টে দলে নেওয়া হয়, ওয়ানডেতে নেওয়া হয় না! সাদা বলে প্রথম হাফসেঞ্চুরির জন্য বেশ অনেক দিন অপেক্ষা করতে হয়েছে তাকে। আশা করি পরেরটার জন্য এত বেশি ধৈর্য ধরতে হবে না।



মন্তব্য