kalerkantho


দল নিয়ে আশাবাদী ফুটবল কোচ

২৩ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



দল নিয়ে আশাবাদী ফুটবল কোচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : এশিয়ান গেমসের আগে বিদেশে আরেকটি প্রশিক্ষণ ক্যাম্প করার সুযোগ পাচ্ছেন জেমি ডে। কাতার ক্যাম্পের অভিজ্ঞতায় দল নিয়ে দারুণ ইতিবাচক তিনি। কোরিয়ায় আরো কয়েকটি প্রস্তুতি ম্যাচে দলকে এশিয়াডের জন্য পুরোপুরি তৈরি করে নিতে পারবেন বলে বিশ্বাস এই ইংলিশ কোচের।

কাতারেই দলের সঙ্গে প্রথম যোগ হয়েছেন ফিটনেস কোচ লিন্ডসে ডেভিস। খেলোয়াড়দের পরিশ্রম করার মানসিকতা দেখে তিনি খুশি। তবে সমস্যাটা মনে করছেন অন্য জায়গায়, “বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের মূল সমস্যা হলো ‘স্ট্রেংথ’। মাংসপেশিতে জোর বাড়াতে হবে সবাইকে। এটা এক-দুই দিনে হবে না। এর জন্য সময় দিতে হবে। তবে এশিয়াড ও সাফের আগে আমরা চেষ্টা করব যত দূর সম্ভব ওদের তৈরি করে নেওয়ার।” দলের সহকারী কোচ স্টুয়ার্ট পলও ইংরেজ। ডে’র সঙ্গে শুরু থেকেই আছেন তিনি। ভারতে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে স্টুয়ার্ট, ডেভিস দুজনেরই। সাফ মিশনে তাঁদের অভিজ্ঞতাকে গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছেন ডে। এই মুহূর্তে অবশ্য এশিয়ান গেমস নিয়েই তাঁর মূল ভাবনা। জানিয়েছেন কোরিয়াতে তরুণ খেলোয়াড়রাই সুযোগ পাবেন বেশি। এশিয়ান গেমসের অভিজ্ঞতা নিয়ে সেই তরুণরা সাফেও তাঁর জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে বলে মনে করেন তিনি, ‘সাফের আগে এশিয়ান গেমসে তরুণদের মেলে ধরার পালা। সেখানে তারা ভালো করতে পারলে সাফেও আমরা তাদের কাছ থেকে ভালো কিছু পেতে পারি। অবশ্যই সিনিয়র খেলোয়াড়দের অভিজ্ঞতাও সেখানে আমাদের কাজে লাগবে।’ এশিয়ান গেমসের দল দেওয়া হবে খেলোয়াড়দের দ্বিতীয় দফা পরখ করার পরই। অনূর্ধ্ব-২৩ দলের ওই আসরে তিনজন সিনিয়র খেলোয়াড় খেলতে পারবেন। এর জন্য ছয়জনের বিকল্প এখনই ভেবে রাখা হায়েছে। তাঁরা হলেন দুই গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম ও শহীদুল আলম, ডিফেন্ডার তপু বর্মণ ও নাসিরউদ্দিন চৌধুরী এবং মিডফিল্ডার জামাল ভূইয়া ও স্ট্রাইকার নাবিব নেওয়াজ। চোটের কারণে নাবিব কাতার ক্যাম্পে না থাকলেও বিকেএসপিতে ২৪ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া দ্বিতীয় দফা ক্যাম্পে তিনি যোগ দিচ্ছেন। ৩০ তারিখ বাংলাদেশ দল যাবে কোরিয়ায়। সেখানে দিন দশেক থাকার পরিকল্পনা। এর পরই দল চলে যাবে ইন্দোনেশিয়ায়। বাংলাদেশ খেলবে ‘বি’ গ্রুপে। কাতার, উজবেকিস্তান ও থাইল্যান্ড গ্রুপের অন্য তিন দল। তবে কাল নতুন আরো একটি দলের এই গ্রুপে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাশ রুপু। সেটি আবার ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন জেমি ডে, ‘তাতে করে আমাদের ছেলেরা এই পর্যায়ে আরো একটি ম্যাচ বেশি খেলার সুযোগ পাবে। এটা আমাদের সাফ প্রস্তুতিতেই সাহায্য করবে।’

সেপ্টেম্বরের সাফের জন্য অন্য দলগুলোও প্রস্তুতিতে জোর বাড়িয়েছে। এশিয়ান কাপ খেলতে যাওয়া ভারত অবশ্য এশিয়ান গেমসে খেলছে না। গত এশিয়ান গেমসে কোচ লোডউইক ডি ক্রুইফের অধীনে আফগানিস্তানকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। জেমি ডে এবার সুনির্দিষ্ট কোনো লক্ষ্যের কথা না জানালেও বলেছেন, ‘সব ম্যাচ জেতার মনোভাব নিয়েই আমরা মাঠে নামব।’ কাতারে প্রস্তুতি ম্যাচে দুই অর্ধে দুটি দলকে খেলিয়েছেন ডে। তাতে তাদের ৪৫ মিনিট খেলার সামর্থ্য প্রমাণ হলেও ৯০ মিনিটে তারা কেমন করেন সেটা এখনো দেখা হয়নি তাঁর। তবে ডে আশাবাদী বিকেএসপি ও কোরিয়ায় বাকি প্রস্তুতিতে খেলোয়াড়রা পুরো ৯০ মিনিট পারফরম করার মতোই তৈরি হয়ে যাবেন। কাতারে গোল করা সাখাওয়াত রনির পারফম্যান্সের প্রশংসা করেছেন তিনি। সেখানে ১০ নম্বর পজিশেনে খেলিয়েছেন ইমন বাবুকে। তাঁর পারফরম্যান্সেও তিনি সন্তুষ্ট। আবাহনীর তরুণ উইঙ্গার সাদউদ্দিনেও মুগ্ধ জেমি ডে। বাকি সময়ে অন্যদেরও তাঁর নজর কাড়ার জন্য একরকম আহ্বানও জানিয়ে রেখেছেন এই ইংলিশ কোচ, ‘প্রতিটি পজিশনে আমাদের অনেকগুলো করে বিকল্প আছে। এখন খেলোয়াড়দেরই পারফরম্যান্স দিয়ে দলে জায়গা করে নিতে হবে। যারা কঠোর পরিশ্রম করবে, মাঠে পারফরম করতে পারবে শুধু তাদেরই আমি দলে নেব।’



মন্তব্য