kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

চ্যালেঞ্জটা কঠিন হলেও আশাবাদী আমরা

২২ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



চ্যালেঞ্জটা কঠিন হলেও আশাবাদী আমরা

এশিয়ান গেমসে ছেলেদের মতো মেয়েদের কাবাডির ক্যাম্পও চলছে দীর্ঘদিন ধরে। মর্যাদার টুর্নামেন্টে ভালো করতে এ বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে অনুশীলন করছে মেয়েদের দল। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে সিনিয়র খেলোয়াড় শাহনাজ পারভিন মালেকা জানালেন, এবারের চ্যালেঞ্জটা কঠিন। তবে অনুশীলনের মধ্যে থাকায় আশাবাদীও তিনি।

 

প্রশ্ন : ছেলেদের মতো মেয়েদের ক্যাম্পও হচ্ছে দীর্ঘদিন। এবার এশিয়ান গেমসে ভালো কিছু করতে আশাবাদী নিশ্চয়।

শাহনাজ পারভিন : এশিয়ান গেমসে ২০১০ ও ২০১৪ সালে ব্রোঞ্জ জিতেছি আমরা। এবার এর চেয়ে ভালো কিছু করতেই অনুশীলন হচ্ছে ফেব্রুয়ারি থেকে। এশিয়ান গেমসের জন্য এত বেশিদিন কখনো অনুশীলন করিনি আমরা। সবাই সুস্থ থাকলে নিশ্চয়ই ভালো কিছু করব। তবে জাকার্তায় কঠিন চ্যালেঞ্জ আমাদের সামনে।

প্রশ্ন : কঠিন মনে হচ্ছে কেন?

শাহনাজ পারভিন : কারণ জাপান আর শ্রীলঙ্কার মতো দল অংশ নেবে জাকার্তায়। ওরা কিন্তু আগে এই টুর্নামেন্টে খেলত না। জাপান খুবই ভালো দল। ওদের সঙ্গে বিশ্বকাপ বা অন্য টুর্নামেন্টে ২ বা ৪ পয়েন্টের ব্যবধানে হারতাম আমরা। জাপানের ফিরে আসাটা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জের। কয়েকটা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে পারলে ভালো হতো। গত বছর এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে খেললে নিজেদের ভুলগুলো শোধরানোর সুযোগ পাওয়া যেত বেশি।

প্রশ্ন : দক্ষিণ কোরিয়াও কিন্তু উন্নতি করেছে অনেক।

শাহনাজ পারভিন : ঠিকই বলেছেন। আমরা ২০১৪ এশিয়ান গেমসে কোরিয়াকে হারিয়েছি। অথচ ওরা এখন হারাচ্ছে ইরানের মতো দলকে। ইরান কিন্তু এশিয়ান গেমসে চ্যাম্পিয়ন হয় প্রায়ই। সেই ইরানকে যখন কোরিয়া হারায় তখন বুঝতে হবে, আমাদের কাজটা সহজ হবে না। তার পরও আমরা আশাবাদী। টানা অনুশীলনের মধ্যে থাকায় সবার বোঝাপড়া ভালো। শারীরিকভাবেও ফিট সবাই, কারো কোনো ইনজুরি নেই। এটা ইতিবাচক। কোনো গেমসের আগে কেউ ইনজুরিতে পড়লে কঠিন হয় তাঁর বিকল্প খুঁজে পাওয়া।

প্রশ্ন : এশিয়ান গেমসের আগে বিদেশি কোচ আনলে কি বেশি সুবিধা হতো আপনাদের?

শাহনাজ পারভিন : আমি সেটা মনে করি না। আমাদের স্থানীয় কোচরাও অনেক অভিজ্ঞ। খেলোয়াড়দের মতো কঠোর পরিশ্রম করেন তাঁরাও। এখন কোর্টে গিয়ে নিজেদের সেরাটা খেলার দায়িত্ব আমাদের। কোনো কোচই কোর্টে নেমে খেলে দিয়ে আসবেন না। এই দলে নতুন অনেকে এসেছে। পুরনোদের মধ্যে আমি আছি, আরো দু-একজন আছে। গত পাঁচ মাসে সবার সঙ্গে সমঝোতাটা ভালো তৈরি হয়েছে। এ জন্যই আশাবাদী আমি। ২০১০ ও ২০১৪ এশিয়ান গেমসে ব্রোঞ্জ জিতেছি আমরা। সেখানেই আটকে থাকলে চলবে না। দেশবাসীকে আরো ভালো কিছু উপহার দিতেই জাকার্তায় যাব আমরা। দোয়া চাই সবার।



মন্তব্য