kalerkantho



রেকর্ড গড়ে লিভারপুলে আলিসন

২১ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



রেকর্ড গড়ে লিভারপুলে আলিসন

বৃহস্পতিবার নতুন দলে সই করেছেন অ্যালিসন, তাঁকে অ্যানফিল্ডে নিয়ে আসতে লিভারপুলের ট্রান্সফার ফি দিতে হয়েছে ৭২.৫ মিলিয়ন ইউরো।

 

 

লিভারপুলের কোচের পদে যোগ দেওয়ার পর, শুরুর দিকে ইয়ুর্গেন ক্লপ বলেছিলেন, ‘১০০ মিলিয়ন পাউন্ড বা এ রকম টাকা দিয়েই একজন ফুটবলারকে আনার পর সে যদি আহত হয়, তাহলে গোটা টাকাটাই তো চিমনি দিয়ে উড়ে গেল।’ সেই দর্শন থেকে সরে এসেছেন ক্লপ, কিংবা বলা যায় বাধ্য হয়েছেন। কারণ ভঙ্গুর রক্ষণ আর অমনোযোগী গোলরক্ষকের মাসুল তো তিনি দিয়েছেন! ৭৫ মিলিয়ন পাউন্ডে ভার্জিল ফন ডাইককে লিভারপুলে নিয়ে এসেছেন তিনি, যেটা ডিফেন্ডারের ট্রান্সফার ফির বিশ্বরেকর্ড। এবার গোলরক্ষকের ট্রান্সফার ফির বিশ্বরেকর্ড গড়ে রোমা থেকে ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক আলিসন বেকারকে নিয়ে এলো ক্লপের লিভারপুল। বৃহস্পতিবার নতুন দলে সই করেছেন আলিসন, তাঁকে অ্যানফিল্ডে নিয়ে আসতে লিভারপুলের ট্রান্সফার ফি দিতে হয়েছে ৭২.৫ মিলিয়ন ইউরো। লিভারপুল কর্তৃপক্ষ একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হওয়ার পর, ২৫ বছর বয়সী গোলরক্ষক আলিসন বেকার মেলউডে, লিভারপুলের প্রশিক্ষণকেন্দ্রে তাঁর ক্লাব পরিবর্তনের সমস্ত আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেছেন।’ রোমাও তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষকের বিদায়বার্তা, ‘এএস রোমা নিশ্চিত করছে যে আলিসন বেকারের লিভারপুলে যাত্রার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। এই চুক্তির মূল্য ৭২.৫ মিলিয়ন ইউরো পর্যন্ত হতে পারে।’ চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে লরিস ক্যারিয়াসের ভুলে শিরোপা জিততে না পারা লিভারপুলের জন্য আলিসনের গোলবারে থাকাটা নিঃসন্দেহে অনেক স্বস্তির। লিভারপুলে যোগ দিয়ে আলিসন জানিয়েছেন, ‘আমি সত্যিই খুব খুশি, এমন মর্যাদাপূর্ণ একটা দলের জার্সি গায়ে তুলতে পেরে খুবই গর্বিত মনে হচ্ছে নিজেকে। আমার জীবনের এবং ক্যারিয়ারের একটা বড় অগ্রগতি। লিভারপুল পরিবারের অংশ হতে পেরে গর্বিত এবং আমি নিশ্চিতভাবেই আমার সর্বস্ব দিয়ে খেলার চেষ্টা করব।’ রোমা থেকে এসে লিভারপুলেই নিজেকে বৈশ্বিক তারকা হিসেবে মেলে ধরেছেন মোহাম্মদ সালাহ। আলিসন জানালেন, সালাহ তাঁকে উদ্বুদ্ধ করেছেন লিভারপুলে আসতে, “গতকাল (বুধবার) সে আমাকে একটা খুদে বার্তা পাঠিয়ে জানতে চাইল, ‘কী খবর? কিসের অপেক্ষায় আছ?’ ততক্ষণে দর-কষাকষি চূড়ান্ত পর্যায়েই চলে এসেছিল, আমি ফিরতি বার্তায় লিখলাম, ‘শান্ত হও, আমি আসছি’।” এই গ্রীষ্মে চারজন ফুটবলারকে সই করিয়েছে লিভারপুল, আলিসনের আগে তারা এনেছে নাবি কেইটা, ফ্যাবিনহো ও জারদান শাকিরিকে।

আলিসনের গোলরক্ষক হিসেবে দক্ষতা তো দেখাই গেছে, ক্লপ মুগ্ধ হয়েছেন আলিসনের ইংরেজি ভাষার দক্ষতায়, ‘তার ইংরেজি দক্ষতায় বেশ চমকে গেছি। গত কয়েক বছরে অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে। ইউরোপে, রোমে সে উঁচু মানের প্রতিযোগিতায় খেলেছে। সে বিশ্বকাপেও সেটা প্রমাণ করেছে। দাম নিয়ে আমাদের কিছু করার নেই, বাজারই এ রকম।’ এএফপি



মন্তব্য