kalerkantho



এবার নতুন শুরুর পালা

১৯ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



এবার নতুন শুরুর পালা

ফরাসি সৌরভ মিশে থাকে তাদের ফুটবলে। মিশেল প্লাতিনি, এরিক কাঁতোয়া, জিনেদিন জিদানের মতো কিংবদন্তির খেলা এখনো চোখে ভাসে অনেকের। দিদিয়ের দেশমের ফ্রান্স এবার বিশ্বকাপ জিতলেও ছিল না সেই সৌন্দর্য। সেমিফাইনালে বেলজিয়ামের বিপক্ষে রক্ষণের খোলসে ঢুকে থাকায় একহাত নিয়েছিলেন বেলজিয়াম গোলরক্ষক থিবো কর্তোয়া, ‘সেমিফাইনালে ফ্রান্সের কাছে হারার চেয়ে ভালো ছিল ব্রাজিলের কাছে হারা। নেতিবাচক ফুটবল খেলেছে ফ্রান্স।’ লোথার ম্যাথুজের মতো বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়কও সমালোচনা করেছেন এমন ফুটবলের। তাতে বয়েই গেছে দেশমের, ‘আগামী চার বছর সবাই মনে রাখবে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। সুন্দর বা অসুন্দর ফুটবল মনে রাখবে না কেউ।’

সমালোচনা পাত্তা না দিয়ে বিশ্বকাপ জেতায় ফ্রান্সের কোচের দায়িত্বে থেকে যাচ্ছেন দেশমই। তেমনি ক্রোয়েশিয়ান কোচ জ্লাতকো দালিচও নিশ্চিত করেছেন লুকা মডরিচদের সঙ্গে থাকার কথা। কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বাদ পড়লেও ব্রাজিল আস্থা রেখেছে তিতের ওপর। আগামী বিশ্বকাপ পর্যন্ত থাকছেন তিনি। তবে আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে সমঝোতায় সরে দাঁড়িয়েছেন হোর্হে সাম্পাওলি। নতুন কোচ নিয়ে নতুন অভিযান শুরুর অপেক্ষায় আর্জেন্টিনা। গত পরশু পদত্যাগ করেছেন আইসল্যান্ডের কোচ হেইমির হ্যালগ্রিমসন ও পানামার হার্নান দারিও গোমেজ। তাঁদের হাত ধরে এবারই প্রথম বিশ্বকাপ খেলেছিল দেশ দুটি। গ্রুপ পর্ব থেকে বাদ পড়ায় তাঁরা সরে দাঁড়িয়েছেন নতুন কাউকে শুভ কামনা জানিয়ে।

জিনেদিন জিদান রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়ার পর গুজব রটেছিল, ফ্রান্সের দায়িত্ব নিচ্ছেন তিনি। দিদিয়ের দেশমও আগামী দিনে দেখেছেন তাঁর সম্ভাবনা। তবে ফরাসি ফুটবল ফেডারেশন বিশ্বকাপের আগেই জানিয়ে দেয়, ফল যা-ই হোক কোচ থাকবেন দেশম। ২০ বছর পর ফ্রান্সকে বিশ্বকাপ এনে দিয়ে তরুণদের নিয়ে দেশমও শুরু করতে যাচ্ছেন নতুন অভিযান, ‘১৯৯৮ সালে অঁরি, ত্রেজেগেরা যখন বিশ্বকাপ জেতে, তখন ওদের বয়স ছিল ২০ বছরের মতো। শিরোপাটা আবারও জেতা উচিত ছিল ওদের, কিন্তু পারেনি। আশা করছি এমবাপ্পে, পাভার্দরা জিতবে আবারও।’

মারিও জাগালো ও ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ারের পর তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে অধিনায়ক ও কোচ হয়ে বিশ্বকাপ জিতলেন দেশম। গতকাল দ্য বিল্ডে দেওয়া সাক্ষাত্কারে বেকেনবাওয়ার অভিনন্দন জানালেন ফরাসি কোচকে, ‘অধিনায়করা এমনিতেই জানে কিভাবে দল পরিচালনা করতে হয়। কোচ হওয়ার পর সুবিধা হয় এ জন্য। আমার মতো দেশম সেটা পেয়েছে। ওকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। আরো অনেকে কোচ ও অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বকাপে ছিল। ডিয়েগো ম্যারাডোনাই যেমন। কিন্তু দুটি আলাদা দায়িত্বে পারেনি বিশ্বকাপ জিততে। আমার মতে, সংখ্যাটা তিনের বদলে আরো বেশি হওয়া উচিত ছিল। ’ ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, জার্মানি ফেভারিট হয়ে এসেছিল রাশিয়ায়। তবে বেকেনবাওয়ারের কাছে শিরোপার দাবিদার মনে হয়েছে ফ্রান্সকেই, ‘অনেকে ফেভারিট হয়ে এসেছিল বিশ্বকাপে, কিন্তু শুধু ফ্রান্স খেলতে পেরেছে বিশ্বকাপ জয়ের মতো ফুটবল।’

গত বছর অক্টোবরে ক্রোয়েশিয়ার দায়িত্ব নিয়েছিলেন জ্লাতকো দালিচ। তখনই ঘোষণা দেন, বিশ্বকাপে জায়গা না পেলে সরে যাবেন তিনি। তাঁর হাত ধরে ক্রোয়েশিয়া ইতিহাস গড়ে খেলে ফেলেছে ফাইনাল। এখন কি নতুন কোনো অভিযানে বেরিয়ে পড়বেন? দালিচ জানাচ্ছেন, ‘আমি ব্রাজিল কিংবা বার্সেলোনার কোচ হয়ে যেতে পারি, কিন্তু ক্রোয়েশিয়া সব সময় আমার প্রথম পছন্দ। বিশ্বকাপের আগে কেউ যদি বলত ফাইনাল খেলব আমরা, প্রস্তাবটা লুফে নিতাম সঙ্গে সঙ্গে। ইতিহাস গড়েছে এই দল। এখন সামনে এগিয়ে যাওয়ার পালা।’

আইসল্যান্ডের কোচ হেইমির হ্যালগ্রিমসন গত ইউরোর পর দায়িত্ব নিয়েছিলেন দলের। ছোট্ট এই দেশ তাঁর হাত ধরে প্রথমবার খেলে বিশ্বকাপ। আর্জেন্টিনার মতো পরাশক্তিকে রুখেও দেয় ১-১ গোলে। তবে ইউরোর মতো কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা বা অন্তত গ্রুপ পর্ব পার হতে না পারায় স্বেচ্ছায় সরে দাঁড়ালেন হ্যালগ্রিমসন। নতুন কোচের জন্য জানিয়ে রাখলেন শুভ কামনা, ‘আমি দায়িত্বে থাকলে সেই একইভাবে অনুশীলন করিয়ে যাব দলকে। এভাবে তো বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব পার হতে পারলাম না। এ জন্য নতুন কারো দরকার।’ একই কথা পানামার কোচ হার্নান দারিও গোমেজেরও, ‘পানামার বিশ্বকাপ খেলাটা গর্বের ছিল। এখন আরো ভালো করতে নতুন কাউকে দরকার।’

বেলজিয়ামের কাছে হেরে হেক্সা মিশন ভেস্তে গেছে ব্রাজিলের। তার পরও দেশটির ফুটবল ফেডারেশন রেখে দিয়েছে কোচ তিতেকে। বিশ্বকাপজয়ী ব্রাজিলিয়ান সাবেক তারকা স্বাগত জানালেন সিদ্ধান্তটা, ‘বিশ্বকাপ জিততে না পারাটা ব্যর্থতা ব্রাজিলের। তার পরও আমি বলব, দারুণ একটা বিশ্বকাপ খেলেছে ব্রাজিল। আক্রমণাত্মক এমন ফুটবলের জন্য তিতেকে রেখে দেওয়া ইতিবাচক সিদ্ধান্ত।’ এদিকে বিশ্বকাপ চলার সময় গুজব রটে, হোর্হে সাম্পাওলি নন, আর্জেন্টিনা খেলছে লিওনেল মেসি ও হাভিয়ের মাসচেরানোর পরিকল্পনায়! বিশ্বকাপ শেষে সাম্পাওলিকে দায়িত্ব দেওয়া হয় যুব দলের। যা বোঝার বুঝে যান তিনি। তাই আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে সমঝোতায় সরে দাঁড়ান সাম্পাওলি। নতুন কোচ হিসেবে বাতাসে এখন সবচেয়ে বেশি ভাসছে সাবেক কোচ হোসে পেকারম্যানের নাম। শেষ পর্যন্ত কলম্বিয়ার বর্তমান কোচ পেকারম্যান না অন্য কেউ আর্জেন্টিনার দায়িত্ব নেন সেটাই দেখার। এপি



মন্তব্য