kalerkantho


তরুণ ফ্রান্সের অভিজ্ঞ কাণ্ডারি লরি

১৫ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



তরুণ ফ্রান্সের অভিজ্ঞ কাণ্ডারি লরি

‘ওটা ঠিক সেভ নয়, আসলে প্রায় গোলই বলা যায়’—উরুগুয়ের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচ শেষে বলেছিলেন দিদিয়ের দেশম।

ম্যাচের ৪৩ মিনিটে যা করেছিলেন উগো লরি, সেটাকে অবিশ্বাস্য বললেও আসলে কম বলা হয়। আচমকা এক পাল্টাআক্রমণ থেকে মার্টিন ক্যাসেরেসের জোরালো হেড বারের কোণ দিয়ে ঢুকেই যাচ্ছিল জালে, একেবারে শেষ মুহূর্তে শরীরটাকে কী করে যেন শূন্যে ভাসিয়ে হাত ছোঁয়ালেন ফ্রান্সের গোলরক্ষক, বল বেড়িয়ে গেল পোস্টের বাইরে দিয়ে। সদ্য ১-০ গোলে এগিয়ে যাওয়া ফ্রান্সের জন্য সেটা ছিল একটা লাইফলাইন, বলাই যায়। দেশমের ভাষায় একটা গোলের সমান।

এই বিশ্বকাপে এ রকম সেভ কিন্তু ওই একটাই নয় ইংলিশ লিগের ক্লাব টটেনহামে খেলা ৩১ বছর বয়সী লরির। প্রথম ম্যাচেই অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথু লেকির শট ঠেকিয়েছিলেন, পেরুর অধিনায়ক পাওলো গেরেরোকেও তেমনই অলৌকিকভাবে গোলবঞ্চিত করেন আর সেমিফাইনালেও টোবি অল্ডারভিয়েরেল্ডের শট রুখেছেন একই রকম রিফ্লেক্সে।

দেখে বোঝার কোনোই উপায় নেই, তারুণ্যের ঝলকানিতে ভরা ফ্রান্স দলে তিনি আসলে ‘সিনিয়র সিটিজেন’! বরং যেন ক্যারিয়ারের সেরা সময়টাই কাটাচ্ছেন তিনি। অথচ সেই যে ২০০৯ সালে এক নম্বর জার্সিটা নিজের করে নিয়েছেন, এর পর থেকে ফ্রান্স দলে অনেক অদলবদল হলেও বদলায়নি গোলবারের নিচের বিশ্বস্ত হাত দুটি। আজ মাঠে নামলেই একটা রেকর্ড গড়ে ফেলবেন তিনি—বেলজিয়ামের বিপক্ষে সেমিফাইনালেই ছুঁয়েছেন কোচ দেশমের গড়া ফ্রান্সের পক্ষে সবচেয়ে বেশি ১০৩টি ম্যাচ খেলার রেকর্ড, আজ সেটা একান্তই নিজের করে নেবেন লরি। আরেকটি রেকর্ড এরই মধ্যে করে ফেলেছেন তিনি, ফ্রান্সকে সবচেয়ে বেশি ম্যাচে নেতৃত্ব দেওয়ার রেকর্ড। শুনতে অবিশ্বাস্য লাগবে, কিন্তু লা ব্লুদের হয়ে খেলা ১০৩ ম্যাচের ৭৯টিতেই অধিনায়কের আর্মব্যান্ড পরে খেলতে নেমেছেন তিনি! অধিনায়কত্ব করাটা অবশ্য অভ্যাসই হয়ে গেছে তাঁর, ক্লাব দলেও তো অনেক দিন ধরেই অধিনায়ক লরি। ফিফা ডটকম



মন্তব্য