kalerkantho


তিন সিংহের মুখে পানামা

সামীউর রহমান   

২৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০



তিন সিংহের মুখে পানামা

সাম্প্রতিক সময়ে অনেক ক্রীড়াবিদের কাছেই পানামা অস্বস্তির অন্য নাম। যদিও সেটা প্রতিপক্ষ হিসেবে নয়। অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক জোট খুঁজে বের করেছে পানামায় নিবন্ধন করা গায়েবি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কর ফাঁকি দেওয়া বিখ্যাত সব সিনেতারকা, খেলোয়াড়, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ীদের নাম। যেখানে ফিফার বর্তমান সভাপতি, সাবেক শীর্ষ কর্তা থেকে শুরু করে ক্লাব মালিক, খেলোয়াড় অনেকেরই গোপন সম্পদ ও কর ফাঁকির জারিজুরি ফাঁস হয়েছে। তবে পানামার ফুটবল দল ততটা ভীতিকর নয়! বিশ্বকাপে এবারই প্রথম খেলছে তারা, বেলজিয়ামের কাছে ৩-০ গোলের হার দিয়ে হয়েছে অভিষেক! ইংল্যান্ডের সঙ্গে আজও যে দাঁত নখ বের করে ঘুরে দাঁড়াবে, সেই সম্ভাবনাও ক্ষীণ। বরং ১২ বছর পর বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে জয়ের দেখা পাওয়া ইংল্যান্ড এবার গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম দুটি ম্যাচেই জিতে সবার আগে নিশ্চিত করে ফেলতে পারে শেষ ষোলো।

হ্যারি কেইনের সামনে অনন্য রেকর্ডের হাতছানি। প্রথম ম্যাচে তিউনিসিয়ার বিপক্ষে তাঁর জোড়া গোলেই জিতেছে তিন সিংহের দল। ১৯৬২ সালের রন ফ্লাওয়ার্সের পর, ইংল্যান্ডের প্রথম দুই ম্যাচেই গোল করার কীর্তির সামনে দাঁড়িয়ে কেইন। আজ যদি গোল পেয়েই যান টটেনহাম তারকা, তাহলে ১৯৯০ সালে গ্যারি লিনেকার ও ডেভিড প্ল্যাটের পর প্রথম ফুটবলার হিসেবে বিশ্বকাপে তিন গোল করার গৌরবটা হবে কেইনের। সেরা সময়ের ভেতর দিয়ে যাচ্ছেন কেইন, শেষ চার ম্যাচে তাঁর ৫ গোল। গ্যারেথ সাউথগেট কোচ হওয়ার পর ১৯ ম্যাচে মাত্র দুইবার হেরেছে ইংল্যান্ড। অন্যদিকে পানামার দলটা কিন্তু অভিজ্ঞতায় টইটম্বুর। সাতজন ফুটবলারের এক শর বেশি ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা আছে। তবে তাদের বড় ঘাটতি গোল করার মানুষের। বেলজিয়ামের বিপক্ষে মানবপ্রাচীর তৈরি করেও অবশ্য তিন গোল হজম করেছিল পানামা, আজও হয়তো তারা চেষ্টা করবে যতটা সম্ভব কম গোল হজমের। তাই আশা ছাড়ছেন না পানামার ডিফেন্ডার এরিক ডেভিস। ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘কিছু স্বপ্ন ছিল যা একটা সময় মনে হতো অসম্ভব, অবাস্তব। এরপর আমরা যখন চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞা নিয়ে মাঠে নামলাম, দেখলাম সব কিছুই অনিবার্য।’

বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় অঘটনগুলোর একটির শিকার ইংল্যান্ড। ১৯৫০ বিশ্বকাপে অপেশাদার খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দলের কাছে ১-০ গোলে হেরে গিয়েছিল ফুটবলের জনকরা। সেই থেকে এখনো পর্যন্ত কনকাকাফ অঞ্চলের কোনো দলের কাছে হারেনি ইংল্যান্ড। সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছে ৬০ বছর আগে হারের পর, বিশ্বকাপে নবাগত কোনো দলের কাছেও ইংল্যান্ড কখনো হারেনি। তবে অঘটনের বিশ্বকাপ চলছে বলেই এবারও সেই গৌরব অক্ষত থাকবে কি না, সে নিশ্চয়তা দেওয়া যাচ্ছে না! আন্তর্জাতিক ফুটবলের শীর্ষপর্যায়ে, এবারই প্রথম মুখোমুখি হচ্ছে ইংল্যান্ড ও পানামা। পরিসংখ্যান তো ইংল্যান্ডেরই পক্ষে। ফিফা



মন্তব্য