kalerkantho


ইরানি মেসির ‘দুর্গ’ ভাঙার চ্যালেঞ্জ

১৫ জুন, ২০১৮ ০০:০০



ইরানি মেসির ‘দুর্গ’ ভাঙার চ্যালেঞ্জ

২০ বছর পর বিশ্বকাপে মরক্কো। ফেরার মঞ্চে গ্রুপে পেয়েছে স্পেন আর পর্তুগালের মতো দুই দল। শিরোপাপ্রত্যাশী দল দুটোকে হারানো কঠিন। তবে ইরানের বিপক্ষে জয় পাওয়া, পাহাড় টলানো নয় মোটেও। সেই চ্যালেঞ্জে আজ মুখোমুখি দুই দল। মরক্কোর রক্ষণে চীনের প্রাচীর তোলার দায়িত্বটা অধিনায়ক মেহদি বেনাতিয়ার। টানা সাতবারের সিরি ‘এ’ চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাসের রক্ষণেরও স্তম্ভ তিনি। সেই দুর্গ ভাঙার প্রতিজ্ঞা আবার ইরানের সেরা তারকা সরদার আজমুনের। ‘ইরানি মেসি’ নামেই পরিচিতি তাঁর।

বয়স মাত্র ২৩, কিন্তু ফুটবল মাঠে করেন সর্দারি। ইরানের হয়ে সরদার আজমুন খেলেছেন ৩২ ম্যাচ, গোল ২৩টি। বিশ্বকাপ বাছাইয়েই করেছেন ১১ গোল। এএফসি অঞ্চলে টিম কাহিলের সঙ্গে যা যৌথ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। তাঁর গোল করার হার ইরানের ফুটবল ইতিহাসে সর্বোচ্চ। ১০৯ গোল করা আলী দায়িকেও একসময় ছাড়িয়ে যাবেন, এই বিশ্বাস অনেকের।

ইরানিদের কাছে সরদার আজমুন হেড করেন জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচের মতো, দৌড়ান মেসির মতো! তবে ইউরোপের প্রতিষ্ঠিত দলের বদলে খেলেন রাশিয়ার রুবিন কাজানে। এবারের বিশ্বকাপে আলো ছড়িয়েই আজমুন হয়তো চলে যাবেন বড় দলে। গত দুই বছরে লিভারপুল, এসি মিলান, লািসও আগ্রহ দেখিয়েছে, কিন্তু দুইয়ে দুইয়ে মেলেনি। আজ মরক্কোর দুর্গ ভাঙতে পারলে মিলে যেতে পারে অঙ্কটা। তবে ভবিষ্যৎ নিয়ে না ভেবে বিশ্বকাপেই সব মনযোগ তাঁর, ‘বাছাইপর্বে ভালো খেলেছি আমি। এবার আসল লড়াইয়ের অপেক্ষা। জানি দেশবাসীর অনেক প্রত্যাশা আমার উপর। সেটা আমার জন্য চাপের নয়।’

ফিফা র‌্যাংকিংয়ে ইরান ৩৭ ও মরক্কো রয়েছে ৪১ নম্বরে। এই ব্যবধানটা আজ মিটতে পারে রক্ষণে অধিনায়ক মেহদি বেনাতিয়া দুর্গ গড়তে পারলে। জুভেন্টাসে নিয়মিত হতে না পেরে জাতীয় দল থেকে একটা সময় নিজেই সরে দাঁড়ান বেনাতিয়া। ক্লাবে নিয়মিত হওয়ার পর দলে ফিরেছেন আবারও। তাঁর যুক্তি, ‘প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ প্রস্তুতির ঘাটতি থাকার পরেও এসে জাতীয় দলে খেলা এবং এর চেয়ে ভালো অবস্থায় থাকা কারো জায়গা নেওয়া আমার কাছে অন্যায় মনে হয়।’

ডিফেন্ডার হয়েও আক্রমণভাগে দারুণ ভূমিকা রেখেছেন ফুটবল মানচিত্রে দেশটির সবচেয়ে বড় তারকা বেনাতিয়া। গত বছর আইভরি কোস্টের বিপক্ষে ২-০ গোলের জয়ে একবার বল পাঠিয়েছিলেন তিনি। রক্ষণে দুর্গ গড়ায় বাছাই পর্বের ছয় ম্যাচে মরক্কো গোলই খায়নি কোনো। ফ্রান্সে জন্ম নেওয়া এই ডিফেন্ডারের বাবা মরোক্কান আর মা আলজেরিয়ান। সুযোগ ছিল ফ্রান্স ও আলজেরিয়ার হয়ে খেলার। তিনি বেছে নিয়েছেন বাবার দেশ মরক্কো। জাতীয় দলের হয়ে ফুটবলের সবচেয়ে বড় মঞ্চে আজ আলো ছড়ানোর দিন বেনাতিয়ার। চ্যালেঞ্জ ইরানের মেসিকে আটকানোরও। বেনাতিয়া অবশ্য চাপ নিচ্ছেন না ,‘ অনেকদিন পর বিশ্বকাপে আমরা। স্পেন, পর্তুগাল, ইরান কাউকে নিয়ে ভেবে রাতের ঘুম নষ্ট করছি না। আমরা শুধু নিজের খেলাটা খেলতে চাই।’

 



মন্তব্য