kalerkantho



এসে পড়েছে বিশ্বচ্যাম্পিয়নরাও

১৩ জুন, ২০১৮ ০০:০০



এসে পড়েছে বিশ্বচ্যাম্পিয়নরাও

শিরোপা ধরে রাখার স্বপ্ন নিয়ে রাশিয়ায় চলে এসেছে জার্মানিও। ইতালির দক্ষিণ তিরোলে অনুশীলন ক্যাম্পের পর দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ‘ডাই-ম্যানশ্যাফট’রা। যদিও প্রস্তুতি ম্যাচের ফল খুব একটা পক্ষে কথা বলছে না জার্মানদের হয়ে, তবে ‘বেস্ট নেভার রেস্ট’ স্লোগানে উদ্দীপ্ত হয়ে মূল মঞ্চে জ্বলে ওঠার প্রতিজ্ঞা নিয়েই রাশিয়া চলে এসেছেন ম্যুলার-নয়াররা। রাশিয়াবাসে তাদের ঠিকানা বা বেইস ক্যাম্প হবে ‘ওয়াটুটিংকি হোটেল অ্যান্ড হেলথ কমপ্লেক্স’। ফ্রাংকফুর্ট থেকে তাঁরা ধরেছেন মস্কোর ফ্লাইট। বিমানে চড়ার আগে জার্মান বিমান সংস্থা লুফথানসার কর্মীদের সঙ্গে বিমানবন্দরে ছবিও তুলেছেন জার্মান ফুটবলাররা।

লুফথানসার একটি বিশেষ বিমানে করে রাশিয়া এসেছে ইওয়াখিম ল্যোভের দল। গতকাল স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মস্কোর দক্ষিণাঞ্চলের ভিনুকোভো বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেন জার্মান ফুটবলাররা। বিমানযাত্রাটা বেশ আনন্দের মধ্যেই কেটেছে ফুটবলারদের। গোলরক্ষক আন্দ্রে টের স্টেগেন টুইটারে লিখেছেন, ‘লক্ষ্যের দিকে এগোচ্ছি। ২০১৮ বিশ্বকাপে খেলতে পারার জন্য গর্বিত, উদ্দীপ্ত ও রোমাঞ্চিত।’ টের স্টেগেনের ক্লাব ফুটবলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী অথচ জাতীয় দলে সতীর্থ টোনি ক্রোস, টুইট করেছেন তিনিও, ‘জার্মান ফুটবল দলের সঙ্গে পরবর্তী অ্যাডভেঞ্চারের অংশ হতে তৈরি হচ্ছি।’ থোমাস ম্যুলারও বেছে নিয়েছেন টুইটারকে, ‘রাশিয়া বিশ্বকাপের জন্য তৈরি।’ মারিও গোমেজ লিখেছেন, ‘ছেলেরা দল বেঁধে বেড়াতে বের হয়েছি। পরের গন্তব্য ওয়াটুটিংকি!’ ইল্তে গুন্ডোয়ানও টুইটার বার্তায় লিখেছেন, ‘আসন্ন কয়েকটা সপ্তাহের কথা চিন্তা করে আর আমার প্রথম বিশ্বকাপের কথা ভেবে খুবই রোমাঞ্চিত।’

মস্কোর বিমানে চড়ার আগে ফ্রাংকফুর্টে জার্মান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সদর দপ্তরে শুভ কামনা জানিয়ে বিদায় দেওয়া হয়েছে ফুটবলারদের। ফেডারেশনের কর্মীরা সবাই মিলে শুভ কামনা জানিয়ে তাঁদের তুলে দিয়েছেন রাশিয়ার বিমানে। সাম্প্রতিক ফর্ম বিবেচনায় অবশ্য শুভ কামনার খুবই প্রয়োজন জার্মানদের। টানা পাঁচ ম্যাচে জয়হীন থাকার পর শেষ পর্যন্ত সৌদি আরবের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচে ২-১ গোলে জিতেছে ল্যোভের দল। তবে বড় মঞ্চে বরাবরই জার্মানরা দুর্ধর্ষ। সর্বশেষ চারটি বিশ্বকাপে অন্তত সেমিফাইনালে খেলেছে জার্মানরা। জার্মান দলের টিম ডিরেক্টর ও সাবেক ফুটবলার অলিভার বিয়েরহফ অবশ্য সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ‘জার্মান দল রাশিয়া যাচ্ছে ঘুরে বেড়াতে নয়, শিরোপা জিততে।’ বিশ্বচ্যাম্পিয়নের মুকুটটা ধরে রাখার মিশনে ১৭ জুন ল্যোভের দলের সামনে প্রথম চ্যালেঞ্জ মেক্সিকোর বিপক্ষে।

২০১৪ সালের বিশ্বকাপে জার্মানি তাদের বেইস ক্যাম্প হিসেবে বেছে নিয়েছিল সাগরতীরে জেলেপল্লীর কাছে গড়ে ওঠা রিসোর্ট ক্যাম্প বাহিয়াকে। এবার তারা থিতু হচ্ছে মস্কোর কাছে ওয়াটুটিংকিতে। এ নিয়ে কোচ ল্যোভের মত, ‘সিদ্ধান্তটা নেওয়া সহজ ছিল না। বিশেষ করে কনফেডারেশনস কাপের সময় সোচিতে আমরা খুব ভালো সময় কাটিয়েছিলাম। সাফল্যের জন্য সব কিছু ঠিকঠাক হওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। মস্কোতে আমরা সেরা অনুশীলন কেন্দ্রে অনুশীলন করতে পারব আর আমরা বেশ নিরিবিলি একটা হোটেল পেয়েছি, যেখানে আমরা অনুশীলনের ক্লান্তি দূর করতে পারব।’ বিয়েরহফও জানিয়েছেন, ‘থাকার জায়গাটা মস্কোর কাছে হওয়ায় লুঝনিকি স্টেডিয়াম, অনুশীলন মাঠ, বিমানবন্দর—সব জায়গায় সহজে যাতায়াত করা যাবে।’ এএফপি, ডিএফবি

 



মন্তব্য