kalerkantho


ফিট নয়ারকেই নেবেন ল্যোভ

২৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



ফিট নয়ারকেই নেবেন ল্যোভ

ইতালির দক্ষিণ টিরোলে ক্যাম্প শুরু করেছে ফুটবল বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। ২০১৪ সালে ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের ফাইনালে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে শিরোপা জেতা জার্মান দলের কোচ ছিলেন ইওয়াখিম ল্যোভ। একই দায়িত্বে তিনি এবারও। ক্যাম্প শুরুর পর ল্যোভ জানালেন দল নিয়ে তাঁর পরিকল্পনার কথা—

 

প্রশ্ন : বিশ্বকাপের আগে জার্মান দলে সবচেয়ে বড় শঙ্কার নাম মানুয়েল নয়ার। দলের প্রধান গোলরক্ষকের চোটের সবশেষ পরিস্থিতি কী এবং তাঁর বিশ্বকাপে খেলার সম্ভাবনা কতটুকু?

ইওয়াখিম ল্যোভ : নয়ারকে অনুশীলনে অংশ নিতে হবে এবং প্রমাণ করতে হবে তার কোনো সমস্যা নেই। সে বায়ার্ন মিউনিখে বেশ স্বাভাবিকভাবেই অনুশীলন করেছে, আমাদের সঙ্গে যোগ দেওয়ার পর তাকে পূর্ণমাত্রার অনুশীলনেই অংশ নিতে হবে। তাকে সব ধরনের ব্যায়াম সর্বোচ্চ মাত্রায় করে দেখাতে হবে। আমরা দিন ধরে ধরে তার উন্নতির ব্যাপারটা খেয়াল করব, নিজেরা কথাও বলব। সে যদি মনে করে যে সে রাশিয়ায় আমাদের সঙ্গে গেলে শতভাগ সামর্থ্য নিয়ে খেলতে পারবে, শুধুমাত্র তখনই তাকে বিবেচনা করা হবে। অন্যথা হলে আমাদের পথ ভিন্ন হবে। আজকের কথা যদি বলি, তার কোনো সমস্যা নেই। সে সব কিছুই পূর্ণমাত্রায় করছে, লাফ-ঝাঁপ এবং অন্যান্য অনুশীলনেও সমস্যা নেই। এই মুহূর্তে সব কিছু ভালোই ঠেকছে।

প্রশ্ন : জেরোম বোয়াটেংয়েরও তো চোট আছে? চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে চোট পেয়েছিলেন এই ডিফেন্ডার? তাঁকেও কি আমরা রাশিয়ায় দেখতে পাব?

ল্যোভ : মিউনিখে তার চূড়ান্ত পরীক্ষাটা এখনো বাকি। এরপর সে আসবে, তখন দেখে সিদ্ধান্ত নেব। সে নিজের অনুশীলন সূচি সমাপ্ত করতে পেরেছে, দৌড় অনুশীলনেও যোগ দিয়েছে এবং নিজের সামর্থ্যের প্রায় কাছাকাছিই পৌঁছে গেছে। পেশির চোটের বেলায় আমরা আরেকটি ভুল করার সাহস করতে পারছি না। সব কিছুই পরিকল্পনামাফিক চলছে। আমি কোনো দিন-তারিখ নির্দিষ্ট করে বলছি না, তবে আগামী সপ্তাহের ভেতরই সে অনুশীলনে যোগ দেবে।

প্রশ্ন : অনুশীলন কিভাবে হচ্ছে? কোন কোন দিকে জোর দিচ্ছেন?

ল্যোভ : এখন আমার হাতে ১৯ জন খেলোয়াড় আছে। মাঠের ফুটবলার ১৬ জন আর তিনজন গোলরক্ষক। গত সপ্তাহে সবার সঙ্গেই আমার কথা হয়েছে। গত সপ্তাহ পর্যন্ত যাদের ক্লাবের হয়ে খেলার দায়িত্ব ছিল, তাদেরকে সুযোগ দিয়েছিলাম যে তারা দুই দিন পরে ক্যাম্পে যোগ দিতে পারবে। বেশির ভাগ খেলোয়াড়ই সুযোগটা নিয়েছে। স্যামি খেদিরা আর ইউলিয়ান ড্রাক্সলার অন্যদের সঙ্গে বুধবারেই এসেছে। প্রথম দুই-তিন দিন বরাদ্দ থাকে ব্যক্তিগত অনুশীলনের জন্য। এখন আমাদের কাজ হচ্ছে প্রতিটি স্বতন্ত্র ফুটবলারকে, যাদের ওপর একেক রকম কাজের ধকল গেছে বিদায়ী মৌসুমে, তাদের একটা সমান মাত্রায় নিয়ে আসা। দিন দুয়েক পর থেকে আমি ট্যাকটিক্যাল অনুশীলন শুরু করাব।

প্রশ্ন : প্রতিপক্ষ সম্পর্কে কতটা জানতে পেরেছেন, তাদের কাছে কী ধরনের বাধা আপনি প্রত্যাশা করছেন আর আপনার কৌশলটাই বা কী হবে?

ল্যোভ : আমরা জানি যে প্রতিপক্ষ আমাদের জন্য বেশ গভীর ও জমাট রক্ষণের দেয়াল তুলেই প্রতিরক্ষা সাজাবে। তাই আমরা কঠোর পরিশ্রম করছি কিভাবে দলের রক্ষণ ভেঙে ছত্রখান করে দেওয়া যায় সেই কৌশল ঝালিয়ে নিতে। ওয়ান-অন-ওয়ান পরিস্থিতিগুলো কাজে লাগিয়ে যেন সুযোগের সর্বোচ্চ সুবিধা নেওয়া যায়, সেই প্রচেষ্টাই চলছে।

প্রশ্ন : রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে খেলছেন টোনি ক্রোস, তিনিই সবার শেষে যোগ দেবেন দলে। আপনার পরিকল্পনায় তাঁর ভূমিকা কতটুকু?

ল্যোভ : সে গত কয়েক বছরে দারুণ পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে দেশের বাইরে, এত বড় একটা ক্লাবের হয়ে খেলে। মাঝমাঠের দখলটা সে সব সময়ই রাখতে চায়। তার মাথা ঠাণ্ডা, কী করতে যাচ্ছে সেটা সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা রাখে আর খুব পেশাদারভাবে কাজটা করে। সে আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সে তার জায়গা থেকে দলকে নেতৃত্ব দেয়।

প্রশ্ন : চূড়ান্ত দলটা তো এখনো ঘোষণা করেননি। এই ক্যাম্প থেকে কয়েকজনকে শেষ পর্যন্ত বাদ দিতে হবে। কাজটা কতটা কঠিন?

ল্যোভ : সব শেষ করে আমরা বসে সেটা ঠিক করব। আমরা কিন্তু কাউকেই বলিনি যে তুমি এখানে পরীক্ষামূলকভাবে এসেছ। সবারই সমান সুযোগ আছে বিশ্বকাপ খেলার। আমরা কাউকে মানসিকভাবে পিছিয়ে রাখতে চাই না। আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। অতীতে দেখেছি, কেউ না কেউ চোট পেয়েই যায়। সোমবার ও মঙ্গলবারে আমাদের পরিকল্পনা আছে অনূর্ধ্ব-২০ দলের বিপক্ষে অনুশীলন ম্যাচ খেলার। একটা বিশ্বকাপ ক্যাম্পে প্রতিটি খেলোয়াড় এত অবিশ্বাস্যভাবে অনুপ্রাণিত থাকে যে সে সব সময় এটা প্রমাণ করার জন্য মরিয়া থাকে যে সেও অন্য সবার মতোই যোগ্যতা রাখে। চূড়ান্ত দল ঘোষণার যে দিনক্ষণ বেঁধে দেওয়া আছে, তার অল্প কিছু সময় আগেই আমি ২৩ জনের তালিকা প্রকাশ করব।



মন্তব্য