kalerkantho


নাম্বার ওয়ান একজনই

২১ মে, ২০১৮ ০০:০০



নাম্বার ওয়ান একজনই

কাঁদছিল তুরিনের আকাশও। জিয়ানলুইজি বুফনের বিদায়ী ম্যাচে বৃষ্টি ঝরল অঝোরে। চোখের জল আর বৃষ্টি মিলেমিশে একাকার। মাঠে নামার সময় জুভেন্টাসের সব খেলোয়াড়কে একে একে বুকে জড়িয়ে ধরেছিলেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এই গোলরক্ষক। ৬৩ মিনিটে কোচ ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি তাঁর বদলি নামানোর সময় তৈরি হলো অন্য রকম আবেগী মুহূর্তটা।

জুভেন্টাসে ১৭ বছর কাটিয়ে শেষবার মাঠ ছাড়ার সময় দাঁড়িয়ে অভিবাদন জানাল আলিয়াঞ্জ স্টেডিয়ামের পুরো গ্যালারি। আবারও একে একে সব সতীর্থকে জড়িয়ে ধরলেন বুফন। অধিনায়কত্বের বাহুবন্ধনী তুলে দিলেন জর্জিয়ো কিয়েল্লিনির হাতে। দেওয়া হলো গার্ড অব অনার। বান্ধবী আর তিন সন্তান নিয়ে অভিবাদন বিনিময় করছিলেন দর্শকদের সঙ্গে। তাঁর বিশাল মুখের ব্যানার নিয়ে আসা দর্শকরা তখন গলা ছেড়ে গাইছিল, ‘নাম্বার ওয়ান একজনই, নাম্বার ওয়ান একজনই’। হেলাস ভেরোনার বিপক্ষে ম্যাচটি ২-১ গোলে জিতেছে জুভেন্টাস, যা ছিল সতীর্থদের পক্ষ থেকে বুফনের জন্য বিদায়ী উপহার।

২০০১ সালে ৫২ মিলিয়ন ইউরোয় সবচেয়ে দামি গোলরক্ষক হিসেবে (তখনকার রেকর্ড) পারমা থেকে জুভেন্টাসে যোগ দিয়েছিলেন বুফন। একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে ৯টি সিরি ‘এ’ জয়ের কীর্তি তাঁরই। ১৯৩০ থেকে ১৯৪১ পর্যন্ত এর আগে সর্বোচ্চ ৮ সিরি ‘এ; জিতেছিলেন জিওভান্নি ফেরারি। জুভেন্টাস রেকর্ড টানা চারবার কোপা ইতালিয়া আর সিরি ‘এ’ জিতেছে তাঁরই নেতৃত্বে। তবে বিদায়বেলায় রেকর্ড নিয়ে না ভেবে সাধারণ মানুষ হয়ে থাকতে চাইলেন বুফন, ‘দেখুন সবার মধ্যমণি না হওয়ার জন্য ছোটবেলায় জন্মদিন পালন করতাম না আমি। সাধারণ থাকতেই পছন্দ করি সব সময়।’ জুভেন্টাস ছাড়লেও এখনো অবসর নেননি বুফন। ৪০ বছর বয়সী এ গোলরক্ষককে নাকি পেতে চায় পিএসজি, গুঞ্জনটা আরো উসকে দিলেন ফরাসি ক্লাবটির সভাপতি নাসের আল খেলাইফি, ‘বুফনের মতো গোলরক্ষককে পেতে চাইবে সব দল।’

বিদায়বেলায় ৪০ বছর বয়সী বুফনকে অভিনন্দনে সিক্ত করছেন জুভেন্টাস সতীর্থরা। জুভেন্টাসের হয়ে ছয় হাজার ১১১ দিনের ক্যারিয়ারে ৬৫৬তম ম্যাচ খেলা এই কিংবদন্তিকে শ্রদ্ধা জানিয়ে আর্জেন্টাইন পাউলো দিবালার টুইট, ‘একসঙ্গে ১০০ ম্যাচ। ১০৪০ দিনে। অনেক শিখেছি তোমার কাছ থেকে।’ জার্মান তারকা স্যামি খেদিরার শ্রদ্ধাঞ্জলি, ‘আমি গর্বিত তোমার সঙ্গে খেলতে পেরে।’ জুভেন্টাসের নতুন অধিনায়ক জর্জিয়ো কিয়েল্লিনি একবাক্যে লিখেছেন, ‘সর্বকালের সেরা।’ এএফপি


মন্তব্য