kalerkantho


পিছিয়ে পড়েও নেপালকে হারাল বাংলাদেশ

২২ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



পিছিয়ে পড়েও নেপালকে হারাল বাংলাদেশ

ছবি : মীর ফরিদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ম্যাচটি শেষ হতে না হতেই হুড়মুড় করে অনেকেই ঢুকে পড়লেন কোর্টে। উদ্দেশ্য খেলোয়াড়দের সঙ্গে ‘সেলফি’ তোলা। হাল আমলে ক্রিকেটাররাই বাংলাদেশে তারকাখ্যাতিতে সবচেয়ে এগিয়ে। আন্তর্জাতিক ম্যাচের পর এভাবে মাঠে ঢুকে সেলফি তোলার সুযোগ সাধারণ দর্শকদের না থাকলেও ঘরোয়া প্রতিযোগিতায়, অনুশীলনের পর কিংবা কোনো অনুষ্ঠানে ছেঁকে ধরা ভক্তকুলের হাত থেকে তাঁদের নিস্তার মেলে কমই। তবে বাংলাদেশের ভলিবল খেলোয়াড়দের নিয়েও যে সেলফি-শিকারিদের অমন আগ্রহ জন্মাবে, সেটা বোধ হয় খোদ খেলোয়াড়রাও ভাবেননি। আসলে এই আগ্রহটার জন্ম ম্যাচের রোমাঞ্চে। প্রথম সেটটা ডিউসে হারার পর দ্বিতীয় ও তৃতীয় সেটে জয়, চতুর্থ সেটটাও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে জিতে নেওয়ার রোমাঞ্চই গ্যালারি থেকে মাঠে নামিয়ে এনেছে সাধারণ দর্শকদের। আর ক্রিকেটের মতো নিরাপত্তার কড়াকড়ি না থাকায় খেলোয়াড়দের উদ্‌যাপনে সঙ্গী হয়ে গেলেন দর্শকরাও।

দুই বছর পর আবারও ঢাকায় ভলিবলের আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট। বঙ্গবন্ধুর নামে সেন্ট্রাল এশিয়ান পুরুষ ভলিবল প্রতিযোগিতা, যেখানে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশসহ আরো পাঁচটি দেশ। প্রথম আসরে কিরগিজস্তানকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ, তারকাখ্যাতি পেয়েছিলেন অধিনায়ক আল জাবির। এবারের আসরে আল জাবির নেই অসুস্থতার কারণে। তাঁর বদলে নেতৃত্বে হরশিত বিশ্বাস। উদ্বোধনী ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে জয়ে দারুণ ভূমিকা রেখেছেন নড়াইলের ছেলে হরশিত, তাঁর দারুণ সব স্ম্যাশ আর ব্লকে মিরপুরের ইনডোর স্টেডিয়ামে উল্লাসে মেতেছেন দর্শকরা।

দীর্ঘ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শেষে খেলা শুরু হয় এক ঘণ্টা দেরিতে। প্রথম সেটে একটা সময় ১৭-১২ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেও ২৬-২৪ পয়েন্টে হেরে যায় বাংলাদেশ। প্রথম সেটটা হারের পর দলের কৌশলে কিছু পরিবর্তন আনেন বাংলাদেশের কোচ আলী পোর আরোজি। আক্রমণের বদলে ব্লকে মনোযোগী হতে বলেন শিষ্যদের, সেই সঙ্গে ফার্স্ট রিসিভটা ভালো করার কৌশল বাতলে দেন। কাজে দেয় কোচের পরামর্শ। পরের দুটি সেট বাংলাদেশ জিতে যায় বেশ বড় ব্যবধানে, ২৫-১৮ ও ২৫-১৪ পয়েন্টে। তৃতীয় সেটে বাংলাদেশ খুঁজে পায় নিজেদের সেরা সাফল্য, একটা সময় ১৪-৪ ব্যবধানে নেপালকে পেছনে ফেলার পর ২৫-১৪ পয়েন্টের বড় ব্যবধানে জিতে চতুর্থ সেটে পা রাখে বাংলাদেশ।

কিছুদিন আগে দেশের মাটিতে বাংলাদেশকে দুটি প্রীতি ম্যাচেই হারানো নেপালের জন্য এটাই ছিল ম্যাচে ফেরার শেষ সুযোগ। সেটাকে ভালোভাবেই কাজে লাগাতে মরিয়া ছিল হিমালয়পুত্ররা। দারুণ কিছু স্ম্যাশ ও বুদ্ধিদীপ্ত ডজে তারা জবাব দিতে শুরু করে সমানে সমানে। নেটের দুই দিকেই পয়েন্ট হচ্ছিল পাল্লা দিয়ে, তাতে ঘনীভূত হয় রোমাঞ্চ। একটা সময় ২০-২১ পয়েন্ট ছিল দুই দলের, তবে সেখান থেকে নেপালকে খুব বেশি দূর এগিয়ে যেতে দেননি হরশিত-রাশেদরা। তাঁদের ২১ পয়েন্টে আটকে রেখেই বাংলাদেশ পৌঁছে যায় জয়সূচক ২৫ পয়েন্টে।

ভুল না করলে হয়তো সরাসরি ৩-০ সেটেই জিতে যেত বাংলাদেশ, চতুর্থ সেটের প্রয়োজনই পড়ত না। তবে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক হরশিত মনে করেন ভুলটাও দরকার ছিল, কারণ ভুল থেকেই তো শেখা, ‘প্রথম সেটে যে ভুলটা আমরা করেছি, সেই ভুলটা করা দরকার ছিল বলে আমি মনে করি। কারণ ভুলটা ধরা পড়াতেই সেটা সংশোধন করে আমরা নেপালের বিপক্ষে জিততে পেরেছি।’ গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের পরবর্তী প্রতিপক্ষ মালদ্বীপ। তিন দলের গ্রুপ থেকে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করতে হলে পরের ম্যাচটি জিততে হবে বাংলাদেশকে। নেপালকে হারাবার পর এবার মালদ্বীপের বিপক্ষে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী হরশিত, ‘পরের ম্যাচটি মালদ্বীপের সঙ্গে। সেমিফাইনালে যেতে হলে এই ম্যাচটি আমাদের জিততেই হবে।’ মাশরাফি বিন মর্তুজার বাড়ি থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে বাড়ি হরশিতের, কাল জেতার পর অনেকটাই মাশরাফিসুলভ অভিজ্ঞতা হয়েছে তাঁর। নানা বয়সী ভক্তদের সেলফি তোলার আবদারটা যে মেটাতে হয়েছে! তাঁর হাত ধরে বাংলাদেশ যদি আরো জয়ের দেখা পায়, তাহলে যে খ্যাতির মিষ্টি বিড়ম্বনাটা হরশিতের আরো বাড়বে, সেটা আন্দাজ করা যায়।

খেলা শুরুর আগে ছিল উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে প্রধান অতিথি হিসেবে বঙ্গবন্ধু এশিয়ান সেন্ট্রাল জোন পুরুষ ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানও। ক্রিকেটের মতো ভলিবলও একদিন বাংলাদেশকে গৌরব এনে দেবে, সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় এমন আশাবাদই প্রকাশ করেছেন বোর্ড সভাপতি। বেলুন উড়িয়ে, ব্যান্ড বাজিয়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান যেমন আনন্দ দিয়েছে, তেমনি পীড়া দিয়েছে ডিজিটাল স্কোরবোর্ডের অভাব। এমন আন্তর্জাতিক আয়োজনে ডিজিটাল স্কোরবোর্ড না থাকাটা তো বেমানানই।



মন্তব্য