kalerkantho



ব্রাজিল আর্জেন্টিনার ভিন্ন চ্যালেঞ্জ

২৩ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



ব্রাজিল আর্জেন্টিনার ভিন্ন চ্যালেঞ্জ

ইতালিয়ানরা হয়তো ভাবছে একজন লিওনেল মেসি না থাকাতেই তাদের বিশ্বকাপে খেলা হলো না। ইকুয়েডরের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে হ্যাটট্রিক করে খাদের কিনারা থেকে আর্জেন্টিনাকে তিনিই তো তুলে দিয়েছেন বিশ্বকাপে। আবার এই মেসিকে ঘিরেই আর্জেন্টাইনদের চির আক্ষেপের গল্প। শেষটা কি অন্য রকম হবে? শেষ জাদুতে তিনিই কি বদলে দেবেন সব কিছু? উত্তরটা সময়ের হাতে তুলে রাখা, তবে তার ক্ষণ গোনা শুরু হয়ে গেছে এরই মধ্যে। রাশিয়া বিশ্বকাপের চূড়ান্ত প্রস্তুতিতে নামছেন মেসিও, বাদ পড়া সেই ইতালির বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই ঝালাই শুরু আলবিসেলেস্তেদের।

মস্কোতে এখন শূন্য ডিগ্রি। নেইমারের অনুপস্থিতিতে ব্রাজিলেরও কি জমে যাওয়ার অবস্থা কি না, তার পরীক্ষা হয়ে যাবে আজ লুঝনিকি স্টেডিয়ামে। ২০০২ বিশ্বকাপের পর থেকেই সেলেসাওদের হেক্সা জয়ের স্বপ্ন বোনা হচ্ছে। গত বিশ্বকাপে বেলো হরিজন্তেতে সেই স্বপ্ন ধূলিসাৎ হওয়ার পর এই লুঝনিকিই নতুন করে ডাকছে হলুদ জার্সিধারীদের। এই মাঠেই যে হবে ২০১৮ বিশ্বকাপের ফাইনাল। ব্রাজিলের বিশ্বকাপ প্রস্তুতির চূড়ান্ত পর্ব শুরু হচ্ছে আজ এখানেই, স্বাগতিক রাশিয়ার বিপক্ষে। একই দিনে জার্মানির ডুসেলডর্ফে বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা মুখোমুখি হচ্ছে ২০১০ বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন স্পেনের। এই হাই ভোল্টেজ ম্যাচের রেশ কাটতে না কাটতে পরের মঙ্গলবার বার্লিনের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে জার্মানি-ব্রাজিল মুখোমুখি। সেই বেলো হরিজেন্তের পর আবার, প্রথমবার। এ সপ্তাহেই সেই লড়াইয়ের উত্তাপ পাওয়া যাচ্ছে। ব্রাজিলিয়ানদের প্রতিশোধের ম্যাচ যে সেটি!

আর্জেন্টিনা খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে বিশ্বকাপের টিকিট পাওয়ার পর দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে এরই মধ্যে। রাশিয়ায় তার একটিতে স্বাগতিকদের হারিয়েছে ন্যূনতম ব্যবধানে, অন্য ম্যাচে হেরেই গেছে নাইজেরিয়ার কাছে। এতেই পরিষ্কার টানা তিন ফাইনাল হারা আলবিসেলেস্তেদের ভাঙাচোরা দলটি এখনো জোড়া লাগেনি। এই শেষ সময়টাই তাই কাজে লাগানোর কথা হোর্হে সাম্পাওলির। আর্জেন্টাইন কোচ সেটি ভালোভাবেই জানেন, ‘এই মুহূর্তে প্রতিটি ম্যাচ এবং ট্রেনিং সেশন আমাদের বিশ্বকাপ প্রস্তুতির জন্য দারুণ গুরুত্বপূর্ণ। ইত্তিহাদের মতো নামকরা একটি মাঠে ইতালির বিপক্ষে খেলা সত্যিই বিশেষ কিছু। দারুণ এক ম্যাচ আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে।’ গত চ্যাম্পিয়নস লিগে জুভেন্টাসের দেয়াল ভাঙতে পারেননি মেসি। এই মৌসুমে মিলানে যাওয়া লিওনার্দো বোনুচ্চির নেতৃত্বে আজও ইতালির রক্ষণ বাধা হয়ে দাঁড়াবে তাঁর। পোস্টে অবশ্য জিয়ানলুইজি বুফন নন, থাকবেন তরুণ দুন্নারুম্মা। আর্জেন্টিনায় আবার ডাক পেয়ে মেসির পাশে নতুন করে নিজেকে প্রমাণের অপেক্ষায় গনসালো হিগুয়েইন। চোটের কারণে নিজের মাঠের এ ম্যাচে অবশ্য খেলা অনিশ্চিত সের্হিয়ো আগুয়েরোর।

ব্রাজিল দলে নেইমার না থাকাটা অবশ্য অন্য রকম। তাঁকে ছাড়া ব্রাজিল ২০১৪-তে পারেনি। কিন্তু তিতে বলছেন আজকের ম্যাচে দলকে সেই সামর্থ্য দেখাতে হবে, ‘নেইমার অন্য রকম খেলোয়াড়। সে বিশ্বের সেরা তিনের একজন। কিন্তু একটা শক্তিশালী দলকে প্রমাণ করতে হয় তারা একজনের ওপর নির্ভরশীল নয়।’ বিশ্বকাপের আগে দলের সেই সামর্থ্য প্রমাণের চ্যালেঞ্জ নিয়েই নামছে ব্রাজিল। বাঁ উইংয়ে নেইমারের জায়গা নিতে পারেন দগলাস কস্তা। আর্জেন্টিনার চ্যালেঞ্জটা ভিন্ন, দলের সেরা তারকাকে নিয়েই সাফল্যের ছক তাদের। এএফপি



মন্তব্য