kalerkantho


পয়েন্টের স্বপ্ন দেখে আবাহনী!

১৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



পয়েন্টের স্বপ্ন দেখে আবাহনী!

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ঘরের মাঠে চিতপটাং হয়ে আবাহনী ভারতে গেছে পয়েন্টের স্বপ্ন নিয়ে! প্রতিপক্ষ বেঙ্গালুরু এফসি, যারা ইন্ডিয়ান সুপার লিগে ফাইনালে উঠে শিরোপার স্বপ্ন দেখছে, তাদের সঙ্গেই কিনা এএফসি কাপে পয়েন্টের খাতা খোলার কথা ভাবছে বাংলাদেশের চ্যাম্পিয়নরা।

আজ রাত সাড়ে ৮টায় ম্যাচ শুরুর আগ পর্যন্ত কল্পনায় রং ছিটানোর সময়। টেকনিক-ট্যাকটিকসের ব্যাপক চর্বণ হবে, কিভাবে অন্তত একটি পয়েন্ট নেওয়া যায়, সে নিয়ে চর্চা হবে। কখনো কখনো কল্পনায় পয়েন্ট ধরা দিতেও পারে। আবাহনী ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রূপু যেমন বলেছেন, ‘গোলমুখ আগলে খেলতে পারলে সব সময়ই তো পয়েন্টের সুযোগ থাকে। ডিফেন্সে যেন আমরা ভুল না করি, সেটাই হবে আমাদের প্রধান কাজ।’ ম্যানেজারের কথায় স্পষ্ট ইঙ্গিত, ডিফেন্সিভ খেলার কৌশল নিয়ে বেঙ্গালুরুর মাঠে নামবে আবাহনী। এ ছাড়া উপায়ও বা কী। যেটা তুলনামূলক সহজ ছিল দেশের মাঠে মালদ্বীপের নিউ রেডিয়েন্টের বিপক্ষে পয়েন্টের খাতা খোলা, সেটাই পারেনি। শুধু হারেইনি, ওই ম্যাচে হারিয়েছে গোলের মূল অস্ত্র সানডে চিজোবাকে। লাল কার্ডের কারণে আজকের ম্যাচে নিষিদ্ধ এই নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড।

আরেক নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড এমেকা ডার্লিংটন থাকলেও না থাকার মতোই। মুটিয়ে যাওয়া শরীর নিয়ে তাঁর নড়তে-চড়তেই বল নিয়ে নিচ্ছে ডিফেন্ডাররা। ফরোয়ার্ড লাইনে তাঁর সঙ্গী হবেন আজ গোলকানা দেশি স্ট্রাইকার নাবিব নেওয়াজ, সহজ সুযোগটিকেও যিনি অবলীলায় কঠিন করে তুলতে পারেন। অবশ্য গোল করার কথা পরে, আগে বেঙ্গালুরুকে ঠেকানোর চিন্তা আবাহনীর। এটাই স্বাভাবিক, দুদিন আগে নিজেদের মাঠে সুনীল ছেত্রীর ঝলমলে হ্যাটট্রিকের সুবাদে পুনে এফসিকে ৩-১ গোলে হারিয়ে তারা ইন্ডিয়ান সুপার লিগের ফাইনালে উঠেছে। শিরোপাপ্রত্যাশী এই দলের ভেনিজুয়েলার স্ট্রাইকার নিকোলাস ফ্লোরেস ১৯ ম্যাচে করেছেন ১৪ গোল। এ ছাড়া স্প্যানিশ এবং এশিয়ান কোটায় আছে একজন অস্ট্রেলিয়ানও। তবে আগামী ১৭ তারিখ আইএসএলের ফাইনাল আছে বলে দ্বন্দ্বে পড়েছেন তাদের স্প্যানিশ কোচ আলবার্ট রোকা। সেরাদের নামাবেন নাকি শক্তি মজুদ করবেন ফাইনালের জন্য? গুঞ্জনে কান পেতে যে রকম শুনেছেন আবাহনী কোচ সাইফুল বারী টিটু, ‘স্বাভাবিকভাবে ফাইনাল তাদের কাছে অনেক বড়। সেভাবে চিন্তা করলে এই ম্যাচে সুনীল কিংবা কয়েকজন বিদেশি নাও খেলাতে পারে তারা। তবে আমাদের লক্ষ্য পয়েন্ট নেওয়া। খেলোয়াড়রা সেই কৌশল মেনে খেলতে পারলেই হয়।’

গত বছর গোল না খাওয়ার কৌশল কিন্তু কাজে লেগেছিল। এএফসি কাপের গ্রুপ পর্বে সেবারও বেঙ্গালুরু এফসি ঢাকায় এসেছিল মহীরুহর রূপ নিয়ে। মাঠেও খেলেছে একচেটিয়া, কিন্তু ম্যাচ জেতে আবাহনী ২-০ গোলে। সারাক্ষণ ঠেকিয়ে দুটি কাউন্টারে দুটি দুর্দান্ত গোল করেছিলেন রুবেল মিয়া ও সাদ উদ্দিন। দুই তরুণ তুর্কির সুবাদে সেবার ওই একটি ম্যাচই জিতেছিল আবাহনী। ফুটবল এমনই, মাঝে মাঝে শক্তির অপমৃত্যু হয় কৌশলের কাছে।



মন্তব্য