kalerkantho



মুখোমুখি প্রতিদিন

পাঁচ বছর সুস্থির অবস্থায় পার করা জরুরি

এশিয়ান গেমসে দারুণ খেলছে বাংলাদেশের হকি। এ পর্যায়ে সব সময় দুর্দান্ত বাংলাদেশ। কিন্তু এ জায়গা থেকে তার উত্তরণ ঘটছে না। সেটা কেন, সমস্যাটাই বা কী—সেসব নিয়ে কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের সঙ্গে কথা বলেছেন সাবেক হকি খেলোয়াড় মেজর ইমরোজ আহমেদ (অব.)

১৩ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



পাঁচ বছর সুস্থির অবস্থায় পার করা জরুরি

 

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : এশিয়ান গেমস বাছাইয়ে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স কেমন দেখছেন?

ইমরোজ আহমেদ : এ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের জন্য কঠিন কিছু নয়। আট দলের প্রতিযোগিতায় মূল লড়াইটা আসলে বাংলাদেশ ও ওমানের মধ্যে। দুই দলের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন, রানার্স-আপ নির্ধারিত হবে। এটা ওয়ার্ম-আপ টুর্নামেন্ট, মূল চ্যালেঞ্জ হবে এশিয়ান গেমসে। এশিয়ার সেরা সাত দল নিশ্চিত হয়ে গেছে আগেই। সেখানে আমরা কী রকম পারফরম করছি, সেটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাতে বোঝা যাবে, আমাদের অবস্থান।

প্রশ্ন : এশিয়ান গেমস বাছাই বাংলাদেশের জন্য এমন কঠিন নয়, তা ছাড়া এএইচএফ কাপ হকিতেও হরহামেশা চ্যাম্পিয়ন হয়। বাংলাদেশের হকি তো এক জায়গায় ঘুরপাক খাচ্ছে।

ইমরোজ :  আমরা এক জায়গায় আছি, তবে আমাদের মানের দু-একটি দল উপরে উঠে গেছে। নানা বিশৃঙ্খলায় পড়ে হকি এক জায়গায় স্থানু হয়ে আছে। নিজেদের সাংগঠনিক দলাদলিতে খেলাটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঠিকঠাক খেলা না হলে খেলোয়াড়দের উন্নতিটা হবে কী করে।

প্রশ্ন : সাংগঠনিক সমস্যা হকির নিত্যসঙ্গী। সব সময় ফেডারেশনের বাইরে যারা থাকবে, তারা প্রতিবন্ধক হয়ে কাজ করে। এটা কেন?

ইমরোজ : আগে মাঠের খেলা, এরপর অন্য কিছু। কিন্তু নিজেদের স্বার্থ-চিন্তায় কখনো কখনো খেলাটা অনেক পরে চলে যায়। সত্যিটা হলো, হকির সম্ভাবনা আছে। একসময় ক্রিকেটের চেয়েও ভালো জায়গায় ছিল হকি। সেটা তখন আমরা উপলব্ধি করতে পারিনি। সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে পাঁচ বছর সুস্থির অবস্থার মধ্য দিয়ে পার করলে হকির একটা হিল্লা হতে পারে। তবে খেলোয়াড়ের উৎসও বাড়াতে হবে।  

প্রশ্ন : খেলোয়াড়ের সংখ্যা বাড়ানোর কথা বলছেন?

ইমরোজ : সত্যি বললে বিকেএসপি ছাড়া এখন হকি খেলোয়াড়ের কোনো উৎস নেই। আগে পুরনো ঢাকায় আরমানিটোলায় ছিল হকি-কালচার। অনেক বড় বড় তারকার জন্ম হয়েছে ওখানে। আমার খেলা শেখাও আরমানিটোলা স্কুলের মাঠে। এখন আর সেদিন নেই, নবাববাড়িরও কোনো দল নেই। ঢাকার বাইরের জেলা থেকেও আসে না কোনো খেলোয়াড়। বিকেএসপি হকি বন্ধ করে দিলে কিন্তু বিপদ হয়ে যাবে।

প্রশ্ন : আগে কিন্তু বেশ কয়েকটি জেলায় খেলা হতো...

ইমরোজ : হ্যাঁ, চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ফরিদপুরসহ বেশ কিছু জেলায় নিয়মিত খেলা হতো। আমার মনে আছে, ক্যাডেট কলেজে পড়ার সময় রাজশাহীতে লিগ খেলতে গিয়েছিলাম। আমাদের সময় স্কুল থেকে খেলোয়াড় উঠত, এখন সেটা বোধ হয় আগের মতো নেই। যাক, আমাদের অনেক সমস্য। এখন দরকার সবাই মিলে হকির উন্নতির জন্য একটা পরিকল্পনা করা।



মন্তব্য