kalerkantho


সফল অস্ত্রোপচারের পর খেলাও দেখলেন নেইমার

৫ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



সফল অস্ত্রোপচারের পর খেলাও দেখলেন নেইমার

চোখ নিবদ্ধ টিভির পর্দায়। সেখানেই দেখছেন, বল পায়ে ছুটোছুটি করছেন সতীর্থরা। দেখেছেন ত্রোয়েসের মাঠে কিভাবে আনহেল দি মারিয়া আর ক্রিস্টোফার এনকুনকুর গোলে জিতেছে প্যারিস সেন্ত জার্মেই। নেইমারেরও নিশ্চয়ই ইচ্ছা করেছে তাঁদের সঙ্গেই মাঠে নেমে যেতে! কিন্তু তাঁর পা যে তখন ব্যান্ডেজে মোড়ানো।

শনিবার ব্রাজিলের স্থানীয় সময় সকাল ১১টার দিকে, বেলো হরিজোন্তের মাতের দেই হাসপাতালে সম্পন্ন হয় নেইমারের পায়ের অস্ত্রোপচার। মার্সেইর সঙ্গে ম্যাচে পঞ্চম মেটাটারসাল ভেঙে গিয়েছিল নেইমারের। এরপর প্যারিস থেকে ব্রাজিলে উড়ে আসা, ক্লাব ও জাতীয় দলের তাঁকে নিয়ে নানা দেনদরবারের পর অবশেষে সম্পন্ন হয়েছে অস্ত্রোপচার। নেইমারের পায়ে ছুরি-কাঁচি চালিয়েছেন ব্রাজিলের জাতীয় দলের চিকিৎসক রদরিগো লাসমার, পর্যবেক্ষণ করেছেন পিএসজির তরফ থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত আরেক সার্জন জেরার্দ স্যালিয়ান্ত। ২০১২ সালে রোনালদোর হাঁটুতে অস্ত্রোপচার করা ও স্কি দুর্ঘটনার পর কার রেসার মাইকেল শুমাখারের মাথায় অস্ত্রোপচার করা এই সার্জনকে পাঠানো হয়েছে নেইমারের ক্লাব পিএসজির তরফ থেকে। এক ঘণ্টা ১৫ মিনিট স্থায়ী অস্ত্রোপচারটি সম্পন্ন হওয়ার পর স্যালিয়ান্ত জানিয়েছেন, ‘অস্ত্রোপচার সফল হয়েছে। এখন সেরে ওঠাটা নির্ভর করছে তার (নেইমারের) শরীর কতটা সাড়া দেয় তার ওপর। ছয় সপ্তাহ পর আমরা আবার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করব। এ রকম পরিস্থিতিতে ছয় সপ্তাহের আগে নিশ্চিত করে কিছু বলা মুশকিল।’ অস্ত্রোপচারের পর শনিবার বিকেলে, বিশ্রামের সময় টিভিতে নিজ দলের খেলার সরাসরি সম্প্রচার দেখেছেন নেইমার, এটাও জানা গেছে হাসপাতাল সূত্রে। একই সঙ্গে স্যালিয়ান্ত জানিয়েছেন, নেইমারের চিকিৎসা নিয়ে ক্লাব ও জাতীয় দলের মধ্যে কোনো বিরোধ ছিল না, ‘যা লেখা হচ্ছে বা বলা হচ্ছে, এর পুরো উল্টোই হয়েছে। নেইমারের চিকিৎসা নিয়ে ক্লাব ও জাতীয় দলের ভেতর কোনো টানাপড়েনই ছিল না। যা হয়েছে সেটা ক্লাব, জাতীয় দল, পরিবার, কর্তৃপক্ষ, সবার অনুমতি সাপেক্ষেই হয়েছে। যেমনটা লেখা হয়েছে, সেরকম কোনো বিরোধই ছিল না।’

রবিবার সকালেই হাসপাতাল ছেড়ে নিজের বিলাসবহুল বাংলোয় চলে গেছেন নেইমার। এখন শুরু হবে তাঁর পুনর্বাসন। পিএসজির ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, দ্রুততম সময়ের মধ্যে ক্লাবের ফিজিওথেরাপিস্টের তত্ত্বাবধানে নেইমারের পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু হবে। প্রায় আড়াই একর জমির ওপর নির্মিত বিলাসবহুল বাংলোতেই আগামী ছয় সপ্তাহ কাটবে নেইমারের। মিরর ইউকে


মন্তব্য