kalerkantho


তবু উৎকণ্ঠা ম্যানইউকে ঘিরে

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



তবু উৎকণ্ঠা ম্যানইউকে ঘিরে

ইউরোপ শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট তিনবার জিতেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড—১৯৬৮, ১৯৯৯ ও ২০০৮ সালে। হোসে মরিনহো এই চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছেন দুইবার—২০০৪ ও ২০১০ সালে। এমন ক্লাব এবং কোচের তো রাজযোটকই হওয়ার কথা। আবার ইউরোপসেরা হওয়ার প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকার কথা প্রবলভাবে; কিন্তু বাস্তবতা বলছে ভিন্ন কথা। সময় যে বলছে, সেরা সময় পেছনে ফেলে এসেছে ম্যানইউ-মরিনহো! আজ চ্যাম্পিয়নস লিগের নক আউট পর্বে সেভিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ নিয়েও তাই উদ্বিগ্ন থাকতে হয় মরিনহোর ক্লাবকে।

এই পর্তুগিজ দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম মৌসুম ছিল গতবার। চ্যাম্পিয়নস লিগের বাইরে তখন ম্যানইউ। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সেরা চারে থাকার সম্ভাবনাও এক রকম শেষ হয়ে যায় মৌসুম শেষের অনেক আগেই। এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার টিকিট পাওয়ার উপায় ছিল একটাই—ইউরোপা লিগ জেতা। তা করেছে ম্যানইউ। ইউরোপসেরা প্রতিযোগিতায় প্রত্যাবর্তনে এবার গ্রুপসেরা হয়েই উঠেছে নক আউট পর্বে। তবু আশার পালে প্রবল হাওয়া নেই। সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, এমনকি বায়ার্ন মিউনিখ, জুভেন্টাস, প্যারিস সেন্ত জার্মেই থেকেও যে ধারে-ভারে বেশ পিছিয়ে ম্যানইউ।

ভাগ্যটা ভালো বলতে হবে, নক আউট পর্বের শুরুতে পেয়েছে তারা তুলনামূলক দুর্বল সেভিয়াকে। আবার দুর্বলই বা কী? গতবারের আগের তিন মৌসুমের টানা ইউরোপা লিগ জিতেছিল স্প্যানিশ ক্লাবটি। ইউরোপে সেভিয়াকে সমীহ না করে তাই উপায় নেই। তার ওপর আজকের প্রথম লেগ খেলতে হবে স্পেনে গিয়ে।

এই ম্যাচের আগে নানা সমস্যায় জেরবার ম্যানইউ। সবচেয়ে বড় সমস্যা তারকা পল পগবাকে নিয়ে। মরিনহোর সঙ্গে তাঁর ঝামেলার গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে দাবানলের মতো। গেল কয়েকটি ম্যাচে একাদশ থেকে বাদ পড়া, থাকলেও মাঝপথে তুলে নেওয়ায় মরিনহো-পগবার মতানৈক্য স্পষ্ট হয়ে গেছে। সেটি কোচ যতই ‘ট্যাকটিক্যাল’ সিদ্ধান্ত হিসেবে চালিয়ে দিতে চান না কেন! এর ওপর দিন কয়েক আগে এফএ কাপের ম্যাচে তো ‘রহস্যময়’ অসুস্থতায় স্কোয়াডেই ছিলেন না পগবা। আজ সেভিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগে অনুশীলন করেছেন। মাঠেও ফিরবেন। তাঁর ও ম্যানইউর দুর্দান্ত ৯০ মিনিটই পারে সব গুঞ্জনকে উড়িয়ে দিতে।

মরিনহো অবশ্য পগবার সঙ্গে ঝামেলার গুঞ্জন আমলে নিচ্ছেন না। তাঁর পছন্দের ৪-২-৩-১ ফর্মেশনের বদলে ৪-৩-৩ ফর্মেশনে ওই মিডফিল্ডার খেলতে চান—এমন গুজব নিয়েও আগ্রহী নন আলোচনায়। ইনজুরিতে পড়া খেলোয়াড়দের আজ ফিরে পাবেন কি না, এ নিয়েই তাঁর উদ্বেগ। এখানেও অবশ্য ওই ফরাসি মিডফিল্ডারকে নিয়ে আশার কথা শোনাতে পারেননি মরিনহো, ‘রাশফোর্ড, এরেরা, ভ্যালেন্সিয়ার ইনজুরি কাটিয়ে ফেরার সুযোগ আছে। পগবা? আমি জানি না। রোহো, জোন্স, ফেলাইনি, ইব্রাহিমোভিচদের কোনো সুযোগই নেই খেলার।’ তবে এই ম্যাচে নিশ্চিতভাবে খেলবেন অ্যালেক্সিস সানচেজ। আর্সেনাল থেকে নাম লেখানো এই ফরোয়ার্ডের জ্বলে ওঠার জন্য এমন ইউরোপিয়ান রাতের চেয়ে আদর্শ মঞ্চ আর কী হতে পারে!

চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্ল্যামারহীন অন্য দ্বৈরথে আজ মুখোমুখি হবে শাখতার দোনেতস্ক-রোমা। যেখানে নামের ভারে এগিয়ে ইতালিয়ান ক্লাবটিই। লড়াইয়ে টিকে থাকতে হলে ঘরের মাঠে আজ ভালো ফলের বিকল্প নেই শাখতারের। এএফপি


মন্তব্য