kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

ভারোত্তোলনে এখন ইতিবাচক পরিবেশ

ময়মনসিংহে প্রথমবারের মতো হচ্ছে যুব ভারোত্তোলন প্রশিক্ষণ ও প্রতিযোগিতা। জাতীয় যুব গেমস সামনে রেখেই এমন উদ্যোগ নিয়েছে ভারোত্তোলন ফেডারেশন। ময়মনসিংহের কৃতী ভারোত্তোলক বিদ্যুৎ কুমার রায় কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে জানিয়েছেন এই আয়োজনের খুঁটিনাটি

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ভারোত্তোলনে এখন ইতিবাচক পরিবেশ

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : ময়মনসিংহে তো কখনো জাতীয় ভারোত্তোলন হয়নি, এবারের যুব প্রশিক্ষণ ও প্রতিযোগিতায় কতটা সাড়া পড়েছে সেখানে?

বিদ্যুৎ কুমার রায় : সারা দেশ থেকে সম্ভাবনাময় ভারোত্তোলকরা এসেছে এখানে। একটা উৎসবমুখর পরিবেশ। অনেক বড় আয়োজন এটি। আমার পুরো ক্যারিয়ারে ময়মনসিংহে এমন একটি চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য অপেক্ষা করেছি। জানেন তো আমি ২৫ বছর জাতীয় চ্যাম্পিয়নের মুকুট ধরে রেখেছি। এর একটা পদকও যদি আমি আমার নিজের শহরে জিততে পারতাম। তাহলে সেই আনন্দ হতো দ্বিগুণ। তার পরও এখন হচ্ছে, আমি কোচ হিসেবে এই আয়োজনের সঙ্গেই আছি— তাই সেই আক্ষেপ আর নেই।

প্রশ্ন : এই প্রশিক্ষণেও আপনি কোচের দায়িত্ব পালন করছেন?

বিদ্যুৎ : না, আমি তো এখন এটা করতে পারি না। যেহেতু আমি জাতীয় দলের দায়িত্বে আছি। আমি কমনওয়েলথ গেমসের জন্য দলকে প্রস্তুত করছি। তবে এই আয়োজনে দেশসেরা সব কোচই এখানে সম্পৃক্ত আছেন, তাতে একটা একটা প্রগ্রাম হবে বলেই আমি আশাবাদী।

প্রশ্ন : নতুন ভারোত্তোলক তুলে আনার লক্ষ্যেই তো হচ্ছে এই আয়োজন?

বিদ্যুৎ : হ্যাঁ, সেটিই সামনে জাতীয় যুব গেমস আছে। এই খেলোয়াড়রাই সেখানে অংশ নেবে। তখন তারা যেন নিজেদের সেরাটা দিতে পারে, সে জন্যই ফেডারেশন উদ্যোগী হয়ে এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচির ব্যবস্থা করেছে। প্রশিক্ষণ শেষে এখানে একটা প্রতিযোগিতাও হবে, তাতে ওই খেলোয়াড়রা যুব গেমসের আগে নিজেদের যাচাইয়ের সুযোগ পাচ্ছে। আমার বিশ্বাস এই আয়োজন থেকে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক নতুন ভারোত্তোলক উঠে আসবে। মাবিয়া, হামিদুলের মতো নতুন তারকা খেলোয়াড় পাব আমরা।

প্রশ্ন : আপনার কমনওয়েলথ গেমস প্রস্তুতি নিয়ে বলুন, সেটি কেমন চলছে?

বিদ্যুৎ : খুবই ভালো ক্যাম্প হচ্ছে। গত এসএ গেমস থেকেও অনেক উন্নতি হয়েছে মাবিয়ার পারফরম্যান্সে। ও ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১০৫ কেজি তুলেছে, স্ন্যাচে ৭৫-৭৭ কেজি তুলছে নিয়মিত। গত দেড়-দুই মাস ধরে নিবিড় প্রশিক্ষণে আছে ওরা, তারই ফল মিলছে।

প্রশ্ন : মাঝখানে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে সুযোগ না পাওয়া নিয়ে অভিযোগ, অভিমান ছিল মাবিয়ার, সেটি কেটে গেছে মনে হচ্ছে?

বিদ্যুৎ : ওই অতীতটা এখন আর ঘাঁটাঘাঁটি করতে চাচ্ছি না। ভারোত্তোলনের বর্তমান অ্যাডহক কমিটি খেলাটার প্রতি দারুণ আন্তরিক। ভারোত্তোলকরাও আস্থা নিয়ে নিজেদের মেলে ধরার সুযোগ পাচ্ছে। ভারোত্তোলনে এখন ইতিবাচক একটা পরিবেশ।

 



মন্তব্য