kalerkantho


মুকুট ধরে রাখলেন নাদাল

২২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মুকুট ধরে রাখলেন নাদাল

স্বপ্নের ফাইনালে গতবার হেরেছিলেন রজার ফেদেরারের কাছে। আক্ষেপ মিটিয়ে এবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ট্রফিতে চুমু আঁকতে পারবেন রাফায়েল নাদাল? শিরোপা না জিতলেও অন্তত র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থান ধরে রাখাটা নিশ্চিত করলেন এই স্প্যানিয়ার্ড। গতকাল ঘাম ঝরিয়ে আর্জেন্টাইন ডিয়েগো সোয়ার্তম্যানকে ৬-৩, ৬-৭, ৬-৩, ৬-৩ গেমে হারিয়ে নিশ্চিত করেছেন কোয়ার্টার ফাইনাল। তাতেই নিশ্চিত হয় টুর্নামেন্ট শেষে তাঁর এক নম্বরে থাকাটা। কোয়ার্টার ফাইনালে নাদালের প্রতিদ্বন্দ্বী মারিন সিলিচ। পাবলো ক্যারোনো বুস্তাকে ৬-৭, ৬-৩, ৭-৬, ৭-৬ গেমে হারান এই ষষ্ঠ বাছাই। গ্র্যান্ড স্লামে এটা তাঁর ১০০তম জয়। অস্ট্রেলিয়ার শেষ ভরসা নিক কিরগুইসকে ৭-৬, ৭-৬, ৪-৬, ৭-৬ গেমে ছিটকে দিয়েছেন গ্রিগর দিমিত্রভ। এ ছাড়া মেয়েদের এককে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট পেয়েছেন ক্যারোলিন ওজনিয়াকি, এলিস মার্তেনস ও কার্লা সুয়ারেস নাভোরা।

এবারের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে কোনো গেম না হারার কীর্তি ছিল শুধু রজার ফেদেরার ও রাফায়েল নাদালের। তবে গতকাল চতুর্থ রাউন্ডের দ্বিতীয় সেটটা ডিয়েগো সোয়ার্তম্যানের কাছে হেরে বসেন নাদাল। ম্যাচজুড়েই তাঁকে ঝামেলায় ফেলেছেন এই আর্জেন্টাইন। নাদালের জিততে সময় লেগেছে ৩ ঘণ্টা ৫১ মিনিট। চোট কাটিয়ে ফেরার পর এটাকে ইতিবাচকই দেখছেন তিনি, ‘আমি নিশ্চিত হলাম এই ফিটনেস নিয়ে চার ঘণ্টা কোর্টে থাকতে পারি। আমার আত্মবিশ্বাস বাড়ল আরো। ডিয়েগো খুবই ভালো খেলেছে, বিশেষ করে সার্ভে ছিল ভয়ংকর।’

এ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে দশমবার কোয়ার্টার ফাইনাল খেলবেন নাদাল। গ্র্যান্ড স্লাম ক্যারিয়ারে এটা তাঁর ৩৩তম কোয়ার্টার ফাইনাল। সেখানে মুখোমুখি হতে হবে মারিন সিলিচের। নাদালকে হুমকিই দিয়ে রাখলেন ২০১৪-র ইউএস ওপেনজয়ী এই তারকা, ‘আমি সঠিক পথে আছি। নিজের ছন্দে খেলতে পারলে যে কাউকে হারাতে পারি। ইউএস ওপেনের শিরোপা আরো আত্মবিশ্বাসী করেছে আমাকে। এখন প্রতিপক্ষকে ভয় না পেয়ে নিজের টেনিসের ওপর বেশি আস্থা আমার।’ আন্দ্রেয়া সেপ্পিকে ৬-৭, ৭-৫, ৬-২, ৬-৩ গেমে হারিয়ে প্রথমবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনাল  নিশ্চিত করেছেন কাইল এডমুন্ড। অ্যান্ডি মারে না থাকায় তাঁকে ঘিরেই স্বপ্ন দেখছেন ব্রিটিশরা।

মেয়েদের এককে তৃতীয়বার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে ক্যারোলিন ওজনিয়াকি। র‍্যাংকিংয়ে দুইয়ে থাকা এই ডেনিস গতকাল মাত্র ৬৩ মিনিটে ৬-৩, ৬-০ গেমে হারিয়েছেন মাগদালেনা রাইবারিকোভাকে। শেষ ১২ গেমের ১০টিই জিতেছিলেন ওজনিয়াকি। কোয়ার্টার ফাইনালে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী স্প্যানিশ কার্লা সুয়ারেস নাভোরা। অবাছাই নাভোরা ২ ঘণ্টা ১৭ মিনিটে ৪-৬, ৬-৪, ৮-৬ গেমে হারিয়েছেন অ্যানেত কন্তাভেইতকে। ২০১২ সালে কিম ক্লাইস্টার্সের পর প্রথম বেলজিয়ান হিসেবে শেষ আটে পৌঁছেছেন এলিস মার্তেনস। ক্রোয়েশিয়ার পেত্রা মার্তিচকে তিনি হারান ৭-৬, ৭-৫ গেমে। বিবিসি



মন্তব্য