kalerkantho


আইসিসির বর্ষসেরা কোহলি

১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া, ক্রিকইনফো, টাইমস অব ইন্ডিয়া—অনেক গণমাধ্যমের করা ২০১৭-র সেরা একাদশে জায়গা হয়েছিল সাকিব আল হাসানের। আসলেই ২০১৭ সালটা ছিল তাঁর ক্রিকেট অধ্যায়ের অন্যতম আলোকিত পর্ব। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১০ উইকেট, চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তোলাসহ অনেক কৃতিত্বই দেখিয়েছেন সাকিব। কিন্তু দুর্ভাগ্য সাকিবের, মাঠের একাদশে দক্ষ অলরাউন্ডারের দরকার পড়লেও পুরস্কারের তালিকায় যে নেই এই বিভাগ! শুধু ব্যাটিং বা বোলিং দিয়ে বর্ষসেরার কাতারে আসার মতো পারফরম্যান্স ছিল না সাকিবের, যেটা  অলরাউন্ডারের চিরায়ত সমস্যা। দেশের ক্রীড়া সাংবাদিকদের কাছে এবং বেশ কিছু গণমাধ্যমেও ২০১৭ সালে বাংলাদেশের বর্ষসেরা ক্রিকেটার ও বর্ষসেরা বিশ্ব একাদশে ঠাঁই করে নিলেও আইসিসির বার্ষিক পুরস্কার বিতরণীতে ব্রাত্যই থেকে গেছেন সাকিব।

২০১৬ সালের ২১ সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৭-র ৩১ ডিসেম্বর সময়সীমার ভেতর ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে আইসিসির জুরি বোর্ড বেছে নিয়েছে বিভিন্ন বিভাগের সেরা ক্রিকেটারকে। ২০১৭ সালে জীবনের নতুন ইনিংস শুরু করেছিলেন বিরাট কোহলি, একই বছরের পারফরম্যান্সের জন্য বর্ষসেরা ক্রিকেটার হয়েছেন ভারতীয় অধিনায়ক। টেস্টে ছয়টি ডাবল সেঞ্চুরি, ওয়ানডেতে সাতটি সেঞ্চুরি আর টি-টোয়েন্টিতে ১৫৩ স্ট্রাইক রেটে ২৯৯ রান। সেই সঙ্গে তাঁর নেতৃত্বে ভারতের টেস্ট র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষে আরোহণ। বছরজুড়ে বিরাট-বন্দনাই চলেছে, তাইতো স্যার গ্যারি সোবার্সের নামে চালু করা বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার কোহলির হাতেই। একই সঙ্গে বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটারের পুরস্কার কোহলির। বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার স্টিভেন স্মিথ। টানা চার বছর টেস্টে বছরে এক হাজার রান করেছেন স্মিথ, আইসিসির সময়সীমায় ১৬ ম্যাচে তাঁর ১৮৭৫ রান। আট সেঞ্চুরি, ছয় হাফসেঞ্চুরি। সেরা উদীয়মান পাকিস্তানের হাসান আলী, টি-টোয়েন্টির সেরা পারফরম্যান্স ভারতের যুযবেন্দ্র চাহালের ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২৫ রানে ৬ উইকেট শিকার। সহযোগী দেশের সেরা ক্রিকেটার আফগানিস্তানের রশিদ খান। ক্রিকইনফো



মন্তব্য