kalerkantho


শেখ জামাল-আবাহনী শোডাউন আজ

৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



শেখ জামাল-আবাহনী শোডাউন আজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আবাহনী মাঠটা এখন বিরানভূমির মতো। উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব শেষ হয়ে যাওয়ার পর পুরো মাঠ ন্যাড়া। পরের দিন তাদের ফুটবল দলটি লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেতে পারে, মাঠের এক কোণে নীরবে তাদের অনুশীলন চলছে। অনুশীলন দেখতে কৌতূহলী কেউ নেই। ক্লাবের কোনো কর্মকর্তাও না। যেকোনো একটা দিনের মতোই ঘাম ঝরাচ্ছেন খেলোয়াড়রা।

তুলনায় শেখ জামাল মাঠ মুখরিত। একদিকে শেখ জামাল ক্রিকেট একাডেমির কার্যক্রম চলছে, অন্যদিকে ফুটবলাররা। ক্লাবের ফুটবল কমিটির চেয়ারমান আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু মাঠে। কোচ মাহবুব হোসেন রক্সি ক্লাব কোচিংয়ে সবচেয়ে বড় ম্যাচটায় ডাগআউটে দাঁড়াতে যাচ্ছেন, সেই উত্তেজনা তাঁর চোখে-মুখে। আবাহনীর মতো আজ জিতলে শেখ জামাল চ্যাম্পিয়ন হবে না বটে, তবে শিরোপা চলে আসবে নাগালের মধ্যে। এরপর বাকি থাকবে শুধু আর এক ম্যাচ। সেই ম্যাচে আবাহনী জিতলেও কাজ হবে না কিন্তু শেখ জামাল ফরাশগঞ্জকে হারিয়েই চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেতে পারে। জামাল-আবাহনীর আজকের মুখোমুখি ম্যাচটা তাই একরকম ‘ফাইনাল’ই। লিগের শেষ তিন রাউন্ডে চট্টগ্রাম আবাহনীও ছিল লড়াইয়ে। প্রথম রাউন্ডে তাদের ছিটকে ফেলেছে জামালই। আজ আবাহনীর শিরোপা উৎসবের পথেও তারাই বড় বাধা। নিজেরাও যে শিরোপার সুবাস পাচ্ছে। এই সুযোগ ছাড়েন কী করে রাফায়েল-জাহেদ পারভেজরা!

লিগের সর্বোচ্চ স্কোরার রাফায়েল সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ‘এই ম্যাচে ৩-০তে হারাব আবাহনীকে!’ নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকারের এই দম্ভ মানায়। আবাহনী কোচ আতিকুর রহমানও জানেন, রাফায়েল-সলোমন কিংরা কত বড় হুমকি। দুজন মিলে গোল করেছেন ২৯টি, আবাহনীর পুরো দলের গোলও এর চেয়ে খুব বেশি নয়, ৩৩টি। তার ওপর আজকের তিন হলুদ কার্ডের খাঁড়ায় পড়ে খেলা হচ্ছে না ওয়ালি ফয়সালের। এই লেফট ব্যাকের অনুপস্থিতিতে আকাশি-নীলের ডিফেন্সে নির্ভরতা কমবে নিশ্চিত, জামাল স্ট্রাইকাররা সেই সুযোগ কাজে লাগাতে তো মুখিয়েই থাকবেন।

ডিফেন্সে ভরসা রাখতে ঘানাইয়ান সামাদ ইউসুফকেও খেলাতে হবে, তাতে করে জামালের মতো ফরোয়ার্ড লাইনে দুই বিদেশিকে খেলনোর বিলাসিতা করার সুযোগ নেই আবাহনীর। ইনফর্ম স্ট্রাইকার সানডে চিজোবার সঙ্গে তাই অধারাবাহিক নাবিব নেওয়াজই ভরসা। স্কোরিংয়ের এ জায়গাটায়ই এগিয়ে শেখ জামাল।



মন্তব্য