kalerkantho


সব অর্জন নিয়ে মাদেইরায়

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সব অর্জন নিয়ে মাদেইরায়

এই ১৫ শিরোপা নিয়ে বছরের প্রথম দিনটি পর্তুগিজ যুবরাজ উদ্‌যাপন করলেন নিজের শহর মাদেইরায়। শিরোপাগুলোর সামনে ছবি তুলে জানালেন দারুণ একটি বছর কাটানোর কথা, ‘২০১৭ সালটি অসাধারণ ছিল। অনেক কিছু অর্জন ছিল এ বছর।’

গত বছরটি স্বপ্নের মতো কেটেছে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর। রিয়াল মাদ্রিদের পাঁচ-পাঁচটি শিরোপা জয়ের নায়ক ছিলেন তিনিই। প্রথম ক্লাব হিসেবে রিয়ালকে জিতিয়েছেন টানা দুটি চ্যাম্পিয়নস লিগ। পুনরুদ্ধার করেছেন লা লিগা। স্প্যানিশ আর ইউরোপিয়ান সুপার কাপের পাশাপাশি রিয়ালকে জিতিয়েছেন ক্লাব বিশ্বকাপও। এরই স্বীকৃতি হিসেবে জিতেছেন ফিফার দ্য বেস্ট আর ব্যালন ডি’অর। ক্যারিয়ারে সব মিলিয়ে মর্যাদার ১৫টি ব্যক্তিগত শিরোপা আছে তাঁর। এর পাঁচটি ব্যালন ডি’অর, দুটি ফিফার দ্য বেস্ট, একটি ফিফার ওয়ার্ল্ড প্লেয়ার অব দ্য ইয়ার, তিনটি উয়েফা প্লেয়ার অব দ্য ইয়ার আর চারটি গোল্ডেন শু।

এই ১৫ শিরোপা নিয়ে বছরের প্রথম দিনটি পর্তুগিজ যুবরাজ উদ্‌যাপন করলেন নিজের শহর মাদেইরায়। শিরোপাগুলোর সামনে ছবি তুলে জানালেন দারুণ একটি বছর কাটানোর কথা, ‘২০১৭ সালটি অসাধারণ ছিল। অনেক কিছু অর্জন ছিল এ বছর। ফিফার দ্য বেস্ট আর ব্যালন ডি’অর জেতার মতো রিয়ালের হয়ে পাঁচ শিরোপা জেতা স্মরণীয় হয়ে থাকবে আমার ক্যারিয়ারে।’

মাদেইরার রাস্তায় খেলে বেড়ে ওঠা রোনালদোর। একেকটি সিঁড়ি বেয়ে লিসবন হয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, তারপর রিয়াল মাদ্রিদে নিজের দ্যুতি ছড়ানো। লিওনেল মেসির মতো বল পায়ের শিল্পী না হয়েও তাঁর সমান পাঁচটি ব্যালন ডি’অর জয় অসাধারণ অর্জন রোনালদোর। এসব যে কঠোর পরিশ্রমের জন্যই সম্ভব হয়েছে জানালেন আরো একবার, ‘যখন আমি মাদেইরার রাস্তায় খেলতাম আর ফুটবলের চূড়ায় ওঠার স্বপ্ন দেখতাম তখন কল্পনাও করতে পারিনি একদিন আমি এমন একটা ছবি তুলতে পারব। এটা সম্ভব হয়েছে কঠোর পরিশ্রমের কারণে।’

প্রতিদিন কোনো না কোনো রেকর্ড ভাঙছেন রোনালদো। চ্যাম্পিয়নস লিগ ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি গোল তাঁর। গ্রুপ পর্বের ছয় ম্যাচে আছে রেকর্ড ৯ গোলের কীর্তি। প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে গোল করেছেন তিন-তিনটি চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে। এ জন্য কৃতজ্ঞতা জানালেন সতীর্থদের প্রতি, ‘এই মুহুর্তটি সবার উপরে উৎসর্গ করছি আমার পরিবার, বন্ধু, সতীর্থদের। সে সঙ্গে সব কোচদের যাঁদের কাছে আমি সবসময় শিখেছি। সবশেষে বিশেষ ধন্যবাদ ভক্তদের। এই ট্রফিগুলো আপনাদেরও।’

এখানেই থেমে থাকতে চান না রোনালদো। বয়স ৩২ ছাড়িয়ে গেলেও কঠোর পরিশ্রম করে আরো সমৃদ্ধ করতে চান ক্যারিয়ারটা। এ বছর রয়েছে বিশ্বকাপের চ্যালেঞ্জ। ইউরোজয়ী রোনালদা কি পারবেন বিশ্বকাপ জিতে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে? এএস


মন্তব্য