kalerkantho


এএফসি কাপ নিশ্চিত সাইফ স্পোর্টিংয়ের

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



এএফসি কাপ নিশ্চিত সাইফ স্পোর্টিংয়ের

ক্রীড়া প্রতিবেদক : শেখ রাসেল ও সাইফ স্পোর্টিং—শিরোপা লড়াইয়েও নেই তারা, অবনমনের শঙ্কাও নেই। তবে কাল রাসেলের মুখোমুখি হওয়ার আগে সাইফের ভিন্ন একটি অনুপ্রেরণা ছিল, এই ম্যাচ জিতলেই যে পয়েন্ট টেবিলে চতুর্থ স্থান নিশ্চিত করার পাশাপাশি এএফসি কাপে খেলাও চূড়ান্ত করবে তারা। ষষ্ঠ স্থানে থাকা রাসেল তাদের সেই লক্ষ্যে বাধা হতে পারেনি, ম্যাচটি ২-১ গোলে জিতে নিয়েছে প্রিমিয়ারের নবাগত ক্লাবটিই।

নতুন এসেই সাইফ অবশ্য শিরোপা জেতার মতো দল গড়েছিল; কিন্তু ক্রমে তারা সেই লড়াই থেকে পিছিয়ে পড়ে একসময় ছিটকেও যায়। লিগের এই শেষ পর্যায়ে শীর্ষ তিনেই শুধু হচ্ছে শিরোপার লড়াই। সাইফের সান্ত্বনা তারা অন্তত সেরা চারে থেকে এ বছর এএফসি কাপের প্লে অফে খেলতে পারছে। কাল ম্যাচের শুরুতেই এগিয়ে যায় তারা। শেখ রাসেল ডিফেন্ডার অরূপ কুমারের উপহার অবশ্য সেই গোল। জুয়েল রানার ক্রসে আগুয়ান হেম্বার ভ্যালেন্সিয়াকে দেখে ক্লিয়ার করতে গিয়ে গোলমাল করে ফেলেন, নিজেই বল ঠেলেন জালে। রাসেল দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সমতায় ফেরে স্প্যানিয়ার্ড ফরোয়ার্ড গার্সিয়া দি কোর্তাজার হেডে। মোনায়েম খানের ফ্রিকিকে মাথা ছুঁইয়ে দিয়েছিলেন স্প্যানিয়ার্ড ফরোয়ার্ড গার্সিয়া দি কোর্তাজার। পোস্টে ঢোকার মুখে সেই বল ক্লিয়ার করতে গিয়েও পারেননি সাইফ ডিফেন্ডার আরিফুল ইসলাম, নিজেদের জালেই ঠেলেছেন। ৬৫ মিনিটে সাইফকে জয়সূচক গোলটি এনে দেন ইব্রাহিম। ডান দিক থেকে মোহাম্মদ মতিনের ক্রসে বাঁ দিকের পোস্টে একেবারে অরক্ষিত অবস্থায় বল জালে ঠেলেছেন এই তরুণ উইঙ্গার।

দিনের অন্য ম্যাচে রহমতগঞ্জ গোলশূন্য ড্র করেছে বিজেএমসির সঙ্গে। গত মৌসুমের শুরুতে চমক দেখানো রহমতগঞ্জ শেষ দিকে ছন্দ হারিয়ে ফেলে। প্রথম পর্ব শেষে শীর্ষে থাকা দলটি লিগ শেষ করে ৭ নম্বরে থেকে। কামাল বাবুর দল সেই যে পড়েছে এই মৌসুমেও সেখান থেকে উঠে দাঁড়াতে পারছে না। এবার অবনমিত হওয়ারও ঘোর শঙ্কায় ঘিরে আছে পুরনো ঢাকার দলটিকে। গতকালের আগ পর্যন্ত ১৩ পয়েন্ট নিয়ে তারা ছিল টেবিলের তলানিতে। কাল বিজেএমসিকে হারিয়ে অবনমনের সেই চোখ রাঙানি কিছুটা হলেও এড়াতে পারত তারা; কিন্তু পারেনি, সুযোগ নষ্ট করে ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র করেছে শেষ পর্যন্ত। তাতে ফরাশগঞ্জের সমানই ১৪ পয়েন্ট এখন রহমতগঞ্জের। গোল ব্যবধানে তারা একাদশ স্থানে আর ফরাশগঞ্জ তলানিতে।

ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই রহমতগঞ্জকে এগিয়ে দিতে পারতেন মোহাম্মদ সোহেল। গোলরক্ষকের সামনে পরপর দুইবার বল পেয়েও তাঁকে হারাতে পারেননি তিনি। ম্যাচ শেষে এই সুযোগ নষ্ট নিয়েই বেশি আক্ষেপ ঝরেছে কামাল বাবুর কণ্ঠে। শেষ দুই রাউন্ডে রহমতগঞ্জ, ফরাশগঞ্জের সঙ্গে ব্রাদার্সেরও ঝুঁকি রয়েছে অবনমনের। ১৬ পয়েন্ট নিয়ে তারা দশম স্থানে।


মন্তব্য