kalerkantho



মুখোমুখি প্রতিদিন

সেই ধনুকটা আর আমার কাছে নেই

এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপের রেশ থাকতে থাকতেই শুরু হয়ে যাচ্ছে জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ। আগামীকাল টঙ্গীতে আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে শুরু হবে এবারের আসর। এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের কম্পাউন্ডে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলা আবুল কাশেম মামুন আশায় আছেন এবার জাতীয় চ্যাম্পিয়নের মুকুট পরার। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে নিজের সেই প্রত্যাশা ও প্রস্তুতির কথাই বলেছেন তিনি

২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সেই ধনুকটা আর আমার কাছে নেই

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : এবারের এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ দিয়েই তো আপনাদের জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপের প্রস্তুতি হয়ে গেছে, তো কী আশা করছেন এবারের আসরে?

মামুন : এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে আমি ভালোই করেছি। তবে ওই আসরে যে ধনুকটা দিয়ে আমি খেলেছি, জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে সেটা পাচ্ছি না। সর্বশেষ মডেলের ওই ধনুকটা ফেডারেশনের, তারা তো আনসারের হয়ে খেলার জন্য সেটা আমাকে দেবে না। তবু আমি চেয়েছিলাম নিজের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার কথা বলে, কিন্তু পাইনি। এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের পারফরম্যান্সে আমি অবশ্য উইন অ্যান্ড উইন কম্পানি থেকে নতুন একটা ধনুক উপহার পেয়েছি। কিন্তু সেটাতে মানিয়ে নিতে তো সময় লাগবে।

প্রশ্ন : তবু এবার কী আশা করছেন? এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে ব্যক্তিগত ইভেন্টে বাংলাদেশ থেকে একমাত্র আপনিই কোয়ার্টার ফাইনালে খেলতে পেরেছেন, সেই পারফরম্যান্সে এবারের জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে তো সোনা জেতার কথা?

মামুন : সোনা জেতার লক্ষ্য তো অবশ্যই আছে। গত জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপেও আমার সোনা আছে, তবে সেটা দলীয় ও দ্বৈত ইভেন্টে। ব্যক্তিগত ইভেন্টে আমি শেষ সোনা জিতি ২০১০ সালে। এরপর আর্চারিতে অনিয়মিতও হয়ে পড়েছিলাম। তবে সত্যি এবার সোনা জেতার ভাবনাই আমার মাথায় আছে, সম্ভাবনা অবশ্য পঞ্চাশ-পঞ্চাশ।

প্রশ্ন : সামনে আন্তর্জাতিক আসর কী আছে?

মামুন : সামনে বোধ হয় ইসলামিক স্পোর্টস ফেডারেশন সলিডারিটি আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপটা আবার হবে। তারিখটা অবশ্য নিশ্চিতভাবে জানি না। সেটাও বড় একটা আন্তর্জাতিক আসর। আমার সোনা জেতার লক্ষ্যই থাকবে তাতে। আর আগামী এশিয়ান গেমসেও খুব সম্ভবত আর্চারি দল যাবে। জানি না সেই দলে সুযোগ পাব কি না, তবে চেষ্টা তো থাকবেই। এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে আরেকটু ভালো করলে সেমিফাইনালেও খেলতাম আমি। তেমন পারফরম্যান্সে তো এশিয়ান গেমসেও পদকের আশা করা যায়।

প্রশ্ন : এবারের এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের আগ পর্যন্ত সব সময় রিকার্ভ ইভেন্টের আর্চারদের নিয়েই মাতামাতি হয়েছে, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কম্পাউন্ডে তো বাংলাদেশের তেমন সাফল্যও নেই?

মামুন : হ্যাঁ, এটা ঠিক কম্পাউন্ডে বেশি সাফল্য নেই। সব সময় রিকার্ভে জোর দেওয়া হয়, কারণ অলিম্পিকে ওই ইভেন্টটাই। কম্পাউন্ড এখনো অলিম্পিকে অন্তর্ভুক্ত হয়নি। এশিয়ান গেমসে অবশ্য আছে। সামনে অলিম্পিকেও নিশ্চয় যাবে, সে সময় কম্পাউন্ডের আর্চাররাও নিশ্চয় গুরুত্ব পাবে।



মন্তব্য