kalerkantho


অ্যাশেজ জিতে হোয়াইটওয়াশের হুমকি

১৯ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



অ্যাশেজ জিতে হোয়াইটওয়াশের হুমকি

পার্থের ওয়াকায় শেষ টেস্ট এটাই। এ জন্য কিনা মুখ ভার আকাশের। আগের দিনের প্রবল বৃষ্টিতে ভিজে যায় পিচের একটা অংশ! অস্ট্রেলিয়ার কোনো ভেন্যুতে এ ধরনের ঘটনা ‘লজ্জার’ বলেছেন খোদ স্টিভেন স্মিথ। স্বাভাবিকভাবে আম্পায়াররা খেলা পিছিয়ে দেওয়ায় ভেজা পিচ উপযুক্ত করতে প্রাণান্ত চেষ্টা মাঠকর্মীদের। এর সঙ্গে সকালের বৃষ্টিতে আরো অনিশ্চিত গতকালের খেলা। বৃষ্টি থামার পর সফল মাঠকর্মীরা। লাঞ্চের অনেক পর খেলা শুরু হলেও ইংল্যান্ডকে অলআউট করতে বেশি সময় নেয়নি অস্ট্রেলিয়া। ৪ উইকেটে ১৩২ রানে চতুর্থ দিন শেষ করা জো রুটের দল চা-বিরতির আগে অল আউট ২১৮ রানে। আগুনে পেসে ৫ উইকেট নিয়ে জস হ্যাজেলউড জয় এনে দেন ইনিংস ও ৪১ রানে। তাতে উদ্ধার হয় অ্যাশেজও।

সবশেষ অ্যাশেজে ইংল্যান্ডে ৩-২ ব্যবধানে হেরেছিল অস্ট্রেলিয়া। এবার নিজেদের মাটিতে ৩-০ ব্যবধানে জিতল দুই ম্যাচ হাতে রেখে। এমন সাফল্যে জো রুটের দলকে হোয়াইটওয়াশের হুমকি স্টিভেন স্মিথের, ‘দল হিসেবে গত কয়েক সপ্তাহে অসাধারণ খেলেছি। ওদের হোয়াইটওয়াশ করতে পারলে দারুণ হবে। তবে ধাপে ধাপে এগোতে চাই আমরা। বক্সিংডেতে মেলবোর্নের চতুর্থ টেস্ট জেতাটা লক্ষ্য এখন।’

গতকাল অসহায় আত্মসমর্পণ করলেও নিজেদের হেলাফেলার দল মানতে রাজি নন জো রুট, ‘আমরা টানা তিন টেস্ট হেরেছি ঠিকই। কিন্তু এই তিন টেস্টে কয়েকটি সেশনে খেলেছি দাপটে। সেই দাপট পাঁচ দিন ধরে রাখতে না পারা ব্যর্থতা আমাদের। স্কোরকার্ড যা বলছে আমরা মোটেও ততটা খারাপ দল নই।’ এ নিয়ে প্রথম তিন টেস্ট শেষে অ্যাশেজের মীমাংসা হলো ১০ বার, এর ৯ বারই কীর্তিটা অস্ট্রেলিয়ার। ইংল্যান্ড একবার সেটা করেছিল ১৯২৮-২৯ মৌসুমে। তা ছাড়া প্রথম ইনিংসে ৪০০’র বেশি করেও কোনো দল ইনিংসে হারল এ নিয়ে সাতবার। নিজেদের খেলা শেষ ১২ টেস্টে ইংল্যান্ড  লজ্জাটা পেয়েছে তিনবার!

আগের দিনের ১৪ রান নিয়ে খেলতে নেমে জনি বেয়ারস্টো গতকাল বোল্ড হন জস হ্যাজেলউডের প্রথম বলেই। ষষ্ঠ উইকেটে ৩৯ রানের জুটি ডেভিড মালান ও মঈন আলীর। আক্রমণে ফিরে প্রথম ওভারেই ১১ রান করা মঈনকে এলবিডাব্লিউ করেন নাথান লিয়ন। হ্যাজেলউডের লেগ স্টাম্পের বাইরের বল তাড়া করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ৫৪ করা মালান। সেই হ্যাজেলউডই এরপর ফেরান ক্রেগ ওভারটনকে। প্যাট কামিন্সের বাউন্সার ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান জেমস অ্যান্ডারসনের মাথায় লাগলে ফিল হিউজের স্মৃতি মনে করে ছুটে এসেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার সব ফিল্ডার। সমবেদনা জানিয়ে কামিন্স টানা তিনটি বাউন্সার করেন তাঁকে! ক্রিস ওকসকে উইকেটের পেছনে ক্যাচ বানিয়ে ইংল্যান্ডকে ২১৮-তে গুটিয়ে দেন কামিন্সই। সিরিজের চতুর্থ টেস্ট মেলবোর্নে শুরু হবে ২৬ ডিসেম্বর। ক্রিকইনফো

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ইংল্যান্ড : ৪০৩ ও ৭২.৫ ওভারে ২১৮ (ভিন্স ৫৫, মালান ৫৪, ওকস ২২, বেয়ারস্টো ১৪; হ্যাজেলউড ৫/৪৮, লিয়ন ২/৪২)।

অস্ট্রেলিয়া : ৬৬২/৯ ডি.।

ফল : অস্ট্রেলিয়া ইনিংস ও ৪১ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ : স্টিভেন স্মিথ।

অ্যাশেজ : অস্ট্রেলিয়া ৩-০ ব্যবধানে জয়ী।



মন্তব্য