kalerkantho


ঠিক আছে, জীবনে তো কত কিছুই হয়

১২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ঠিক আছে, জীবনে তো কত কিছুই হয়

টেস্টে গত কিছুদিন আমরা ভালোই করেছি। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে জিতলাম, অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের সঙ্গে জিতলাম এখানে। এই জায়গা থেকে কতটা ভালো করা যায়, সেই চেষ্টাই থাকবে।

টানা দ্বিতীয়বার অধিনায়ক হিসেবে বিপিএল ট্রফি উঁচিয়ে ধরার হাতছানি তাঁর সামনে। আজকের সেই ফাইনাল নিয়ে ঢাকা ডায়নামাইটস অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের সঙ্গে সংবাদমাধ্যমের আলাপ হলো অবশ্য খুব সামান্যই। সেটি খুব স্বাভাবিকও। কারণ আগের দিন বোর্ডসভায় টেস্ট নেতৃত্বের ব্যাটন আবার তাঁর হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হওয়ার পর যে এই অলরাউন্ডারের প্রতিক্রিয়া জানাটা বাকি ছিল। সেটি যেমন জানালেন, তেমনি বাদ গেল না বাংলাদেশ দলের নেতৃত্বে তাঁর অতীত এবং ভবিষ্যৎও

 

প্রশ্ন : ফাইনালের প্রতিপক্ষ তো এখনো জানা নেই।

সাকিব আল হাসান : দুটি দলের সঙ্গেই তো খেলেছি। রংপুরের সঙ্গে দুটি ম্যাচ, কুমিল্লার সঙ্গে তিনটি। সবাই সবার সম্পর্কে এখন জানে। যাদের সঙ্গেই খেলা হোক, আশা করি ভালো একটা ম্যাচ হবে। যেহেতু একটি দলের হয়ে খেলছি, অবশ্যই চেষ্টা থাকবে দল যেন চ্যাম্পিয়ন হয়। গুরুত্বপূর্ণ হলো, ওই দিনটিতে কে ভালো খেলে। টি-টোয়েন্টিতে একজন-দুজনও খেলা ঘুরিয়ে দিতে পারে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার, ভালো একটা ম্যাচ হোক। সবাই উপভোগ করুক খেলাটা।

প্রশ্ন : চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য কি স্পিন আক্রমণেই আস্থা রাখবেন?

সাকিব : আমাদের বোলিং আক্রমণ ভালো। তিন মূল স্পিনারের পাশাপাশি রনিও (আবু হায়দার) পুরো মৌসুমে ভালো বোলিং করেছে। মোসাদ্দেকও খুব ভালো করছে। সব মিলিয়ে বোলিং আক্রমণ ভালো করছে। ব্যাটিং মাঝেমধ্যে ব্যর্থ হলেও এখন ধারাবাহিক। টুর্নামেন্টের এই সময়টাতে ধারাবাহিকতাই গুরুত্বপূর্ণ। ছন্দও আছে। চেষ্টা থাকবে আরেকটি ফাইনাল জেতার। এখানে অনেক বড় বড় ক্রিকেটার আছেন। তাঁদের সবার ভেতরই ভালো করার তাড়া থাকে এ রকম ম্যাচে।

প্রশ্ন : আবার টেস্ট অধিনায়ক হওয়ার প্রতিক্রিয়া জানা হয়নি এখনো।

সাকিব : নতুন দায়িত্ব। টেস্টে গত কিছুদিন আমরা ভালোই করেছি। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে জিতলাম, অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের সঙ্গে জিতলাম এখানে। এই জায়গা থেকে কতটা ভালো করা যায়, সেই চেষ্টাই থাকবে।

প্রশ্ন : নেতৃত্বের এই দফায় দল কতটা বদলাবে?

সাকিব : বলা মুশকিল কতটা পরিবর্তন আসবে। তবে পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ।

প্রশ্ন : নেতৃত্বে আগেরবারের অভিজ্ঞতা তো ভালো ছিল না।

সাকিব : আমার তো ওটা মনেই নেই, কী হয়েছিল?

প্রশ্ন : নেতৃত্ব কেড়ে নেওয়া হয়েছিল।

সাকিব : ঠিক আছে, জীবনে তো কত কিছুই হয়।

প্রশ্ন : এবারের চ্যালেঞ্জটা কেমন হবে?

সাকিব : জানি না তো, এখন আপাতত বিপিএল চ্যালেঞ্জ নিয়ে আছি। বিপিএল শেষ হোক, জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু হলে দেখা যাবে কী কী চ্যালেঞ্জ আছে। যখন পরিকল্পনা করা হবে, তখন বোঝা যাবে।

প্রশ্ন : সামনে তো দেশের বাইরেই সিরিজ বেশি। কতটা কঠিন হবে?

সাকিব : প্রতিটি টুর্নামেন্ট বা সিরিজই কঠিন। সেটা দেশে হোক বা বাইরে। হয়তো দেশে একটু স্বস্তি বোধ করি আমরা। বিদেশে যেহেতু সাফল্য নেই, সেহেতু আমাদের জন্য কঠিন হয়ে যায়। একই সঙ্গে এটাও সুযোগ ভালো কিছু করার। কোনো না কোনো কিছু তো কেউ না কেউ শুরু করবে। যদি শুরু হয়, তাহলে খারাপ কী! যদিও কাজটা কঠিন। কিন্তু আমাদের যে দল আছে, আমরা যেভাবে খেলছি, অনেক কিছু করা সম্ভব।

প্রশ্ন : চন্দিকা হাতুরাসিংহে তো খেলোয়াড়দের নিয়ে অনেক কথা বলে গেছেন। কোনো মন্তব্য?

সাকিব : না। এসব একেকজনের ব্যক্তিগত কথা। এটা নিয়ে মন্তব্য করা উচিত হবে না।

প্রশ্ন : মাহমুদ উল্লাহকেও পাচ্ছেন ডেপুটি হিসেবে। কেমন ভূমিকা আশা করছেন?

সাকিব : আমরা বেশ কয়েকজনই আছি, যারা দলের নেতা। এবং যেকোনো সিদ্ধান্তই আমরা একসঙ্গে মিলেই নিই। কেউ অধিনায়ক থাক বা না থাক, সেটা ব্যাপার নয় যখন আমরা মাঠে খেলতে নামি। সবার সাহায্যই দরকার হবে। আর রিয়াদ ভাই তো কয়েক বছর ধরেই বিপিএলে ভালো অধিনায়কত্ব করছেন। নেতৃত্বগুণ উনার ভেতর অনেক আগে থেকেই আছে। আমার কাছে মনে হয়, আমার জন্য কাজটি সহজ হবে।

প্রশ্ন : আগেরবার অধিনায়ক থাকার সময় দলে খুব বেশি পারফরমার ছিল না। এখন অনেক। এতে নিশ্চয়ই কাজ সহজ হবে?

সাকিব : অবশ্যই কাজটা সহজ হবে। এখন বেশির ভাগ ক্রিকেটারই প্রায় সব সময় পারফরম করছে। ক্রিকেটাররা যখন পারফরম করে, অধিনায়কের ওরকম কোনো কাজই থাকবে না। আশা করি সবাই মিলে ভালো করবে। সবাই মিলে ভালো করলেই দল ভালো করবে।

প্রশ্ন : এবার নেতৃত্ব পাওয়াটা প্রত্যাশিত ছিল কি না?

সাকিব : আমি কোনো কিছু প্রত্যাশা করি না। কিছু ছেড়েও দিই না। এলে ভালো, না এলে ঠিক আছে।

প্রশ্ন : আপনার কাছে জাতীয় দলের নেতৃত্ব কতটা উপভোগ্য?

সাকিব : উপভোগের চেয়ে বেশি আমার কাছে মনে হয় এটা দায়িত্ব। অবশ্যই চেষ্টা থাকবে সেরাভাবে যেন দায়িত্বটি পালন করতে পারি।



মন্তব্য