kalerkantho


রিয়ালের জয়েও মিশে উৎকণ্ঠা

৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



রিয়ালের জয়েও মিশে উৎকণ্ঠা

আত্মবিশ্বাস! ম্যাচটি থেকে এর বাইরে আর কিছুই পাওয়ার ছিল না রিয়াল মাদ্রিদের। চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্ব পেরিয়ে নকআউট পর্ব নিশ্চিত হয়েছিল আগে।

এটিও নিশ্চিত ছিল যে টটেনহাম হটস্পারের পেছনে থেকে গ্রুপ রানার্স-আপ হচ্ছে তারা। পরশু বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে ম্যাচে তাই ওই আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর মিশন ছিল বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের।

সেই অভিযান কতটা সফল, বলা মুশকিল। যদিও বরুশিয়াকে ৩-২ গোলে হারিয়েছে রিয়াল। কিন্তু জিনেদিন জিদানের শিষ্যদের দেখা যায়নি চেনা ছন্দে। কষ্টার্জিত জয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্ব শেষ করেছে তারা। ১৩ পয়েন্ট নিয়ে ‘এফ’ গ্রুপের রানার্স-আপ হিসেবে। নকআউট পর্বে তাই প্যারিস সেন্ত জার্মেই, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কিংবা ম্যানচেস্টার সিটির মতো গ্রুপ চ্যাম্পিয়নদের প্রতিপক্ষ হিসেবে পেতে পারে রিয়াল।

আগেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়নশিপ নিশ্চিত করা টটেনহাম পরশু ৩-০ গোলের স্বচ্ছন্দ জয় পেয়েছে অ্যাপোয়েল নিকোশিয়ার বিপক্ষে।

১৬ পয়েন্ট ইংল্যান্ডের ক্লাবটির। অবশ্য পরশু হেরে গেলেও রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে মুখোমুখি লড়াইয়ের রেকর্ডে গ্রুপ চ্যাম্পিয়নই হতো তারা। এর বাইরে ‘এফ’ গ্রুপে মৌসুমের সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে প্রথম হারের তেতো স্বাদ পেয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। তবু ১৫ পয়েন্টে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন তারা। ১২ পয়েন্টের শাখতার নকআউট পর্বে সিটিজেনদের সঙ্গী। ‘ই’ গ্রুপে স্পার্তাক মস্কোর বিপক্ষে ৭-০ ব্যবধানের বিস্ফোরক জয় পেয়েছে লিভারপুল। ফিলিপ্পে কৌতিনহোর হ্যাটট্রিক, সাদিও মানের জোড়া গোল এবং রবের্তো ফিরমিনো, মোহামেদ সালাহর লক্ষ্যভেদে পাওয়া এই জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তারা। মারিবোরের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করা সেভিয়া ৯ পয়েন্ট নিয়ে রানার্স-আপ। আর ‘জি’ গ্রুপে আরবি লিগজিগকে ২-১ গোলে হারানো বেসিকতাস সবার ওপরে; ১৪ পয়েন্ট নিয়ে। গতবারের সেমিফাইনালিস্ট মোনাকোকে ৫-২ গোলে হারানো পোর্তো গ্রুপের রানার্স-আপ।

বার্নাব্যুর ম্যাচে রিয়ালের শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। অষ্টম মিনিটে বোরিয়া মায়োরালের গোলে এগিয়ে যায় তারা। যে গোলের বিল্ডআপে বড় ভূমিকা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর। মিনিট চারেক পর নিজেই স্কোরশিটে নাম তোলেন এই পর্তুগিজ। মাতেও কোভাসিচের কাছ থেকে বল পেয়ে বক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত এক দূরপাল্লার শটে করেন গোল। চ্যাম্পিয়নস লিগের এক মৌসুমের গ্রুপ পর্বের সব ম্যাচে গোল করার রেকর্ডও হয়ে যায় তাতে। ২-০ গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর এলোমেলো হয়ে যায় রিয়াল। ইনজুরির কারণে সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানের বেরিয়ে যাওয়ার তাতে বড় ভূমিকা। বিরতির ঠিক আগে ও পরে পিয়েরে-এমেরিক অবামেয়াংয়ের গোলে সমতায় ফেরে বরুশিয়া। অবশেষে ৮১ মিনিটে লুকাস ভাসকেসের গোলে জয়ে খেলা শেষ করতে পারে রিয়াল।

এমন পারফরম্যান্স সমর্থকদের আশ্বস্ত করতে পারেনি, তবে কোচ জিদান আস্থা রাখছেন দলের ওপর, ‘আমি নিশ্চিত যে চ্যাম্পিয়নস লিগের এই বিরতির পর ফেব্রুয়ারির মধ্যে আমাদের সব কিছু ঠিকঠাক হয়ে যাবে। এখন আমরা সোমবারের নকআউট পর্বের ড্রয়ের দিকে তাকিয়ে আছি। জানি সেখানে কঠিন এক প্রতিপক্ষই হবে আমাদের। তবে কার বিপক্ষে খেলব, তা নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নেই। কারণ আমাদের এমন কঠিন সময় ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত থাকবে না। ’ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চ্যাম্পিয়নস লিগের বিরতি। এই প্রতিযোগিতা নিয়ে ভেবে তাই এখন সময় নষ্ট করতে চান না রিয়াল কোচ, ‘টানা তৃতীয় শিরোপা জয় এখনো অনেক দূরের ব্যাপার। সত্যি বলতে কী, আমি তা নিয়ে এখনো ভাবছি না। এখন মনোযোগ দেব লা লিগা এবং ক্লাব বিশ্বকাপের দিকে। আবার চ্যাম্পিয়নস লিগ শুরুর আগে অনেক সময় বাকি। ’ গ্রুপের অন্য ম্যাচে ফের্নান্দো ইয়েরেন্তে, হং-মিন সন ও জর্জেস এনকুদোর গোলে ৩-০ ব্যবধানে অ্যাপোয়েলকে হারিয়েছে টটেনহাম।

পেপ গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটি এ মৌসুমে এগোচ্ছে অপ্রতিরোধ্য গতিতে। ইংলিশ লিগের শীর্ষে তারা; চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বের শীর্ষস্থানও নিশ্চিত করেছে আগে। যদিও পরশু শাখতার দোনেতস্কের কাছে ১-২ গোলে হেরে মৌসুমে প্রথম পরাজয়ের দেখা মিলেছে। বের্নার্দ ও ইসমাইলির গোলে পিছিয়ে পড়ার পর শেষ সময়ে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান কমান সের্হিয়ো আগুয়েরো। এই হারে মুষড়ে না পড়ে ইতিবাচক দিকটাই দেখছেন গার্দিওলা, ‘হারলে কষ্ট তো লাগেই। তবে এখন এত বেশি ম্যাচ খেলা হয় যে, সবগুলোতে জেতা সম্ভব না। এই হারটি হয়তো প্রয়োজন ছিল। তাতে আমরা সামনের ম্যাচগুলোতে আরো বেশি মনোযোগী হতে পারব। ’ নকআউট পর্ব নিয়ে আগাম ভাবতে রাজি নন তিনি, ‘ড্রয়ের আগে অনেক ধরনের কথাবার্তা হয়। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ওই সময়, ম্যাচের দিন দল কী অবস্থায় থাকে। এখনকার দুর্দান্ত এক দলও ফেব্রুয়ারিতে বিধ্বস্ত দলে পরিণত হতে পারে। হতে পারে উল্টোটাও। নকআউট পর্বের প্রতিপক্ষ কঠিন হবে। তবে আমরা জয়ের জন্য চেষ্টা করব। ’ শাখতারের কোচ পাওলো ফনসেকা আগেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, দল নকআউট পর্বে উঠলে ‘জরো’র মুখোশ পরবেন। ওই মুখোশ পরেই তিনি আসেন পরশুর সংবাদ সম্মেলনে। গ্রুপের আরেক ম্যাচে নাপোলি ১-২ গোলে হেরে যায় ফেনুর্দের কাছে। এএফপি, মার্ক


মন্তব্য