kalerkantho


হাতুরাসিংহে নিয়ে বোর্ড সভাপতির উল্টো সুর

২১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



হাতুরাসিংহে নিয়ে বোর্ড সভাপতির উল্টো সুর

ক্রীড়া প্রতিবেদক : চন্দিকা হাতুরাসিংহের পদত্যাগের খবর নিশ্চিত করার দিনই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান বলেছিলেন, ‘এতে ক্রিকেটারদের অনেকেও খুশি হবে। ’ যা দীর্ঘদিন ধরে কোচের সঙ্গে সিনিয়র ক্রিকেটারদের সম্পর্ক নিয়ে বাতাসে উড়ে বেড়ানো নানা খবরকে দিয়েছিল সত্যতার ভিতও।

যদিও দলের অন্যতম সিনিয়র ক্রিকেটার মাহমুদ উল্লাহ সে রকম কিছুর কথা উড়িয়েই দিলেন। গতকাল যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংস্থা ইউএসএআইডির সঙ্গে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে সম্পর্ক পাকাপোক্ত করার অনুষ্ঠানে এই অলরাউন্ডার বললেন, ‘সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে ওনার (হাতুরাসিংহে) সম্পর্ক ভালো ছিল না—এই ধারণার সঙ্গে আমি মোটেও একমত নই। ওনার সঙ্গে সম্পর্ক সব সময়ই ভালো ছিল। ’

আশ্চর্য ব্যাপার হলো সকালে বলা মাহমুদ উল্লাহর বক্তব্য বিকেলে নাজমুলের সামনে তোলা হলে তিনি দায়টা মিডিয়ার ওপরই চাপাতে চাইলেন, ‘সমস্যার কথা তো মিডিয়াতেই বেশি আসত। আমাকে জিজ্ঞেস করলে বলব, গত কয়েক বছরে আমি কোনো সমস্যাই দেখিনি। ’ তবে টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের কিছু কথায় হাতুরাসিংহে মনঃক্ষুণ্ন হয়ে থাকতে পারেন বলেও মনে করেন বিসিবি সভাপতি, ‘একটা ব্যাপার ঘটে থাকতে পারে। এর আগেও মুশফিক কিছু কথা বলেছে তাঁকে নিয়ে। এই সিরিজেও (দক্ষিণ আফ্রিকা সফর) বলেছে দুবার। ’

যতবারই বলে থাকুন না কেন, এখন হাতুরাসিংহের পদত্যাগের কারণ জানা ছাড়া তাঁর জন্য আর কোনো অপেক্ষা নেই বিসিবির।

এই শ্রীলঙ্কান কোচ ঢাকায় আসবেন-আসছেন করতে করতে অপেক্ষা তো আর কম হলো না। নাজমুলের ভাষ্য, ‘পদত্যাগের কারণ পরিষ্কারভাবে জানার জন্যই আমরা তাঁর আসার অপেক্ষা করছিলাম। এর মধ্যেই তাঁর এসে যাওয়ার কথা ছিল। আমাদের প্রধান নির্বাহীর সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন কয়েক দিন পরে আসবেন। ’

আসার পরে যে তাঁকে রাখার চেষ্টা হবে না, সেটিও বললেন বিসিবি সভাপতি, ‘আমি আগেও বলেছি, কেউ যদি থাকতে না চায়, তাঁকে জোর করে রাখতে চাই না। তবে তাঁর কাছ থেকে কিছু জিনিস জানা দরকার। একজন পেশাদার কোচ হিসেবে তিনি সব সময় প্রতিটি সিরিজের রিপোর্ট দিয়ে এসেছেন। সেই রিপোর্টের পাশাপাশি আমরা তাঁর পদত্যাগের কারণও জানতে চাই। ’ সেই সঙ্গে নাজমুল আরো যোগ করেছেন, ‘হাতুরাসিংহের জন্য আমরা অপেক্ষা করছি না। অপেক্ষা করছি তাঁর রিপোর্টের জন্য। সেটি তিনি দুই-তিন সপ্তাহের মধ্যে দেবেন বলেছেন। ’

অপেক্ষা যেহেতু নেই, তাই শুরু হয়ে গেছে নতুন বিদেশি কোচ খোঁজার প্রক্রিয়াও। তবে সম্ভাব্য কোচের তালিকায় কারা আছেন, সেটি বললেন না বিসিবি সভাপতি, ‘আমাদের প্রধান নির্বাহী যোগাযোগ করছেন। অনেকের সঙ্গেই কথা হচ্ছে আমাদের। অনেকে আবার নিজে থেকেও যোগাযোগ করছেন। তবে চূড়ান্ত পর্যায়ের কিছুই এখনো হয়নি। ’ আর নতুন বিদেশি কোচ নিয়োগ দেওয়াও সময়সাপেক্ষ। সে ক্ষেত্রে অন্তর্বর্তীকালীন কোচ দিয়েও কাজ চালিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনায় বিসিবির প্রথম পছন্দ খালেদ মাহমুদ, ‘পরবর্তী সিরিজ শুরু হওয়ার আগে যদি আমরা কোনো বাইরের কোচ না আনি বা চূড়ান্ত করতে না পারি, তাহলে অবশ্যই আমাদের স্থানীয় কেউ কোচ হবে। এখানে খালেদ মাহমুদ আছে, তাঁর সম্ভাবনাই সবচেয়ে বেশি। তাঁকেই দায়িত্ব দেওয়া হবে। ’


মন্তব্য