kalerkantho


ক্রোয়াটদের জয় আইরিশদের দুঃখ

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ক্রোয়াটদের জয় আইরিশদের দুঃখ

প্লে অফে পড়ে ক্রোয়েশিয়ার বিশ্বকাপ স্বপ্নটা যতটা দূরের মনে হচ্ছিল, প্রথম লেগ শেষে সেটি এখন ততটাই কাছে। নিজেদের মাঠে গ্রিসকে যে ৪-১ গোলে হারিয়েছে তারা।

গ্রিসে পরের লেগে মাঠে নামার আগে লুকা মডরিচের দল রাশিয়ার অর্ধেক পথ পেরিয়েই গেছে বলা যায়। ক্রোয়াটদের উৎসবের দিনে বেলফাস্টে দুঃখগাথা রচিত হয়েছে নর্দান আয়ারল্যান্ডের। সফরকারী সুইজারল্যান্ড এমন এক পেনাল্টির গোলে জিতেছে, আদৌ যে পেনাল্টি তাদের পাওয়ার কথা নয়।

উইন্ডসর পার্কে ম্যাচের ৫৮ মিনিটে জারদান শাকিরির শট লাগে বক্সের ভেতর লাফিয়ে ওঠা কোরি ইভানসের কাঁধে। শাকিরি ফিরতি বলের জন্য ছুটছিলেন আর ওদিকে কিনা রেফারি বাজিয়ে দিলেন পেনাল্টির বাঁশি, ইভানসকে হলুদ কার্ডও দেখানো হলো। স্পট কিক থেকে রিকার্দো রোদ্রিগেস এরপর গোল করে দলকে জিতিয়ে দেন। ২০১০ বিশ্বকাপের বাছাইয়ে বক্সের ভেতর থিয়েরি হেনরির পরিষ্কার হ্যান্ডবল রেফারির চোখ এড়িয়ে গিয়েছিল, সেই প্লে অফে ১-০ গোলের জয়ে আয়ারল্যান্ডকে ছিটকে ফেলে বিশ্বকাপে উঠে যায় ফ্রান্স। কোরে ইভানসের ভাই জনি ইভানসের চোখে এবারের ঘটনা অরি-কাণ্ডকেও ছাড়িয়ে গেছে। কোচ মাইকেল ওনেইল হতবাক রেফারির এমন সিদ্ধান্তে, ‘শুধু এ সিদ্ধান্তের কারণেই যদি আমাদের বিশ্বকাপ থেকে বঞ্চিত হতে হয়, তবে এর চেয়ে হতাশার আর কিছু থাকবে না।

এ মুহূর্তে আমি খুবই মর্মাহত, খেলোয়াড়রাও প্রচণ্ড রেগে আছে। ’

জাগরেবে গ্রিকরা অবশ্য দায় দিতে পারবে না অন্য কাউকে, নিজেদের ছাড়া। ৪-১ গোলের হারে দুটি গোলই যে তাদের উপহার দেওয়া। ম্যাচের ১৩ মিনিটেই পেনাল্টি থেকে লুকা মডরিচের গোলে পিছিয়ে পড়ার পুরো দায় গোলরক্ষক ওরেসতিস কারেনজিসের। ডিফেন্ডারের ব্যাক পাস আয়ত্তে নিতে গিয়ে বলে ঠিকঠাক পা ছোঁয়াতে পারেননি, সুযোগের অপেক্ষায় থাকা ক্রোয়াট ফরোয়ার্ড নিকোলা কালিনিচ যখন তা বের করে নিতে গেছে, তখনই আবার করেছেন ফাউল। ফলে পেনাল্টি এড়ানোর উপায় থাকে না, স্পট কিকে মডরিচও কারেনজিসকে কোনো সুযোগ দেননি। ম্যাচে আগাগোড়া ক্রোয়াটদেরই আধিপত্য ছিল। এগিয়ে যাওয়ার দ্বিতীয় গোল পেতেও তাদের দেরি হয়নি, ১৯ মিনিটে কালিনিচই ইভান স্ট্রিনিচের ক্রসে বুদ্ধিদীপ্ত এক ফ্লিকে করেছেন ২-০। গ্রিস এরপর ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েছিল অধিনায়ক সক্রেতিস পাপাসতাথোপোলোস কর্নার থেকে হেডে ব্যবধান কমালে। তবে ক্রোয়াটরা নাটাই হাতছাড়া করেনি। বিরতির আগেই তাদের দারুণ এক আক্রমণ পরিণতি পায় ইভান পারিসিচের হেডে করা গোলে। ৩-১-এ পিছিয়ে পড়ে দ্বিতীয়ার্ধে আরেকটা অ্যাওয়ে গোলের জন্য লড়ছিল গ্রিকরা; কিন্তু আরেকটা ভুলে উল্টো ম্যাচ থেকেই ছিটকে যেতে হয়েছে তাদের। ডিফেন্ডার আন্দ্রেয়া সামারিস বুক দিয়ে বল গোলরক্ষকের হাতে পাঠাতে গিয়ে তুলে দিয়েছেন প্রতিপক্ষ খেলোয়াড় সিম ভারসালজকোর পায়ে, সেই বল নিয়ে আন্দ্রে ক্রামারিক করেছেন ৪-১। পিরাইয়ুসের ফিরতি লেগ রবিবার। সক্রেতিস নিজেই মানছেন অসম্ভব সম্ভব করার জন্য এরপর মাঠে নামতে হবে তাঁদের, ‘এই ম্যাচের পর আমাদের ৯০ শতাংশ সম্ভাবনাই শেষ হয়ে গেছে বলতে হবে। ’ উল্টো দিকে ক্রোয়াটদের উচ্ছ্বাস ১৯৯৮ থেকে পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপে খেলার সম্ভাবনায়। মডরিচরা তবু সতর্ক অ্যাওয়ে ম্যাচটা নিয়ে, ‘আজ আমরা অসাধারণ খেলেছি। কিন্তু এখানেই সব কাজ শেষ হয়ে যায়নি। বলতে গেলে আরো অর্ধেক ম্যাচ বাকি, ভালোভাবে বিশ্রাম নিয়ে ওই ম্যাচেও আমাদের পুরো তৈরি হয়ে মাঠে নামতে হবে। ’

নর্দান আয়ারল্যান্ড কোচ ও নেইলেরও এখন তাকিয়ে দ্বিতীয় লেগের দিকে, ‘রেফারির ভুল সিদ্ধান্তে ম্যাচে হেরে খেলোয়াড়রা প্রচণ্ড রেগে আছে, এ জেদটাই আমাদের কাজে লাগাতে হবে বাসেলে দ্বিতীয় লেগে। ’ এএফপি


মন্তব্য