kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

বাংলাদেশের খেলায় সমন্বয় দেখছি না

১৭ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০



বাংলাদেশের খেলায় সমন্বয় দেখছি না

১৯৮৫-র এশিয়া কাপের সময় দারুণ ফর্মে ছিলেন; কিন্তু দুর্ভাগ্য জামাল হায়দারের ইনজুরির কারণে ওই আসরে খেলতে পারেননি তিনি। ৩২ বছর পর ঢাকায় ফেরা এবারের এশিয়া কাপেও দর্শক তিনি।

দর্শক হিসেবেই দারুণ একটি আসরের প্রত্যাশায় ছিলেন। কাল শেষ হওয়া গ্রুপ পর্বে সেই প্রত্যাশা কতটা পূরণ হলো, এ নিয়েই কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে কথা বলেছেন তিনি

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : গ্রুপ পর্ব শেষ হয়ে গেল আজ (কাল), টুর্নামেন্টটা কতটা উপভোগ করেছেন?

জামাল হায়দার : নাহ। প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে বলা যাবে না। বাংলাদেশ যদি আরো ভালো করত, তাহলেই সব কিছুকে হয়তো ভালো বলা যেত। বাংলাদেশের কাছে আমাদের কিন্তু আহামরি প্রত্যাশা কিছুই ছিল না। কিন্তু এই ৭-০ গোলের হারও আশা করিনি। দলটা অন্তত আরেকটু লড়াই করবে বলেই মনে করেছিলাম। তাতে দেখুন দর্শকরা শুরুতে মাঠমুখো হয়েও কিন্তু আবার পিছিয়ে গেছে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের টুর্নামেন্ট শেষ, এখন কী মনে হচ্ছে?

জামাল : না, তা নয়।

আমি এখনো মনে করি বাংলাদেশ দলের ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ আছে। ওই গ্রুপে চীনের খেলা তো দেখলাম। ওরাও তেমন কঠিন কোনো দল নয়। বাংলাদেশ নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে ওদের হারানো সম্ভব। আর এই ম্যাচটা জিতলে আমাদের সুযোগ থাকবে পঞ্চম স্থানের জন্য লড়াই করার। সেটা খারাপ অর্জন হবে না। চীনের বিপক্ষে জিতলে বাংলাদেশের সেই পঞ্চম স্থানের লড়াই দেখতে নিশ্চয়ই অনেক দর্শক মাঠে আসবে তখন।

প্রশ্ন : ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিশ্চয়ই প্রত্যাশা মেটায়নি?

জামাল : না, একটুও না। ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথের যে উত্তাপ, সেই আঁচই পাওয়া গেল না মাঠে। তবে ভারত বেশ ভালো হকি খেলেছে, ওরা খুব গতিময়, পাকিস্তানের তাতে তাল মেলাতে সমস্যা হয়েছে। তবে এখনো পাকিস্তানি খেলোয়াড়রা ব্যক্তিগত নৈপুণ্যে এগিয়ে। সেটা দিয়েই ওরা কিন্তু এই ম্যাচে গোলের সুযোগও তৈরি করেছিল। সুপার ফোরে আশা করি আরো ভালো ম্যাচ দেখব।

প্রশ্ন : আর অন্য দলগুলো?

জামাল : মালয়েশিয়ার কথা বলতেই হবে। ওরা কমপ্যাক্ট হকি খেলছে। একসঙ্গে ওপরে উঠছে, নামছে। উইথ দ্য বল ওদের মুভমেন্ট দেখার মতো। কাউন্টার অ্যাটাকে যে কারণে ওরা ভয়ংকর। বাংলাদেশ দলের ঘাটতিটা এ জায়গাতেই। ডিফেন্স, মিডফিল্ড, ফরোয়ার্ড লাইনের মধ্যে সমন্বয়টা কম। মিডফিল্ডকে নিচে নেমে ডিফেন্সকে সাহায্য করতে হয়, ফরোয়ার্ড লাইনকে মাঝমাঠে নেমে বল তৈরি করতে হয়। আধুনিক হকিতে এটাই নিয়ম। কিন্তু বাংলাদেশ সেভাবে খেলতে পারছে না। ফলে ডিফেন্সে অতিরিক্ত চাপ পড়ে যাচ্ছে।

প্রশ্ন : মালয়েশিয়ার পারফরম্যান্সে ওদেরকেই কি ফাইনালিস্ট করতে হচ্ছে?

জামাল : হতে পারে, পাকিস্তানকে পেছনে ফেলতে পারে। তবে ভারত ফেভারিট।


মন্তব্য