kalerkantho


বিচলিত নন বিসিবি সভাপতি

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



বিচলিত নন বিসিবি সভাপতি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী এখনো নীরব। তবে পেছনে থেকে ক্রিকেটবিরোধী কর্মকাণ্ডে তিনি ঠিকই সরব আছেন বলে কিছুদিন আগে অভিযোগ করেছেন বর্তমান সভাপতি নাজমুল হাসান।

অবশ্য তাঁদের তর্কযুদ্ধ নতুন নয়। বহুদিন থেকে পাল্টাপাল্টি অবস্থান তাঁদের। অথচ একই রাজনৈতিক দল ও সংসদের সদস্য তাঁরা দুজন। তাই এ প্রশ্নও উঠল যে আদালতের বাইরে থেকেও তো তাঁরা আলোচনার মাধ্যমে কোনো সমাধানে আসতে পারেন কি না?

কিন্তু নাজমুল সে রকম কিছুর কোনো সুযোগই দেখেন না, ‘উনি (সাবের) তো আমাকে চিঠি দিয়ে বলেছেন এজিএম-ইজিএম বন্ধ করে দিতে। আদালত বলেছেন করতে বাধা নেই। এখন কি আমি তাঁর কথায় বন্ধ করে দেব? আমার চোখে হাতে গোনা সাতজন মানুষের চোখে বাংলাদেশ ক্রিকেটে খারাপ ছাড়া ভালো কিছু হয় না। তাঁরা কিন্তু কোনো সাফল্যেই এখন পর্যন্ত অভিনন্দন জানাননি। যেখানে সারা বাংলাদেশের মানুষ ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। তার পরও তাঁরা কোনো সাফল্য দেখেন না।

আমরা যেটাকে সাফল্য ভাবি, তাঁরা সেটাকে ভাবেন ব্যর্থতা। তাঁদের সঙ্গে কী বোঝাপড়া করব?’

বোঝাপড়া নেই বলেই বহু বছর ধরে আদালতে ঝুলে আছে ক্রিকেট। ঝুলে থাকবেও। কারণ গত ১৮ সেপ্টেম্বর সাবেক পরিচালক স্থপতি মোবাশ্বের হোসেনের করা রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুনানির পর বিসিবির বর্তমান কমিটিকে তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখা থেকে বিরত থাকতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে আদালত গতকাল রুল জারি করেছেন। চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দিতে বলা হলেও আগামী ২ অক্টোবর বিসিবি এজিএম এবং ইজিএম আয়োজনেও বাদ সাধেননি আদালত। তাই নিজেদের কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়াতেই অবিচল বিসিবির বর্তমান সভাপতি। গতকাল দুপুরে ধানমণ্ডিতে নিজের কর্মস্থল বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসে বিসিবির পরিচালকদের সঙ্গে সভার পর তিনি বলেছেন, ‘আমরা তো আমাদের কার্যক্রম চালিয়েই যাচ্ছি। আমি আগেই বলেছিলাম যে আমরা আমাদের কাজ চালিয়ে যাব। এরপর ওনারা রিট করেছেন, শুনানিও হয়েছে। যতটুকু জেনেছি, আমাদের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে কোনো বাধা নেই। বাধা নেই আমাদের ঘোষিত তারিখে এজিএম এবং ইজিএম করাতেও। এখন পর্যন্ত আমাদের বিচলিত হওয়ার মতো কোনো কারণ তো আমি দেখি না। ’


মন্তব্য