kalerkantho


উল্টো নিজের মাঠেই হারল রিয়াল

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



উল্টো নিজের মাঠেই হারল রিয়াল

কী হতে কী হলো! কোথায় ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো তেড়েফুঁড়ে লিওনেল মেসির নেওয়া ৯ গোলের লিড এক ধাক্কায় কমিয়ে আনবেন অনেকখানি, কোথায় গোলের মালায় আর একটি ম্যাচ যোগ করে পেলের সান্তোসকেও ছাড়িয়ে যাবে রিয়াল মাদ্রিদ। তার কিছুই হলো না।

হলো তো নাই-ই, সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ম্যাচটা তারা হেরেই গেলই গেল ছোট দল রিয়াল বেতিসের কাছে। লিগে এর আগেও দু’বার পয়েন্ট হারিয়েছে রিয়াল। এদিনও গোলশূন্য সমতায় শেষ হচ্ছিল ম্যাচটি। পাঁচ মিনিট অতিরিক্ত সময়ের চতুর্থ মিনিটে গোল করে তাতে জয়তিলক এঁকে দিয়েছেন বেতিস স্ট্রাইকার আন্তোনিও সানাব্রিয়া, গত ১৯ বছরের মধ্যে বার্নাব্যুতে যা তাদের প্রথম জয়।

বেতিস গোলরক্ষক আন্তোনিও আদান ম্যাচের আগে দুশ্চিন্তায় ছিলেন নিষেধাজ্ঞায় লিগের প্রথম চার ম্যাচ খেলতে না পারা রোনালদোর গোলক্ষুধা নিয়ে। কিন্তু মাঠে দেখা গেল রিয়াল ফরোয়ার্ডদের সামনে তিনিই দুর্ভেদ্য প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়ে। উল্টোদিকে রোনালদো ছিলেন রিয়ালের হতাশার প্রতিচ্ছবি। দ্বিতীয়ার্ধে গ্যারেথ বেলের কাটব্যাকে পোস্ট ফাঁকা পেয়েও বক্সের ভেতর থেকে কিভাবে উড়িয়ে মারলেন সে এক বিস্ময়। ম্যাচের পুরোটা সময় সাদামাটা দেখানো বেলই বরং একটা টাচে গোলের খুব কাছাকাছি গিয়েছিলেন।

দানি কারভাহালের নিচু ক্রসে পোস্টের উল্টোমুখী হয়ে চতুর এক ফ্লিক করেছিলেন, কিন্তু আদান ছিলেন তৈরি। শেষ মুহূর্তে হাত বাড়িয়ে বলটা অন্তত সাইড পোস্টে ঠেলতে পেরেছেন তিনি। এর আগে ইসকো ও টনি ক্রুসকেও হতাশ করেছেন ইকের ক্যাসিয়াসকে দীর্ঘদিন অ্যাসিস্ট করা রিয়ালেরই সাবেক এই গোলরক্ষক। অন্যপ্রান্তে বেতিস অন্তত পুরো প্রথমার্ধ জুড়ে প্রত্যাশা ছাপিয়ে যাওয়া আক্রমণাত্মক ফুটবল উপহার দিয়েছেন। ম্যাচে গোলের প্রথম পরিষ্কার সুযোগটাও তৈরি করেছে তারা। পোস্টের মুখে পাস খেলে কেইলর নাভাসকে এগিয়ে আসতে বাধ্য করেছিলেন সানাব্রিয়া, তবে যে বলটি ঠেলেছিলেন শেষ মুহূর্তে গোললাইন থেকে তা ফিরিয়েছেন কারভাহাল। এরপর ফাবিয়ান রুইজের শটে অবশ্য দারুণ ফিস্ট করেছেন কোস্টারিকান গোলরক্ষক।

জিদান এদিন সম্ভাব্য সেরা একাদশটাই নামিয়েছিলেন। রোনালদোর সঙ্গে ক্রুস ইনজুরি কাটিয়ে ফিরেছিলেন, নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফিরেছেন মার্সেলো। ডিফেন্সে সের্হিয়ো রামোসের সঙ্গে রাফায়েল ভারানও ছিলেন। ক্রুস, কাসেমিরো, লুকা মডরিচের সঙ্গে ইসকোও ছিলেন মিডফিল্ডে। ওপরে রোনালদোর সঙ্গে বেল। কিন্তু বেতিসের বিপক্ষে এই দলটিই গোলের জন্য মাথা কুটে মরছিল। মডরিচ একটা কাউন্টার অ্যাটাকে গোলরক্ষককে একা পেয়েও মেরেছেন বাইরে, বক্সের ওপর থেকে দারুণ এক ভলি নিলেও সেটি ক্রসবার ছুঁইছুঁই করে বেরিয়ে গেছে। গোলের জন্য মরিয়া জিদান একটা সময় পাঁচজনকে খেলিয়েছেন ফরোয়ার্ড লাইনে। মডরিচকে তুলে নামিয়েছেন লুকাস ভাসকেসকে, তার আগে ইসকোর বদলে নেমেছেন মার্কো আসেনসিও, মার্সেলো চোট পেয়ে বেরিয়ে গেলে তাঁর জায়গায় আগের ম্যাচের গোলদাতা বোর্হা মায়োরালতেকেও সুযোগ দেওয়া হয়েছে রোনালদো ও বেলের পাশে। কিন্তু একে তো বেতিসের দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ডিফেন্স, তার পেছনে আবার আদানের বিশ্বস্ত হাত লস ব্লাংকোদের বারবার হতাশ করে গেছে। দ্বিতীয়ার্ধে কাউন্টার অ্যাটাকে গেছে বেতিস ফরোয়ার্ড লাইন। শেষ দিকে তাতেই দুইবার বল জড়িয়ে দিয়েছে তারা। প্রথমবার সানাব্রিয়ার শট পোস্টে ঢুকলেও অফসাইডের কারণে সেটি বাতিল হয়। কিন্তু খেলা শেষ হওয়ার মিনিটখানেক আগে আন্তোনিও বারাগানের ক্রসে তাঁর দেখেশুনে করা জোড়ালো হেডে নাভাসকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়িয়েছে। নতুন মৌসুমের মাস না ঘুরতেই তাই মুদ্রার উল্টো পিঠটা দেখে ফেলেছেন জিদান। লিগের মাত্র পাঁচ ম্যাচ যেতেই যে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার সঙ্গে এখন ৭ পয়েন্টের ব্যবধান। নিজেদের পারফরম্যান্সে জিদান হারটা যেমন মেনে নিয়েছেন, তেমন বাস্তবতাও মানছেন, তবে হাল ছাড়ছেন না তিনি, ‘গত মৌসুমে এমন অনেক ম্যাচ আমরা জিতে গেছি ভাগ্যগুণে। এবার আর তা হলো না। তবে লিগটা অনেক দীর্ঘ, আমাদের তাই শান্ত থাকতে হবে। ’

লিগ লড়াইয়ে থাকা অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ এদিন ২-১ গোলের জয় নিয়ে ফিরেছে অ্যাথলেতিক বিলবাওয়ের মাঠ থেকে। সিরি ‘এ’তে জুভেন্টাস মারিও মানজুকিচের একমাত্র গোলে হারিয়েছে ফিওরেন্তিনাকে। তবে লািসওকে ৪-১ গোলে হারিয়ে নাপোলি এখন গোলব্যবধানে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। ওদিকে বুন্দেসলিগায় হামবুর্গকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে বায়ার্নকে পেছনে ফেলে এখন শীর্ষে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। এএফপি


মন্তব্য