kalerkantho


সাবেক সভাপতিকে বর্তমান সভাপতির তোপ

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



সাবেক সভাপতিকে বর্তমান সভাপতির তোপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আদালতের রায় ঘোষণার পর থেকেই পাল্টাপাল্টি বিজয় ঘোষণা চলছে! নিজেদের বিজয়ী বলে দাবি করা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ইতিমধ্যেই এজিএম ও ইজিএমের তারিখ ঘোষণা করে আয়োজনের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত। অন্যদিকে রায়ে নিজের দাবি বৈধতা পেয়েছে বলে দাবি করা মামলার বাদী স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন এজিএম ও ইজিএম বন্ধে বিসিবিকে পাঠিয়েছেন আইনি নোটিশ।

একই অনুরোধ জানিয়ে বর্তমান বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানকে চিঠি পাঠিয়েছেন সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরীও। এসব নিয়ে গতকাল নাজমুল শুধু মুখই খুললেন না, সাবেরকে রীতিমতো তোপও দাগলেন। সাবেক সভাপতির ‘উদ্দেশ্য’ নিয়ে অনেক প্রশ্ন তোলার পর সংবাদ সম্মেলনের শেষে নির্দিষ্ট করে তাঁর কাছে জানতেই চাওয়া হলো যে সাবের চৌধুরীই পেছনে থেকে কলকাঠি নাড়ছেন কি না? নাজমুলের জবাবও একেবারে নির্দিষ্ট, ‘অবশ্যই। উনি ছাড়া আর কে আছেন? আমার তো জানা আছে। প্রথম থেকেই আমরা জানি। এসব উনিই করাচ্ছেন। ’ 

সাবের এবং মোবাশ্বেরের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলে নাজমুল বলেছেন, ‘ওনাদের উদ্দেশ্যটা কী? ওনারা ২০০৮-এর গঠনতন্ত্রকে বৈধ বলছেন এবং চাচ্ছেন সেটার আলোকে যেন নির্বাচনটা হয়। প্রথম কথা হচ্ছে ওনাদের দুজনের কেউই ২০০৮-এর কাউন্সিলর নন। ওই গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচন হলে ওনারা নির্বাচনেই আসতে পারবেন না।

’ এতে আইসিসির নির্দেশনা লঙ্ঘনের ঝুঁকিও আছে বলে দাবি করলেন বিসিবি সভাপতি, ‘২০০৮-এর গঠনতন্ত্র অনুমোদিত কিছু না। ওটা সরাসরি আইসিসির নির্দেশনা লঙ্ঘনও। এখন শ্রীলঙ্কার যে বোর্ড প্রেসিডেন্ট আছেন, তিনি কিন্তু পার্লামেন্টের ডেপুটি স্পিকার। ওনাকে পর্যন্ত চার মাস আইসিসির বোর্ড মিটিংয়ে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। তাঁদের টাকাপয়সা সব বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। পরে তাঁরা আইসিসির নির্দেশনা অনুযায়ী নির্বাচন করে নির্বাচিত হয়ে এসেছেন। ’ ২০১২-র গঠনতন্ত্র না মানলে কাউন্সিলর হয়েছিলেন কেন, সাবেরকে সে প্রশ্নও রেখেছেন নাজমুল, ‘সুপ্রিম কোর্ট থেকে আমাদের সরাসরি নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যে ২০১২-র সংশোধিত গঠনতন্ত্র অনুযায়ীই নির্বাচন হবে। এবং আমরা ওটার মাধ্যমেই নির্বাচন করেছি। সেটিতেও কিন্তু তাঁরা অংশ নেননি। কিন্তু অত্যন্ত লক্ষণীয় বিষয় হলো ওই গঠনতন্ত্রে কিন্তু সাবের চৌধুরী কাউন্সিলর হয়েছিলেন। উনি যদি গঠনতন্ত্রই না মানেন এবং বেআইনি মনে করেন, তাহলে কাউন্সিলর হয়েছিলেন কেন? নির্বাচন করবেন বলে বিরাট আলোচনাও উপস্থাপন করেছিলেন। শেষে গিয়ে বললেন, নির্বাচন করব না!’


মন্তব্য