kalerkantho


অ্যাশেজে ‘খাঁটি অস্ট্রেলিয়ান’

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



অ্যাশেজে ‘খাঁটি অস্ট্রেলিয়ান’

পিটার হ্যান্ডসকম্ব ইয়র্কশায়ারের হয়ে কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে গিয়ে আবেগাক্রান্ত। তাঁর বাবা-মায়ের জন্মস্থান যে ইংল্যান্ড! একা একা বেডফোর্ডশায়ারে ঘুরে ‘হ্যান্ডসকম্ব এন্ড’ নামে একটি জায়গাও খুঁজে পান তিনি।

বুঝতে পারেন নিজের শিকড়টা কোথায় পোঁতা। তবে আগামী অ্যাশেজের আগে এমন আবেগ মোটেও ভাসাচ্ছে না তাঁকে। বরং ইংলিশদের বিপক্ষে খাঁটি অস্ট্রেলিয়ান হিসেবেই ব্যাট ধরার ঘোষণা তাঁর, ‘আমার বাবা-মা ইংলিশ হতে পারে, তবে আমি নিখাদ অস্ট্রেলিয়ান। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে খেলার স্বপ্নই দেখেছি সব সময়। এই অ্যাশেজটা তাই ৫-০ ব্যবধানে জিততে পারলেই আমি সবচেয়ে খুশি হব। ’

গত নভেম্বরেই ব্যাগি গ্রিন ক্যাপটা উঠেছে হ্যান্ডসকম্বের মাথায়। আরেক নভেম্বরে যখন অ্যাশেজ শুরু হতে যাচ্ছে, তখন দলের অপরিহার্য সদস্য এই হ্যান্ডসকম্ব। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ হার নিশ্চিত হয়ে যাওয়ার পর তাঁর অভিষেকেই শেষ ম্যাচটি জেতে অস্ট্রেলিয়া। প্রথম ৮ টেস্টেই তাঁর দুই সেঞ্চুরি, প্রথম ৭ ইনিংসের প্রত্যেকটিতেই ৫০ পেরিয়েছেন।

সর্বশেষ বাংলাদেশের বিপক্ষেও চট্টগ্রামে খেলেছেন ৮২ রানের ইনিংস। আগামী অ্যাশেজেও নিশ্চয় ফর্মে থাকা হ্যান্ডকম্বকেই চায় অস্ট্রেলিয়া। তবে তাঁর জন্য ইংল্যান্ডে ফেরাটা নিশ্চিত আবেগের। এই মুহূর্তে দলের সঙ্গে আছেন ভারতে। তার আগে ইয়র্কশায়ারের হয়ে যখন খেলেছেন তখন সেই আবেগটা নিজেও টের পেয়েছেন, “বেডফোর্ডশায়ারের যেখানে ‘হ্যান্ডসকম্ব এন্ড’, ওখানে একটা গোরস্থান পেলাম। দেয়ালে দুটি হাত আর একটি চিরুনির ছবি আঁকা। দেখে আমার কেমন যেন অনুভূতি হচ্ছিল, মনে হচ্ছিল আমি আমার শিকড়ে ফিরেছি। ইংল্যান্ডে এই সময়টা সত্যি আমার ভালো কেটেছে। ”

বাবা-মায়ের সূত্রে খেলতে পারতেন ইংল্যান্ডের হয়েও। মেলবোর্নে ছোটবেলায় তো অস্ট্রেলিয়ান ফুটবলও খেলেননি, মায়ের আগ্রহে ‘সকার’টাই খেলেছেন। কিন্তু ক্রিকেটের বেলায় বেছে নিয়েছেন তিনি অস্ট্রেলিয়াকে, ‘মাঝে মাঝে মজা করে বলতাম দলে ডাক না পেলে ইংল্যান্ডে চলে যাব! কিন্তু সেটা শুধু মজা করার জন্যই। মনেপ্রাণে আমি অস্ট্রেলিয়ার হয়েই খেলতে চেয়েছি সব সময়। ’ মা-বাবার জন্মভূমির বিপক্ষে আবেগ একপাশে সরিয়ে রেখে অ্যাশেজের চ্যালেঞ্জটা নেওয়া তাঁর জন্য তাই কঠিনও না। এএফপি


মন্তব্য