kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

আমার জন্য শক্ত চ্যালেঞ্জ

২৩ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



আমার জন্য শক্ত চ্যালেঞ্জ

চার বছর আগে অ্যাশেজ সিরিজে তাঁর অভিষেক। ২ টেস্টে মাত্র ২ উইকেট নিয়ে বাদ পড়া অ্যাস্টন অ্যাগার অবশ্য অভিষেকেই ১১ নম্বরে নেমে ৯৮ রানের ইনিংস খেলে আলোচিত হয়েছিলেন।

এত বছর পর আবার টেস্ট দলে ফেরার ক্ষেত্রে বিবেচিত হয়েছে এ বাঁহাতি স্পিনারের ব্যাটিং সামর্থ্যও। ঢাকায় তাঁর টেস্ট ক্যারিয়ারের পুনর্জন্মের কিছুদিন আগে মুখোমুখি হলেন সংবাদমাধ্যমের

 

প্রশ্ন : টেস্ট বিবেচনায় ফিরতে পারাটা নিশ্চয়ই খুব আনন্দের?

অ্যাস্টন অ্যাগার : তা তো অবশ্যই। তবে আমার টেস্ট খেলার সুযোগ পাওয়াটা নির্ভর করছে উইকেট কেমন, তার ওপর। আমি অবশ্য সুযোগ পেলে নেমে পড়ার জন্য তৈরিই আছি। খুব ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি এবং সম্ভব সব কিছুই করেছি। সব কিছু ঠিকমতো হচ্ছেও। টেস্ট দলে থাকতে পারাটা সত্যিই খুব আনন্দের।

প্রশ্ন : এ সিরিজে বাংলাদেশের কাউকে টার্গেট করেছেন?

অ্যাগার : হুম, এরই মধ্যে কয়েকটি টিম মিটিং করে ফেলেছি আমরা। কোন কোন ক্ষেত্রে বাংলাদেশ আমাদের জন্য হুমকি হতে পারে, আলোচনা হয়েছে তা নিয়েই।

তবে আমাদের মনোযোগটা নিজেদের ওপরই বেশি। নিজেদের স্কিল নিয়ে ভাবছি। আলোচনা করেছি স্কিল দিয়ে কিভাবে ওদের হারানো যায়। ওদের সব খেলোয়াড়কে নিয়েই বিশ্লেষণ করা হয়ে গেছে আমাদের। কিন্তু মনোযোগটা নিজেদের ওপরই বেশি। যা আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি, সেগুলোই সঠিকভাবে করতে চাই।

প্রশ্ন : বাংলাদেশ দলে তো বেশ কয়েকজন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। এ ব্যাপারটি কিভাবে দেখছেন?

অ্যাগার : আমি যদি বোলিং করি, তাহলে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানরা ‘উইথ দ্য স্পিনে’ ব্যাট চালাবেই। বাঁহাতি স্পিনার হিসেবে আমার কাজ তাই কঠিনই। তার ওপর বাংলাদেশের বাঁহাতি ব্যাটসম্যানরা সাধারণত আক্রমণাত্মক ব্যাটিংই করে। আমার জন্য তাই বেশ শক্ত চ্যালেঞ্জই অপেক্ষা করে আছে। তবে ও রকম ব্যাটিংয়ে আবার উইকেট হারানোর ঝুঁকিও থাকে। কাজেই এ ব্যাপারটি কাজ করতে পারে আমাদের পক্ষেও।

প্রশ্ন : কোচ ড্যারেন লেহম্যান তো দুজন স্পিনার খেলাতে চান। তা আপনি কতটা আশাবাদী যে খেলবেন?

অ্যাগার : যদি তিনি বলে থাকেন যে দুজন স্পিনার খেলাতে চান, তাহলে তো আমি খুবই আশাবাদী। খেলার সম্ভাবনায় আমি ভালো জায়গায় আছিও। মিচেল সোয়েপসনও দারুণ বোলার, তবে সুযোগটা আমারই বেশি মনে হয়।

প্রশ্ন : আসন্ন সিরিজে স্পিনাররাই আধিপত্য করবে বলে মনে করেন কি?

অ্যাগার : এখানকার উইকেট স্পিন উপযোগী বলেই তো জানি। তবে আমাদের ফাস্ট বোলার জশ হ্যাজেলউড, প্যাট কামিন্স এবং জ্যাকসন বার্ডরা বল রিভার্স করাতেও জানে। কাজেই ওরাও নিঃসন্দেহে বড় ভূমিকা রাখবে। এখানে ভালো করতে দলগত প্রচেষ্টাও লাগব। তবে হ্যাঁ, আমার কোনো সন্দেহই নেই যে এখানে স্পিনাররাই মূল ভূমিকা রাখবে।


মন্তব্য