kalerkantho


বৃষ্টির শঙ্কায় ‘নতুন’ মাঠ

২৩ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



বৃষ্টির শঙ্কায় ‘নতুন’ মাঠ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : নতুন জুতা পরলে যেমন অনেক সময় পায়ে ফোসকা পড়ে, ঠিকই একই রকমের শঙ্কা এখন ‘নতুন’ মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়াম নিয়েও। নতুনই, কারণ এর উপরিভাগের ৭ ইঞ্চি অপসারণ করে বসানো হয়েছে একদম নতুন মাটি।

ঘাসও লাগানো হয়েছে নতুন। ২৭ আগস্ট থেকে শুরু হতে যাওয়া অস্ট্রেলিয়া সিরিজের প্রথম টেস্টও এখানেই। কিন্তু ম্যাচ শুরুর মাত্র চার দিন আগেও কেউ নিশ্চিত নন যে এ মাঠের আউটফিল্ড সত্যিই উপযুক্ত অবস্থায় আছে কি না!

এমনকি জাতীয় দলের ভেতরও ফিসফিসানি আছে তা নিয়ে। খোদ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) মাঠ কমিটির প্রধান হানিফ ভূঁইয়াও সংশয়মুক্ত হতে পারছেন না। অবশ্য তাঁর সংশয় সীমাবদ্ধ একটি জায়গায়ই। এ মাঠটি যে ‘ক্লাস টেস্ট’ না দিয়েই সরাসরি বসে যাচ্ছে মূল পরীক্ষায়, ‘দরকার ছিল নতুন মাঠে দুয়েকটি অনুশীলন ম্যাচ আয়োজনের। সে ক্ষেত্রে কোথাও কোনো সমস্যা থাকলে আমরা জানতে পারতাম। কিন্তু ম্যাচ হয়নি বলে আমরা বুঝতে পারছি না যে আউটফিল্ড কী রকম আচরণ করবে। ’

তাই বলে বিব্রতকর কোনো পরিস্থিতিতে পড়ার ঝুঁকি আছে বলেও মনে করছেন না তিনি, ‘বিসিবি কিন্তু অনেক বড় একটি কাজ করেছে।

ড্রেনেজ সিস্টেম আগের চেয়েও অনেক উন্নত হয়েছে। মাটি ওঠানোর পর আমরা অনেক পাইপ ফাটা পেয়েছি। মাটি ঢুকে পানি বেরোনোর পথও বন্ধ ছিল অনেক পাইপে। সেসব তুলে বসানো হয়েছে নতুন পাইপ। এখন বৃষ্টির পর আরো দ্রুত পানি বেরোবে। ’

তা না হয় বেরোল। কিন্তু নতুন মাটি যে আবার নরমও। বৃষ্টির পর মাটি নরম হওয়ার ঝুঁকিটা আরো বেশি বলে খেলোয়াড়দের আশঙ্কাও কম নয়। কারণ এতে করে যে ইনজুরিতে পড়ার ভয়ও বাড়ছে। যা নিয়ে জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের মধ্যেও আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিশেষ করে ফিল্ডিংয়ের সময় সমস্যাটা গুরুতর হয়ে উঠতে পারে বলে অনুমান তাঁদের। সে ক্ষেত্রে ডাইভ দেওয়াটাও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করছেন কেউ কেউ। পাশাপাশি নতুন ঘাসের ঘনত্ব নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন সংশ্লিষ্টদের কেউ কেউ। হানিফ অবশ্য বলে রাখলেন, ‘আমরা পাঁচ-ছয় মাস আগে কাজ শুরু করেছি। এক বছর নতুন ঘাসের পরিচর্যা করা গেলে ভালো হতো। কিন্তু আমরা অত সময় পাইনি। তবে এটা বলতে পারি, যত সময় যাবে, ঘাস আরো ভালো হবে। ’ মাটি উঠে যাওয়ার সমস্যারও সমাধান দেখাচ্ছেন মাঠ কমিটির প্রধান, ‘এটা ঠিক যে নতুন বলে মাটি একটু উঠে যায়। তবে ইনজুরির ঝুঁকি আছে বলে আমার মনে হয় না। মাঠ রোল করা সবে শুরু হয়েছে। আরো কয়েক দিন গেলে ঠিক হয়ে যাবে আশা করি। ’ ঠিক হতে পারে বৃষ্টি আর না হলে। আর আকাশ নিয়ম করে কাঁদতে থাকলে কিছু করারও নেই। তাই বৃষ্টিতে নতুন করে ঝামেলা বেঁধে যাওয়ার মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হানিফ এ-ও বললেন, ‘বৃষ্টি হলে আবার ঝামেলা। তার পরও বলে রাখি ভালো জিনিস আসছে। সে জন্য ছোটখাটো ত্রুটি-বিচ্যুতিও ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখতে হবে। ’ কারণ মাঠ ‘নতুন’ বলেই নতুন জুতা পরার বিপত্তির আশঙ্কা!


মন্তব্য