kalerkantho


বাংলাদেশের সমব্যথী অস্ট্রেলিয়া

২২ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



বাংলাদেশের সমব্যথী অস্ট্রেলিয়া

ক্রীড়া প্রতিবেদক : কঠোর পেশাদারির সুনাম রয়েছে অস্ট্রেলিয়ানদের। সঙ্গে ‘দুর্নাম’ কাঠখোট্টা হিসেবে।

দুয়ে মিলিয়ে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচটি বাতিল হওয়ায় তাদের ফুঁসে ওঠার আশঙ্কা অমূলক ছিল না। কিন্তু কী আশ্চর্য! ক্রিকেটীয় শিষ্টাচারে দিব্যি পরিস্থিতিটা মেনে নিলেন তাঁরা। শুধু তা-ই না, ক্রিকেট ছাড়িয়ে জীবনের ক্যানভাসে চোখ রেখে অস্ট্রেলিয়ার কোচ ড্যারেন লেহম্যান সমবেদনা জানালেন বৃষ্টিজর্জর বাঙালিদের প্রতি!

‘প্রস্তুতি ম্যাচটি যেন হয়, সে জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে বিসিবি। ঢাকার আশপাশের বেশ কিছু মাঠও আমরা দেখেছি। কিন্তু যে পরিমাণ বৃষ্টি হচ্ছে, তাতে বিসিবির কাজ কঠিন হয়ে গেছে। আর এই বৃষ্টির কারণে পুরো বাংলাদেশের অনেক মানুষই তো এখন ভুগছে। তাঁদের প্রতি আমরা সমব্যথী’—কাল দুপুরে মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলনকক্ষে বলে যান লেহম্যান। ঠিক আগের সময়টাতেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাঁর দলের অনুশীলন। কিন্তু গণমাধ্যমে বৃষ্টি-বন্যায় বাংলাদেশের মানুষের কষ্টের ছবিটা নিশ্চয়ই দেখে থাকবেন তিনি।

যে কারণে অস্ট্রেলীয় কোচের কণ্ঠে সেই সমবেদনা।

কিন্তু বল যখন মাঠে গড়াবে, সংবাদ সম্মেলনকক্ষের এই নরম সুর নিশ্চিতভাবে থাকবে না অস্ট্রেলিয়ানদের শরীরী ভাষায়। পেশাদারি পারফরম্যান্সে উড়িয়ে দিতে চাইবেন বাংলাদেশ। কিন্তু এখনকার বাংলাদেশকে উড়িয়ে দেওয়া কি ততটা সহজ? ঘরের মাটিতে সর্বশেষ টেস্টে তারা হারায় ইংল্যান্ডকে, বিদেশের মাটিতে সর্বশেষ টেস্টে শ্রীলঙ্কাকে। মুশফিকুর রহিমের দলের সামর্থ্যে তাই যথেষ্ট সমীহ লেহম্যানের, ‘ব্যাটিং অর্ডারের অনেক নিচ পর্যন্ত বাংলাদেশের দারুণ সামর্থ্যের ব্যাটসম্যান রয়েছেন। আর দেশের মাটিতে ওদের রেকর্ডও ভালো। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওরা ভালো করেছে। আসলে টপ অর্ডার কিভাবে ব্যাটিং করে, সেটি ওদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এ কারণে নতুন বলে আমাদের কার্যকর হতে হবে। পরবর্তীতে হয়তো উইকেটে স্পিন ধরবে, বল রিভার্স সুইং করবে। তবে আগেই বলেছি, বাংলাদেশের ব্যাটিং গভীরতা বেশ এবং দেশের মাটিতে ওরা ভালো দল। ’ গেল ফেব্রুয়ারি-মার্চে ভারতে টেস্ট সিরিজ খেলতে এসে যথেষ্ট লড়াই করে অস্ট্রেলিয়া। শেষ টেস্টটি খেলতে নামে সিরিজ জয়ের সম্ভাবনা নিয়ে। যদিও শেষ পর্যন্ত হেরে যায় ১-২ ব্যবধানে। এখন তাই বাংলাদেশে সিরিজ জয়ের লক্ষ্য ঠিক করছেন কোচ, ‘ভারতে আমরা লড়াই করেছি তবে শেষ পর্যন্ত হেরেছি সিরিজ। এখন আমাদের চ্যালেঞ্জ, দেশের বাইরে এখানে সিরিজ জেতা। ’

আইসিসি টেস্ট র্যাংকিং বিবেচনাতেও সেই সিরিজ জয় ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ তাদের জন্য। এমনিতেই চার নম্বরে নেমে গেছে, এখানে ৯ নম্বরে থাকা বাংলাদেশের বিপক্ষে জিততে না পারলে পিছিয়ে যাবে আরো। তবে মাঠে যখন নামবে, এসব চিন্তা নিশ্চিতভাবে একপাশে সরিয়ে রেখে জয়ের জন্যই ঝাঁপাবে অসিরা। সেই জয়ের ফর্মুলায় একাদশের সমন্বয়টাও মোটামুটিভাবে ঠিক হয়ে গেছে বলে জানান কোচ, ‘দল নিয়ে সিদ্ধান্ত নেব টেস্ট উইকেট দেখে এবং কন্ডিশন বিবেচনায় নিয়ে। তবে খুব সম্ভবত দুই স্পিনার নিয়ে খেলব আমরা। ’ সেই দুজনের মধ্যে মধ্যে অফ স্পিনার নাথান লিয়নের খেলা নিশ্চিত। সঙ্গী হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে বাঁহাতি স্পিনার অ্যাস্টন অ্যাগার। তাঁর অলরাউন্ড সামর্থ্যের কারণেই অমনটা ভাবছেন বলে লেহম্যানের কথায় ইঙ্গিত, ‘অ্যাস্টনের লেন্থ এখন অনেক ভালো হয়েছে। শেফিল্ড শিল্ডে দারুণ এক মৌসুম কাটিয়েছে ও। তরুণ সোয়েপসনও লেগ স্পিনার হিসেবে ভালো সম্ভাবনা দেখাচ্ছে। স্পিনারদের মধ্যে তাই ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা রয়েছে। কিন্তু অ্যাস্টনের বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাটিংটাও খুব ভালো আর ও দুর্দান্ত ফিল্ডার। ওকে নিয়ে আমরা তাই খুবই সন্তুষ্ট। ’

একাদশ নির্বাচন, জয়-পরাজয় পরের ব্যাপার—মিরপুর টেস্টের আবহে চোখ-রাঙানি এখন আবহাওয়ার। যে কারণে অনুশীলন ম্যাচ পণ্ড হয়ে গেছে, কাল দুই দলের অনুশীলনও খণ্ডিত। উইকেট নিয়ে বেশি চিন্তা না করে লেহম্যানের বেশি দুশ্চিন্তা ওই বৃষ্টি নিয়েই, ‘মিরপুরের উইকেট আমি এখনো দেখিনি। তবে প্রথাগতভাবে এখানে ভালো উইকেট হয়। আউটফিল্ডও ভালো থাকবে বলে মনে হয়। আর আশা করছি, বৃষ্টিটা যেন দূরে থাকে। মাঠ তৈরি করার জন্য সবাই খুব পরিশ্রম করছে। এর চেয়ে বেশি আর কী চাওয়ার আছে? আমরা চাই যেন বৃষ্টি না হয় এবং দুর্দান্ত এক টেস্ট ম্যাচ দর্শকরা দেখতে পারেন। ’ উইকেটের কারণে সেই ম্যাচটির দৈর্ঘ্য কমে গেলেও আপত্তি নেই অস্ট্রেলিয়ান কোচের, ‘ভারতে তো আমরা তিন দিনের টেস্ট খেলেছি। কখনো কখনো এমন হয় যে, ম্যাচের দৈর্ঘ্য যত কম, টেস্টের রোমাঞ্চ তত বেশি। আমরা অমন কিছুর জন্যও প্রস্তুত আছি। তবে প্রথাগতভাবে মিরপুরে ভালো উইকেটই হয়। ’

ভালো উইকেটে ভালো টেস্ট—বৃষ্টিভেজা দিনে কাল লেহম্যানের কণ্ঠে অমন প্রত্যাশারই প্রতিধ্বনি। তাতে উইকেট-আবহাওয়ার অনুমোদন থাকলে হয়!


মন্তব্য