kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

গোল করার আনন্দটা আগের মতোই আছে

১৯ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



গোল করার আনন্দটা আগের মতোই আছে

বয়সকে হার মানিয়ে ২০০৩ সালের সাফজয়ী তারকা রোকনুজ্জামান কাঞ্চন এখন ফুটবলে। এবার বসুন্ধরা কিংসের হয়ে খেলছেন পেশাদার লিগের দ্বিতীয় স্তর বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগে।

শেষ ম্যাচে গোল করে দলকে জিতিয়েছেনও এ স্ট্রাইকার। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে নিজের এই খেলা নিয়েই কথা বলেছেন তিনি

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : দীর্ঘদিন শীর্ষ পর্যায়ে খেলার পর এখন পেশাদার লিগের দ্বিতীয় স্তরে খেলাটা কতটা উপভোগ করছেন?

রোকনুজ্জামান কাঞ্চন : আমি এটাকে দেখি পেশাদারি দৃষ্টিকোণ থেকে। মাঠে আছি, এটাই আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। জানেন তো, মুক্তিযোদ্ধায় আমি দীর্ঘদিন খেলেছি, ওখানে আমার বেশ কিছু টাকা পাওনা আছে। সেটা না পেয়ে রাগ করে একটি মৌসুম খেলিনি। বসে আছি দেখে মানিক ভাই (শফিকুল ইসলাম মানিক) একটা সময়ে এসে বললেন ‘বসুন্ধরার এই দলটাকে তুলে দাও’, তাঁর আগ্রহেই আমি এই দলে। যোগ দিয়ে বুঝেছি তাদের লক্ষ্য অনেক বড়। একটা অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা গ্রুপের কর্মকর্তারা জোর দিয়ে বলেছেন তাঁরা এই দলটাকে দেশের এক নম্বর করতে চান। আমিও এখন সেই স্বপ্ন দেখি।

প্রশ্ন : তার মানে বসুন্ধরা কিংসকে নিয়েই আপনার প্রিমিয়ারে ফেরার ইচ্ছা?

কাঞ্চন : যদি সুস্থ থাকি, ফিটনেস থাকে, ২০২০ পর্যন্ত খেলে যাওয়ার লক্ষ্য আছে আমার। বসুন্ধরা কিংসকে শুধু প্রিমিয়ারে তোলাই না, আরো কিছু করতে চাই আমরা। দেখুন, আবাহনী, মোহামেডানের সেই আধিপত্য কিন্তু আর নেই। আগে খেলোয়াড়দের মধ্যে ব্যবধান ছিল ১৫-২০। সেটা এখন উনিশ-বিশ। রহমতগঞ্জ, আরামবাগের বিপক্ষে জিততেও ঘাম ঝরাতে হয় চ্যাম্পিয়নদের। ক্লাবের দিক থেকে উৎসাহ থাকলে শীর্ষ পর্যায়ে তাই ভালো করা অসম্ভব না।

প্রশ্ন : গত ম্যাচে গোল করে জেতালেন দলকে, জয়সূচক এই গোল করার আনন্দটা কি আগের মতোই আছে?

কাঞ্চন : এই আনন্দের তুলনা হয় না, যে দলেই খেলেন আপনি। আবাহনী, মোহামেডানে থাকতেও অনেক ম্যাচ আমি জিতিয়েছি। কাল (পরশু) নোফেল স্পোর্টিংয়ের বিপক্ষে একমাত্র গোল করে যে বসুন্ধরাকে জেতালাম, এই আনন্দও কম না। গোল করার আনন্দটা আমার আগের মতোই আছে।

প্রশ্ন : গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন হয়েও প্রিমিয়ারে যায়নি ফকিরেরপুল, এবার প্রিমিয়ার থেকে নেমেছে দুটি দল—সব মিলিয়ে আসরটা তো বেশ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণই হচ্ছে মনে হয়?

কাঞ্চন : হ্যাঁ, তা তো অবশ্যই। ফেনী সকার ও উত্তর বারিধারা প্রিমিয়ারের খেলোয়াড়দেরই ধরে রেখেছে। নতুন দল নোফেল স্পোর্টিংও বেশ শক্তিশালী। আমরাই কাল তৃতীয় ম্যাচে এসে প্রথম জয় পেলাম। অর্থাৎ সহজ কোনো ম্যাচ নেই। সব ম্যাচের আগেই আমাদের ওপর চাপ থাকছে।

প্রশ্ন : তো বসুন্ধরা কিংস কতটা ফেভারিট?

কাঞ্চন : আমরা তো সামর্থ্যের পুরোটা দিয়েই চেষ্টা করব।


মন্তব্য