kalerkantho


সমীহ করেই ঢাকার ফ্লাইটে স্মিথরা

১৯ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



সমীহ করেই ঢাকার ফ্লাইটে স্মিথরা

বিমানে : বোর্ডের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারদের দ্বন্দ্বে ভেস্তে যেতে বসেছিল অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর। নানা নাটকীয়তার পর শেষ পর্যন্ত গতকাল ঢাকার বিমানে চাপেন স্টিভেন স্মিথরা। বিমানে স্মিথ, ওয়ার্নার, খাজাদের এই হাসিই বলছে ক্রিকেটে ফিরতে পেরে কতটা খুশি তাঁরা। ছবি-টুইটার

বাংলাদেশকে টেস্টে এক দিনেই হারিয়ে দেওয়ার ঔদ্ধত্বপূর্ণ মন্তব্য করা ডেভিড হুকস বেঁচে নেই। তবে জেসন গিলেস্পি আছেন।

তাঁর সতীর্থরা সেসময় টেস্ট দল হিসেবে বাংলাদেশকে কতটা সম্মান করত, সেটা গিলেস্পির ভালো করেই জানা! জীবনের প্রথম টেস্ট ডাবল সেঞ্চুরি করার পর যে আর ডাকই পাননি এই পেসার। তবে এই বাংলাদেশ যে আগের সেই জায়গায় নেই, ১১ বছরেরও বেশি সময় পর টেস্ট খেলতে আসার আগে সেই সাবধানবাণীটাই শুনিয়ে এসেছেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। ইংল্যান্ডকে যারা হারিয়ে দিতে পারে টেস্টে, তাদের তো সমীহ না করে উপায় নেই!

গতকাল রাতেই ঢাকায় এসে পৌঁছেছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। দুই টেস্টের এই সিরিজ আদৌ মাঠে গড়াবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ ছিল অনেক। মূলত ২০১৫ সালে নিরাপত্তার কারণে বাতিল করা অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফরটা এবারও ভেস্তে যেতে পারত খেলোয়াড়দের পারিশ্রমিক জটিলতায়। তবে সেসব অনিশ্চয়তাকে দূর করে দিতেই চলে এসেছেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা, ঢাকা ও চট্টগ্রামে তাঁরা খেলবেন দুটি টেস্ট। ডারউইন থেকে বিমানে চড়ার আগে স্মিথ সতর্ক কণ্ঠেই বলেছেন, ‘নিজেদের কন্ডিশনে তারা (বাংলাদেশ) খুব ভালো দল, তারা আমাদের কড়া চ্যালেঞ্জের মুখেই ফেলবে। ’ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির পর প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটের বাইরে স্মিথ, মাঠে নামার ব্যগ্রতাও তাঁর কণ্ঠে স্পষ্ট, ‘সেখানে গিয়ে, সেখানকার কন্ডিশনে খেলাটা আমাদের জন্য দারুণ একটা ব্যাপার হবে। বোঝা যাবে ভারত সফর থেকে আমরা কতটা শিখেছি।

’ বাংলাদেশ সফর দিয়ে প্রত্যাবর্তন হচ্ছে উসমান খাজারও। সাত মাস ধরে টেস্ট না খেলা খাজা দল থেকে বাদ পড়েছিলেন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজে খারাপ করায়। দক্ষিণ আফ্রিকায় ‘এ’ দলের হয়ে সফরে যাওয়ার কথা ছিল পাকিস্তানে জন্ম নেওয়া এই ব্যাটসম্যানের, সেটা মাঠে না গড়ালেও বাংলাদেশ সফরে তাঁর একাদশে থাকার জোরালো ইঙ্গিত স্মিথের কণ্ঠে, ‘উসমান যদি খেলে তাহলে সে খুব সম্ভবত তিনে ব্যাট করবে আর আমি চারে নেমে আসব। ’

শুধু স্মিথই নন, আরেক সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার মাইক হাসিও মনে করছেন; খুবই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ, ‘খুব ভালো একটা সিরিজ হবে, অস্ট্রেলিয়ার জন্য আসলেই অনেক চ্যালেঞ্জিং। নিজেদের কন্ডিশনে বাংলাদেশ অনেক ভালো খেলে আর ইদানীং তারা অনেক উন্নতিও করেছে। ’ হাসি মনে করেন, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সাফল্যই মানের জোর বাড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশের, ‘প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জেতা সম্ভব, এই বিশ্বাসটুকু থাকলেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অর্ধেক ম্যাচ জেতা হয়ে যায়। তাদের (বাংলাদেশ) বিশ্বাসটা এখন তুঙ্গে, বিশ্বের সেরা অনেক দলকেই তারা চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে। ’ সেই চ্যালেঞ্জটা নিতেই এসেছে স্মিথের দল।

ঢাকার বিমানে ওঠার আগে, অস্ট্রেলিয়ার সাবেক ও বর্তমান সব ক্রিকেটারের উদ্দেশে একটা খোলা চিঠি লিখেছেন কোচ ড্যারেন লেহম্যান। ক্রিকেটারদের পাওনা আদায়ে ধর্মঘট, বোলারদের শারীরিক ধকল এসব নিয়ে গত কয়েক দিনে নানা কথাবার্তাই বলেছেন জেফ টমসন, জিওফ লসন, রডনি হগরা। সবাইকেই চিঠিতে জবাবটা দিয়েছেন লেহম্যান, ‘কেউ যদি মাঠে এসে আমাদের প্রস্তুতি দেখতে চান, তাঁদের স্বাগতম। কেউ যদি ড্রেসিংরুমে আসতে চান, কিছু জানাতে চান; দয়া করে আগে থেকে বলে রাখুন। আমরা সব ব্যবস্থা করে রাখব। আপনাদের সঙ্গে কথা বলতে আমাদের খুবই ভালো লাগবে। ’ বোঝাই যাচ্ছে, দূর থেকে বাক্যবাণ ছোড়ার অভ্যাসটা বন্ধ করতেই লেহম্যানের এই জবাব! একই সঙ্গে বর্তমান ক্রিকেটারদের তিনি লিখেছেন, ‘১২ মাস আগেও আমরা টেস্ট ও ওয়ানডেতে এক নম্বর দল ছিলাম। সেখানে আমাদের ফিরে যাওয়া তখনই সম্ভব যখন সবাই একযোগে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটের উন্নয়নের জন্য কাজ করবে। ’ বাংলাদেশ সফর, ভারতে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা সফর ও দেশে অ্যাশেজ; সামনে ব্যস্ত সূচি অস্ট্রেলিয়ার। সেটা মাথায় রেখেই নিজেদের প্রস্তুত করা ও শতভাগ নিংড়ে দেওয়ার আহ্বানই এই দলের সবার কানে পৌঁছে দিতে চাইছেন লেহম্যান। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া, এএফপি


মন্তব্য