kalerkantho


স্মিথের স্পিন ছকে ম্যাক্সওয়েল

১৬ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



স্মিথের স্পিন ছকে ম্যাক্সওয়েল

গত মার্চের ভারত সফরে দুই টেস্ট মিলিয়ে তিনি বোলিং করেছিলেন সাকল্যে ৬ ওভার। অস্ট্রেলিয়া দলে অফস্পিনার গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের গুরুত্ব কতখানি, তা ওই পরিসংখ্যানেই স্পষ্ট। অবশ্য এবার বাংলাদেশ সফরে আসার আগে পরিস্থিতি পাল্টে গেছে অনেক। দলের কাছে বিধ্বংসী এ ব্যাটসম্যান এবং ক্ষিপ্রগতির ফিল্ডারের বোলিংটাও বেশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। স্পিন বোলিংয়ের বাড়তি বিকল্প হিসেবেই দেখা হচ্ছে তাঁকে। এ জন্য অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথও এ অলরাউন্ডারকে নেটে ঘাম ঝরিয়ে নিজের অফস্পিনটা আরো ঝালাই করে নেওয়ার তাগাদা দিয়েছেন। মুশফিকুর রহিমদের বিপক্ষে অনিয়মিত বোলার ম্যাক্সওয়েলকে তাই নিয়মিতই বোলিং করতে দেখার সম্ভাবনাও বাড়ল তাতে।

অর্থাৎ অস্ট্রেলিয়ান স্পিন আক্রমণের নেতা নাথান লিওনের অফস্পিন জুটি হিসেবে দেখা যেতে পারে ম্যাক্সওয়েলকে। কারণ সম্ভবত বাংলাদেশের উইকেট একটু বেশিই স্পিনসহায়ক হবে বলে আশা করছেন স্মিথরা। ভারত সফরে কেন ম্যাক্সওয়েলকে বেশি ব্যবহার করা যায়নি, সে ব্যাখ্যাও দিয়ে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ক্রিকেটডটকমডটএইউ-কে বলেছেন, ‘নাথানও তো একই ধরনের বোলার। ও খুব ভালো করছিল বলে ম্যাক্সওয়েলকে সেভাবে ব্যবহার করার সুযোগ হয়নি (ভারত সফরে)।

কিন্তু কে জানে, যদি সে ভালো বোলিং করে যেতে থাকে আর অফস্পিনাররাও খুব কার্যকরী হয়, তাহলে নিশ্চয়ই অনেক বেশি বোলিং পাবে। ’

বেশি বোলিং পাওয়ার জন্য ম্যাক্সওয়েল নেটে বাড়তি শ্রম দেবেন বলে আশা তাঁর অধিনায়কের, ‘আশা করছি সে তাঁর বোলিং নিয়ে কাজ করে যাবে। যদি ভালো বোলিং করে, তাহলে আমার হাতেও বিকল্প একটি বাড়বে। ’ অধিনায়কের বিকল্প বাড়াতে মরিয়া ম্যাক্সওয়েল নিজেও। এ জন্যই যে টেস্ট দলে তাঁর জায়গা পাকা করার হাতিয়ার হয়ে উঠতে পারে বোলিংও। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অপরিহার্য হলেও লম্বা দৈর্ঘ্যের ম্যাচে এখনো তা নন। খেলেছেনও মাত্র ৫টি টেস্ট। এর মধ্যে গত মার্চে ভারতের বিপক্ষে রাঁচিতে তাঁর প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির কারণে বাংলাদেশে সিরিজের প্রথম ম্যাচে অন্তত একাদশে ম্যাক্সওয়েলের জায়গা পাকা বলে ধরে নেওয়া যায়। কিন্তু ব্যর্থতায় সহসাই সে জায়গা নড়ে যেতে পারে। বোলিংয়ে নিজের কার্যকারিতা প্রমাণ করতে পারলে অবশ্য একাদশে জায়গাটা দৃঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড়াতে পারে। তাই বোলিংয়েও নিজেকে প্রমাণের তাগিদ অনুভব করছেন এ অলরাউন্ডার নিজেও, ‘আশা করছি আসন্ন সফরে নিজের বোলিং নিয়ে অনেক খাটুনির ফলটা দেখাতে পারব। ’ আরো কার্যকরী হতে নিজের বোলিং রান-আপও ছোট করেছেন জানিয়ে ম্যাক্সওয়েল বলেছেন দলে জায়গা পাকা করার লক্ষ্যের কথাও, ‘রান-আপ ছোট করেছি। বোলার হিসেবে যে জায়গায় যেতে চাই, যাচ্ছি সেই জায়গাতেও। অবশ্যই দক্ষতার এদিকটি আমি দলের কাজে লাগাতে পারি, যা ৬ নম্বর পজিশনে আমার জায়গাও নিশ্চিত করতে পারে। জায়গা পাকা করার চেষ্টায় বোলিংটা আমার জন্য বাড়তি এক অস্ত্রও। ’ যদিও ডারউইনের অনুশীলন শিবিরে নিজেদের মধ্যে খেলা প্রস্তুতি ম্যাচে বোলিংটা একদমই সুবিধার হয়নি ম্যাক্সওয়েলের। ৬ ওভার বোলিং করে ৪৩ রান দিয়ে পাননি কোনো উইকেটই। তুলনায় তাঁর চেয়ে খরুচে অধিনায়ক স্মিথকেই দিনের শেষে সফল বোলার বলতে হয়েছে। ৬ ওভারে ৫৩ রান খরচ করলেও নিয়েছেন সেঞ্চুরিয়ান পিটার হ্যান্ডসকম্ব (১০৫) ও হিল্টন কার্টরাইটের (৮১) উইকেট দুটোও। অনুশীলন ম্যাচে সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের উইকেট নিতে না পারলেও তাঁকে সাজঘরে ঠিকই ফিরে যেতে বাধ্য করেছেন পেসার জশ হ্যাজেলউড। তাঁর বাউন্সারে হুক করতে গেলেও ব্যাটে-বলে ঠিকঠাক না হওয়ায় বল গিয়ে লেগেছে ওয়ার্নারের গলার এক পাশে। সঙ্গে সঙ্গে ব্যাট ফেলে গ্লাভস-হেলমেট খুলে ড্রেসিংরুমের দিকে হাঁটা দেন ওয়ার্নার। নিজেই হেঁটে যাওয়া ব্যাটসম্যানের চোট অবশ্য গুরুতর নয়। ড্রেসিংরুমে প্রাথমিক চিকিৎসা নেওয়ার পর স্বস্তিবোধই করেছেন তিনি।


মন্তব্য