kalerkantho


বিদায় লাম, বিদায় আলোনসো

২০ মে, ২০১৭ ০০:০০



বিদায় লাম, বিদায় আলোনসো

যেমনটা হয় জার্মান লিগে, মৌসুমের শেষ পর্যন্ত শিরোপার রোমাঞ্চ আর থাকে না। মাঝপথেই শিরোপা জেতাটা অবধারিত করে ফেলে বায়ার্ন মিউনিখ, লিগের শেষ কয়েক রাউন্ডের আগে এসে সেটা নিশ্চিত করে উ ৎসবও সেরে ফেলে। তাই আজ, লিগে এ মৌসুমের শেষ ম্যাচ ফ্রেইবুগের বিপক্ষে যখন খেলতে নামছে বায়ার্ন, এই ম্যাচ খেলেই ক্লাব ফুটবল থেকে অবসর নিচ্ছেন ফিলিপ লাম ও জাবি আলোনসো। বিশ্বকাপ ও চ্যাম্পিয়নস লিগ, জাতীয় দল ও ক্লাব ফুটবলের সর্বোচ্চ দুটি স্মারকই জয় করা এই দুই কৃতী ফুটবলার আজকের ম্যাচের পর বুটজোড়া তুলে রাখবেন।

লাম ক্যারিয়ারের শুরুতে ছিলেন লেফট ব্যাক, পরে হয়েছেন রাইট ব্যাক এবং পেপ গার্দিওলা আমলে রীতিমতো বদলে গেছেন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারে। ছোটখাটো আকৃতির কারণে ‘ম্যাজিক ডোয়ার্ফ’ বা ‘জাদুকরী বামন’ নামে পরিচিতি পাওয়া লাম জাতীয় দলের অধিনায়ক হয়েছিলেন। তাঁর নেতৃত্বেই ২০১৪তে বিশ্বকাপ জিতেছিল জার্মানি, কোনো ইউরোপিয়ান দলের লাতিন আমেরিকা থেকে বিশ্বকাপ জিতে আসার এটাই যে একমাত্র ঘটনা! বায়ার্নের যুব দলেই খেলোয়াড়ি জীবনের শুরু, মাঝে স্টুটগার্টে ধারে দুই মৌসুম খেলাটা বাদ দিলে আগাগোড়া ‘বাভারিয়ান’ লাম। বিশ্বকাপ জিতেই জাতীয় দল ছেড়েছিলেন, এবার পূর্ণ অবসরে যাওয়ার বেলায় কারণ জানিয়েছেন, ‘বুঝতে পারছিলাম, সব সময় আমার পক্ষে আর মাঠে শতভাগ দেওয়া সম্ভব হবে না। ’ শেষবেলাটা উপভোগ করতে চান লাম, সেই সঙ্গে মনে করছেন মাঠে না হোক ড্রেসিংরুমে তাঁর সঙ্গীরা  কিছুটা হলেও টের পাবে তাঁর অনুপস্থিতি, ‘ম্যুলারের সঙ্গে ৩৪৬টি ম্যাচ একসঙ্গে খেলেছি। মাঠে না হোক, বিমানযাত্রায় তাস খেলায় কিংবা ড্রেসিংরুমে পাশের সিটে আমাকে না পেয়ে হয়তো খারাপই লাগবে তার।   আমি চাই সমর্থকরা আমাকে ভালো একজন ফুটবলার হিসেবেই মনে রাখুক, যেটা আমি ছিলাম।

স্প্যানিশ মিডফিল্ডার আলোনসোও কাল পেশাদার ক্যারিয়ারের ইতি টানছেন আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায়। লিগ, কাপ, চ্যাম্পিয়নস লিগ সবই জিতেছেন। জাতীয় দলের হয়ে জিতেছেন ২০১০ বিশ্বকাপ ও দুটি ইউরো। তাঁর বিদায় বেলায় ভিডিওবার্তা পাঠিয়েছেন সাবেক সতীর্থ স্টিভেন জেরার্ড, ‘কী চমৎকার খেলোয়াড় আর দারুণ ক্যারিয়ার! মাঝমাঠের খেলোয়াড় হিসেবে তার সঙ্গেই আমার জুটিটা সবচেয়ে বেশি জমেছিল। ওর চেয়ে ভালো পাস বাড়াতে আমি কাউকে দেখিনি। ’ ক্লাব ওয়েবসাইট, গার্ডিয়ান, মেইল


মন্তব্য