kalerkantho


উৎসব ফেলে প্রস্তুতি ওয়ানডের

২১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



উৎসব ফেলে প্রস্তুতি ওয়ানডের

ইতিহাস গড়ার রাতে ছোটখাটো হলেও একটা পার্টি তো হওয়ারই কথা। কিন্তু তা না হওয়ার কারণ জানতে চাওয়ায় বাংলাদেশ দলের হেড কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহে হাসতে হাসতেই বললেন, ‘আমি কী করে বলব? আমি তো আর দলের এন্টারটেইনমেন্ট ইনচার্জ নই। ’

দলের পারফরম্যান্স উন্নীতকরণের ক্ষেত্রেই শুধু তিনি ইনচার্জ। এ জন্যই পি সারা ওভালে সর্বোচ্চ শ্রম নিংড়ে নেওয়া পাঁচ দিনের ক্রিকেটের পর ম্যাচ খেলা ক্রিকেটাররা সবাই যেদিন ছুটি পেলেন, সেদিনও বিশ্রাম নেই হাতুরাসিংহের। মাশরাফি বিন মর্তুজার সঙ্গে ওয়ানডে খেলতে আসা ক্রিকেটারদের নিয়ে গতকাল দুপুরে প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম লাগোয়া ম্যাক্স ক্রিকেট একাডেমির মাঠে তপ্ত রোদে পুড়লেন হাতুরাসিংহেও।

ওদিকে টেস্টের ম্যাচ সেরা তামিম ইকবাল স্ত্রী-সন্তানের সঙ্গে নিজের জন্মদিন উদ্যাপন করতে আগের রাতেই উড়ে গেছেন মুম্বাইয়ে। সিরিজ সেরা সাকিব আল হাসান সকালেই স্ত্রীকে নিয়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কারই কোনো একটি জায়গায়। টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমকেও হোটেল ছেড়ে বাইরে যেতে দেখা গেছে। ইমরুল কায়েস আর শুভাশীষ রায়দের দেখা গেল শপিং মলে। আগের দিন মুশফিকদের কীর্তি ড্রেসিংরুমে বসেই দেখা ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি অবশ্য গতকাল করলেন ঘাম ঝরানো অনুশীলন।

তা তো করতেই হবে। নিজেদের শততম টেস্টে জেতার ধারাবাহিকতা ওয়ানডেতেও রক্ষার চ্যালেঞ্জ তো এখন গিয়ে উঠেছে তাঁর কাঁধেই। ২০০৫ সালের ১০ জানুয়ারি চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট জয়ে বল হাতে যথেষ্ট অবদান রাখা এবার চোখের দেখা দেখতে পারাকেও কম সৌভাগ্যের মনে করছেন না, ‘শততম টেস্ট ম্যাচটি জিততে দেখা আনন্দের ব্যাপার। আমরা ওয়ানডে খেলতে আসা ক্রিকেটাররা ড্রেসিংরুমে ঢোকার সুযোগ পেয়েছিলাম। ওদের (যাঁরা খেলেছেন) অনুভূতিটা কেমন ছিল, তা দেখতে পেরেছি। আমি বলব যে আমরা খুব ভাগ্যবান। ’

তবে টেস্টের এই সাফল্য ওয়ানডে নিয়েও আশার বেলুনকে তুলে দিয়েছে আরো ওপরে। এটিকে অযৌক্তিক মনে করেন না মাশরাফিও, ‘টেস্টের চেয়ে ওয়ানডেতে প্রত্যাশা বেশি থাকাটাই স্বাভাবিক। আমাদের মতো সমর্থকদেরও তাই। মানসিকভাবে আমরাও প্রস্তুত আছি। প্রত্যাশা পূরণ করতে হলে ভালোও খেলতে হবে। টেস্টেও আমরা শুরু থেকে ভালো খেলেছি বলেই ফলাফল ভালো হয়েছে। ’ 

ওয়ানডেতেও ফলাফল ভালো হওয়ার সম্ভাবনায় মাশরাফির আস্থা বাড়ছে এ কারণেই, ‘টেস্ট জয়ের অনেকটা প্রভাব আমাদের ওয়ানডে পারফরম্যান্সেও পড়া উচিত। ওয়ানডে স্কোয়াডের দিকে তাকান। বেশির ভাগই কিন্তু টেস্ট স্কোয়াডের। ওরা তাই মানসিকভাবে এগিয়ে থাকবে। কারণ ওরা মাত্রই বড় ফরম্যাটে বড় একটি ম্যাচ জিতেছে। ’ অবশ্য একই সঙ্গে কিছু সতর্কতারও দাবি জানিয়ে রাখছেন সীমিত ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশ অধিনায়ক, ‘শ্রীলঙ্কার কিছু জটিল বোলারও আছে, যাদের কাছ থেকে রান বের করা কঠিন। এই যেমন সান্দাকান আছে। প্রথম টেস্টে ওরা একজন বোলারকে খেলাল, যার গতি ১৪৫-র মতো। দ্বিতীয় টেস্টে সে খেলেনি (কুমারা)। এরকম কয়েকজন আছে, যারা কিনা দারুণ কিছু করতে পারে। ’

সেদিকেও বাংলাদেশের সতর্কতা আর তা ওয়ানডেতেও দারুণ কিছু করার জন্যই। সঙ্গী যখন টেস্ট জেতার আত্মবিশ্বাস, তখন তো অনুপ্রেরণারও অভাব নেই কোনো।


মন্তব্য