kalerkantho


ব্যাটিং কোচও নিরুপায়

১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ব্যাটিং কোচও নিরুপায়

সংবাদ সম্মেলনের আগে-পরের দুটি ঘটনা।

আগে অনুরোধ, পরে অভিযোগ। দুটিই করলেন থিলান সামারাবীরা। দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা যখন এক এক করে টিম বাসে উঠছেন, তখন ব্যাগ-ট্যাগ গুছিয়ে ব্যাটিং কোচ অপেক্ষায় ম্যানেজার খালেদ মাহমুদের জন্য। তিনি এসেই না সংবাদ সম্মেলনে নিয়ে যাবেন সামারাবীরাকে। এই সময়েই বাংলাদেশি এক সাংবাদিককে দেখতে পেয়ে ডেকে নিলেন, অনুরোধও করলেন, ‘দয়া করে সেই একই প্রশ্ন আর করবেন না। ’

যে প্রশ্নটি না করার অনুরোধ, সেটি যে তাঁকে খুব বিব্রত করে! এতটাই যে সামারাবীরা খেই হারিয়ে ফেলেন। তা ফেলেছিলেন হায়দরাবাদে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের একমাত্র টেস্টটির সময়ও। মাথার ক্যাপ যেমন উল্টে গিয়েছিল, তেমনি সামনে রাখা মাইক্রোফোনও ফেলে দিয়েছিলেন প্রায়। সে জন্যই এবার আগে থেকেই অনুরোধ। কিন্তু যাঁকে অনুরোধ করেছেন, তিনি রাখলেও অন্যরা সেই একই প্রশ্ন করা থেকে বিরত থাকবেন কেন? একজন তাই ঠিক ঠিক প্রশ্নটা করে বসেন।

তাতে কোনো রকমে নিজেকে সামলে নিয়ে উত্তর দেওয়া সামারাবীরা যাওয়ার সময় আবার অভিযুক্ত করে যান ওই সাংবাদিককে, ‘আপনি প্রশ্নটি করেননি ঠিকই কিন্তু অন্যদের কাছেও আমার অনুরোধ পৌঁছে দেননি। ’

তাঁর জন্য বিব্রতকর সেই প্রশ্নটি সাকিব আল হাসান-কেন্দ্রিক। হায়দরাবাদ টেস্টের প্রথম ইনিংসে দলকে বিপদে ফেলা এই অলরাউন্ডারের বাজে শট ব্যাপক সমালোচিত হয়েছিল। সেটির আঁচ গিয়ে লেগেছিল সামারাবীরার গায়েও। মাসখানেকের মধ্যে নিজের দেশ শ্রীলঙ্কায় এসেও লাগল। দ্বিতীয় দিনের শেষ বিকেলে ৭ বলের মধ্যে তিন উইকেট পড়ে যাওয়ার পর যখন তাঁর ধরে খেলার কথা, তখন সাকিব পাল্টা মারতে শুরু করে দিলেন। তাতে একবার আউট হতে হতেও না হয়ে এবং বাংলাদেশ শিবিরের হৃদকম্পন বাড়িয়ে যে ব্যাটিং সাকিব করেছেন, সেটি কোনো বিবেচনাতেই টেস্টের উপযোগী বলে বিবেচিত হতে পারে না।

তিনি না বদলালে তো প্রশ্নও বদলাবে না। সংবাদ সম্মেলনে তাই অবধারিতভাবেই সাকিবের ব্যাটিং প্রসঙ্গ উঠল। এবার সামারাবীরার কণ্ঠ অসহায়ের মতোই শোনাল, ‘সত্যি কথা বললে, এটি ব্যাখ্যা করার কোনো ভাষাই আমার জানা নেই। আমার মাথায়ও কিছুতেই খেলছে না এটা। ’ অবশ্য কাঠগড়ায় যে সাকিব একাই শুধু দাঁড়িয়ে, তা নয়। দলকে বিপদে ফেলা ব্যাটিং তো একাধিক ব্যাটসম্যানই করেছেন। ব্যাটিং কোচ হিসেবে এর দায় এড়াতে পারেন না সামারাবীরাও। যদিও এখন নিজেকে তাঁর নিরুপায়ই মনে হচ্ছে অনেকটা। দ্বিতীয় দিনের শেষ আধঘণ্টায় সব লণ্ডভণ্ড হয়ে যাওয়া নিয়ে প্রশ্নের মুখে যা বললেন শ্রীলঙ্কার সাবেক এ ব্যাটসম্যান, তার সারমর্মটা আসলে এমনই দাঁড়ায় যে, ‘আমি শেখাতে পারি, পড়াতে পারি কিন্তু গুলিয়ে খাওয়াতে কিছুতেই নয়। ’

শেষ ৪ ওভারের ব্যাটিংয়ের কোনো ব্যাখ্যা খুঁজে না পেয়ে সামারাবীরা বলছিলেন, ‘এই মুহূর্তে কোনো কারণই খুঁজে পাচ্ছি না আমি। আমার মনে হয় একটি বাজে শটই আমাদের বিপর্যয় ডেকে এনেছে। আর সেটি ইমরুলের আউট। ’ ব্যাটিং কোচ হিসেবে তাঁর ভূমিকাটা পরিষ্কার করতে গিয়ে বলেছেন, ‘আমি দক্ষতার দিকটি শেখাতে পারি। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে ব্যাটিং করতে নামলে প্রতিপক্ষ কী করছে বা করতে পারে, সে বিষয়ে সতর্কতা থাকতে হবে আপনার নিজেরই। আমার মনে হয় উইকেটের মাঝখানে গিয়ে ব্যাটসম্যানকেও বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিতে হবে। ’

গল টেস্টে যে বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিতে দেখা গেছে শ্রীলঙ্কার কুশল মেন্ডিসকে। খেলেছিলেন ১৯৪ রানের ইনিংস। এখানে ১৩৮ রানের ইনিংস খেলা আসা দীনেশ চান্ডিমাল তাঁর আটটি টেস্ট সেঞ্চুরির মধ্যে এটিকেই সেরা বলে দাবি করলেন। এর কারণটাও বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যানদের জন্য শিক্ষামূলক, ‘আমার সেঞ্চুরিগুলোর মধ্যে এটিই সেরা। কারণ এর আগে আমি কোনো দিন পুরো চার সেশন ব্যাটিং করতে পারিনি। ’ চোখের সামনেই যখন এমন উদাহরণ, তখন ধুকপুকানি বাড়িয়ে সাকিবের ৮ বলে অপরাজিত ১৮ রানের ইনিংস। সেটিও শেষ না হওয়াকে সৌভাগ্যই বলছেন সামারাবীরা, ‘আমাদের সৌভাগ্য যে আজই ছয়টি উইকেট পড়ে যায়নি। ’

যাঁর উইকেটটি পড়েনি, তাঁকে নিয়ে বিব্রত হতে চাননি বলেই সংবাদ সম্মেলনের আগে-পরে সামারাবীরার অনুরোধ এবং অনুযোগ!


মন্তব্য