kalerkantho


ঘানাকে হারিয়ে পঞ্চম বাংলাদেশ

১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ঘানাকে হারিয়ে পঞ্চম বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টুর্নামেন্ট শুরুর আগে আগে ঘানার সঙ্গে তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ। হিসাব এমন ছিল যে, ‘বি’ গ্রুপে তৃতীয় হবে ঘানা আর ‘এ’ গ্রুপে বাংলাদেশ রানার্স-আপ হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হবে এ দুই দল।

প্রস্তুতি ম্যাচের সুবিধা কাজে লাগিয়ে তখন সেমিফাইনালে যাওয়াটা সহজ হবে স্বাগতিকদের। কিন্তু ওমানের কাছে হেরে নিজেরাই নিজেদের পথ জটিল বানিয়ে কাল সেই ঘানার বিপক্ষেই পঞ্চম স্থান নির্ধারণী ম্যাচ খেলল বাংলাদেশ। প্রত্যাশিত জয়ও এলো, যদিও টাইব্রেকারে ৩-৩ (৪-৩)। কিন্তু তাতে টুর্নামেন্টের প্রত্যাশা পূরণ হলো না।

দেশের মাটিতে ওয়ার্ল্ড হকি লিগের মতো বড় আসরের সেমিফাইনালে খেলা হয়নি বাংলাদেশের। শেষ পর্যন্ত ওমান ম্যাচটিই আক্ষেপের আগুন জ্বালিয়ে রাখল।

এদিকে কাল আসরের ফাইনালে ধ্রুপদী লড়াই হয়েছে মালয়েশিয়া ও চীনের মধ্যে। ২ গোলে পিছিয়ে পড়েও সমতা ফিরিয়ে শেষ পর্যন্ত শিরোপাও জিতে নিয়েছে মালয়েশিয়া।

রাসেল মাহমুদদের নিয়ে শিরোপা লড়াইয়ের কথা ভাবেননি কেউ।

র্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ এই আসরে পঞ্চম, সেই পঞ্চমই হয়েছে। কিন্তু র্যাংকিংয়েই গায়ে গায়ে লেগে থাকা ওমান, (এই মুহূর্তে এক ধাপ ওপরে) সাত-আট বছর আগে যারা বাংলাদেশের ধারেকাছেও ছিল না, তাদের হারিয়ে নিজেদের অবস্থান পুনরুদ্ধারের আশা তো করাই যায়। সেখানেই আশাভঙ্গ, ঘরের মাঠে খেলার সুবিধাও কাজে লাগাতে পারেনি অলিভার কার্টজের দল। বাংলাদেশ দলের জার্মান কোচ বছর কয়েক আগে ওমানের দায়িত্বেও ছিলেন। ঘানাকে হারিয়ে বর্তমান র্যাংকিং ধরে রাখতে পেরেই তিনি তৃপ্ত, শেষ ম্যাচে দলের অনেক উন্নতিও দেখতে পেয়েছেন তিনি, ‘এই আসরে পঞ্চমও হতে না পারলে আমি অখুশি হতাম। কারণ এটাই আমাদের র্যাংকিং। শেষ পর্যন্ত নিজেদের অবস্থানটা আমরা ধরে রাখতে পেরেছি। দলের খেলায়াড়দেরও অনেক উন্নতি হয়েছে। ’

ঘানার বিপক্ষে তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচের একটিতে হার, একটিতে ড্র ও একটি ম্যাচে জয় ছিল। কালও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করতে হলো বাংলাদেশকে তাদের হারাতে। ঘানা দ্বিতীয় কোয়ার্টারের শুরুতে এগিয়ে যাওয়ার পর ১৯ ও ২১ মিনিটে পেনাল্টি কর্নার থেকে দুই গোল করে মামুনুর রহমান আবার এগিয়ে দেন বাংলাদেশকে। তৃতীয় কোয়ার্টার শেষদিকে এবং শেষ কোয়ার্টার শুরুতে ২ গোল করে ৩-২ এ আবার এগিয়ে যায় ঘানা। অধিনায়ক রাসেল মাহমুদের স্টিকে বাংলাদেশ ম্যাচে সমতা ফেরায় একেবারে শেষ মুহূর্তে। পরে টাইব্রেকারে বাংলাদেশের জয় ৪-৩ ব্যবধানে। আগের ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ৯-০ গোলে উড়িয়ে পঞ্চম স্থান নির্ধারণী এই ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ। গ্রুপে তৃতীয় হয়ে শক্তিশালী মিসরের বিপক্ষে সেমিফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে নামতে হয়েছিল। সেই ম্যাচে ৫-১ গোলে বিধ্বস্ত হয়েই বাংলাদেশ ছিটকে যায় সেরা চারের বাইরে। মালয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলের হার দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু হয়েছিল। ‘হারের ব্যবধান’ কম বলেই খুশি ছিলেন অলিভার। দ্বিতীয় ম্যাচে দুর্বল ফিজির বিপক্ষে অজস্র মিসের পরও জয় ৫-১ গোলে। বাংলাদেশ দুটি দলের বিপক্ষে বড় জয় পেয়েছে সেই ফিজি ও শ্রীলঙ্কা, যারা আসর শেষ করেছে তলানিতে থেকে। সে ব্যবধানও নিশ্চিত করেছে নিজেদের মধ্যকার ম্যাচে। দুই দলের সপ্তম স্থান নির্ধারণী ম্যাচে জয় পেয়েছে লঙ্কানরা।

 


মন্তব্য