kalerkantho


হোলির আমেজে কোহলিরা

১২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



হোলির আমেজে কোহলিরা

মাঠের বাইরের উত্তাপ কমাতে সন্ধি করেছে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ড। বিতর্ক থামছে না তার পরও।

এবার বিরাট কোহলি ও অনিল কুম্বলেকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান দৈনিক ‘দ্য টেলিগ্রাফ’। এক প্রতিবেদনে এই দুজন সীমা ছাড়িয়েছিলেন অভিযোগ তুলে দৈনিকটি লিখেছে, ‘বিরাট কোহলি বাউন্ডারি লাইনের ধারে থাকা এনার্জি ড্রিংকের বোতলে এমনভাবে লাথি মেরেছিলেন যেটা লাগে অস্ট্রেলিয়ান এক কর্তার গায়ে। কুম্বলে তো কোহলির এলবিডাব্লিউর আউট মেনে নিতে না পেরে এর ব্যাখ্যা চান ম্যাচ রেফারি ক্রিস ব্রডের ঘুরে ঢুকে। ’

এমন প্রতিবেদন নিয়ে অবশ্য পাল্টা মন্তব্য করে পরিস্থিতি নতুন করে ঘোলাটে করেননি ভারতীয় ক্রিকেটারদের কেউ। উল্টো তাঁরা রয়েছেন ‘হোলি’র আমেজে। অধিনায়ক বিরাট কোহলি রয়েছেন দিল্লির বাড়িতে। গতকাল একটি রেস্টুরেন্টে যাওয়ার ছবি টুইট করেছেন নিজেই। ওপেনার লোকেশ রাহুল বেঙ্গালুরু টেস্টের সেরা খেলোয়াড়ের ট্রফিটা পাশে রেখে ছবি পোস্ট করেছেন প্রিয় কুকুর সিম্বার। পুনে টেস্টে বিধ্বস্ত হওয়ার পর হতাশা কাটাতে পাহাড়ে গিয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা।

বেঙ্গালুরুতে জয়ে ফেরাটা উদ্যাপন করতে সেই পাহাড় ‘ট্র্যাকিং’য়েই বেরিয়েছিলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন, অভিনব মুকুন্দ, ঋদ্ধিমান শাহ, করুণ নায়ার ও মুরালি বিজয়রা।

রাঁচি টেস্ট শুরুর আগে আবার গুঞ্জন ছড়িয়েছে, ভারতীয় দলের কোচের পদটা নাকি হারাতে চলেছেন অনিল কুম্বলে। বোর্ডের প্রশাসকরা কুম্বলেকে দেখতে চান রবি শাস্ত্রীর আগের দায়িত্ব ‘টিম ডিরেক্টর’ হিসেবে। তাঁর বদলে রাহুল দ্রাবিড়কে প্রধান কোচের দায়িত্ব দিতে চান প্রশাসকরা, এমন খবরই গতকাল প্রকাশ করেছে ‘দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’।

ভারতীয় দল ছুটিতে থাকলেও রাঁচি টেস্টের প্রস্তুতি শুরু করেছে অস্ট্রেলিয়া। নেটে ডেভিড ওয়ার্নার অনুশীলন করছেন ‘ডানহাতি’ শটের। রবিচন্দ্রন অশ্বিন ২৩ টেস্টে ৯ বার আউট করেছেন তাঁকে। এই সিরিজেও আউট করেছেন তিনবার। তাই অশ্বিনকে সামলাতে অভিনব সুইচ হিট আর রিভার্স সুইপের অনুশীলন করছেন অস্ট্রেলিয়ান সহ-অধিনায়ক। এদিকে মিচেল স্টার্কের বদলি হিসেবে গতকাল প্যাট কামিন্সের নাম ঘোষণা করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। চোট না থাকায় ভারত খেলবে বেঙ্গালুরু টেস্টের দল নিয়েই। রাঁচির উইকেট নিয়ে আগ্রহ শুরুর আগে বিসিসিআই আবার জবাব দিয়েছে পুনের উইকেটে আইসিসির আপত্তির, ‘পিচটা খারাপ হলে অস্ট্রেলিয়া ২৬০ ও ২৮৫ করে কিভাবে?’ পিটিআই


মন্তব্য