kalerkantho


তাড়া করবে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকেও

১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ভদ্রলোক এখন জাপান জাতীয় দলের কোচ। খেলোয়াড়ি জীবনের শেষটায় খেলেছেন প্যারিস সেন্ত জার্মেইতে; ২০০৩ থেকে ২০০৫—এই দুই বছর ছিলেন ফরাসি ক্লাবটির কোচ।

বার্সেলোনার কাছে তাদের অমন হৃদয়বিদায়ক পরাজয়ে ভাহিদ হালিহোদিচের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হওয়া স্বাভাবিক। এই হারের ক্ষত শুকাতে প্রজন্ম পেরিয়ে যাবে বলেও তো আশঙ্কা তাঁর।

‘এই হারের মানসিক ধাক্কা এত সহজে সামলানো যাবে না। শুধু এই মৌসুম না, আমার তো মনে হয় পিএসজির ভবিষ্যৎ প্রজন্মকেও ম্যাচটি তাড়া করবে’—বলেছেন হালিহোদিচ। মোক্ষম কথা। নু ক্যাম্পে ৮৮তম মিনিট পর্যন্ত যেখানে নিশ্চিত ছিল কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার ব্যাপারে, ইনজুরি সময়সহ শেষ সাত মিনিটে তিন গোল খাওয়ার কথা কিভাবে ভাববে পিএসজি! এমনকি বার্সা খেলোয়াড়রাও অতটা ভাবতে পারেননি বলে দাবি ফরাসি ক্লাবটির মিডফিল্ডার মার্কো ভেরাত্তির, ‘কাভানির গোলের পর অবস্থা থিতিয়ে আসে। আমি বার্সেলোনার কয়েক খেলোয়াড়ের সঙ্গে কথা বলছিলাম। ওরাও বলছিল যে, দ্বৈরথ শেষ। এরপর শেষ সাত মিনিটে দিল তিন গোল—এর কোনো ব্যাখ্যা আমার কাছে নেই।

এটাই ফুটবল। ম্যাচটি আমি কখনো ভুলব না। আশা কাছি, এটি সবার জন্যই একটি শিক্ষা হয়ে থাকবে। ’ পিএসজির অনেকে রেফারির দোষ দেখছেন, ভেরাত্তি কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছেন নিজেদেরই, ‘আমরা ৬-১ ব্যবধানে হেরেছি, তা রেফারির কারণে হতে পারে না। মূল দায় আমাদেরই। ’

দুঃস্বপ্নের ওই দায়ভারই হয়তো প্রজন্মান্তরে বহন করতে হবে পিএসজির। গোল ডটকম

 


মন্তব্য