kalerkantho


শেষ দিনেও তুষার

৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ক্রীড়া প্রতিবেদক : একটু আক্ষেপ হয়তো থেকেই যেত তুষার ইমরানের। তবে গতকাল শেষ বেলায় সুযোগটা পেয়েই প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটি নিজের করে নিয়েছেন দক্ষিণাঞ্চলের এ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

মধ্যাঞ্চলের বিপক্ষে গতকাল ১২ বলে ২৮ রান করে এবারের মৌসুম তিনি শেষ করেছেন এক হাজার ২৪৯ রান নিয়ে। এ রেকর্ডটা এত দিন ছিল লিটন দাশের (২০১৪-১৫ মৌসুমে এক হাজার ২৩২ রান)।

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) এ মৌসুমের শেষ দিনের হাইলাইট এটাই। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ, সেঞ্চুরি আর রানের মালিক তিনি আগে থেকেই। গতকাল মৌসুমে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের রেকর্ডটাও নিজের করেছেন তুষার ইমরান। বিকেএসপির এ ম্যাচে তাঁর এবং শাহরিয়ার নাফীসের ডাবল সেঞ্চুরির আগে তিন অঙ্ক পেরিয়েছেন মোহাম্মদ মিঠুনও। তাতে প্রত্যাশিত ড্রয়েই শেষ হয়েছে এ ম্যাচ। শাদমান ইসলামের সেঞ্চুরি আর সাইফ হাসান ও তাইবুর পারভেজের ফিফটিতে ৪১৫ রানে মধ্যাঞ্চল অলআউট হওয়ার পর মাত্র দুই ওভার ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়েছে দক্ষিণাঞ্চল। তাতেই রেকর্ড গড়া তুষারের, মোহাম্মদ শরিফের একমাত্র ওভার থেকে তুলেছেন ২৪ রান।

জয় দিয়ে আসর শেষ করার ক্ষীণ সম্ভাবনা ছিল উত্তরাঞ্চলের সামনে। তবে নাজমুল হোসেনের পর নাসির হোসেনের সেঞ্চুরির আশায় পূর্বাঞ্চলকে যৌক্তিক কোনো টার্গেটই দেয়নি তারা। উত্তরাঞ্চল ইনিংস ঘোষণা করে ৮ উইকেটে ২৯৫ রানে। তাতে জিততে হলে ৪৫৪ রানের অসম্ভবের পেছনে ছুটতে হতো পূর্বাঞ্চলকে। প্রত্যাশিতভাবেই ৩ উইকেটে ১২৮ রান তুলে বাকি সময়টা কাটিয়ে দেয় তারা। উত্তরাঞ্চলের সাঞ্জামুল এদিন কোনো সাফল্য না পেলেও ২৫ উইকেট নিয়ে বোলারদের সবার ওপরেই রয়েছেন।

এ ড্রয়েও অবশ্য শীর্ষস্থান অটুট রয়েছে উত্তরাঞ্চলের, নিশ্চিত হয়েছে তাদের প্রথম বিসিএল শিরোপা জয়। রানার-আপ দক্ষিণাঞ্চল এবং এর পরের দুটি স্থানে যথাক্রমে পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

দক্ষিণাঞ্চল-মধ্যাঞ্চল

দক্ষিণাঞ্চল : ৭৪৯/৮ ও ২ ওভারে ৩৩/০ (তুষার ২৮*)। মধ্যাঞ্চল : ১৪৩.৫ ওভারে ৪১৫/১০ (শাদমান ১১৩, সাইফ ৫০, তাইবুর ৯০; নাজমুল ৪/১০০, আল আমিন ২/৪৭, রাজ্জাক ২/১৩৯)।

ফল : ড্র। ম্যাচসেরা : শাহরিয়ার নাফীস।

উত্তরাঞ্চল-পূর্বাঞ্চল

উত্তরাঞ্চল :  ৩৭৪ ও ৭৯ ওভারে ২৯৫/৮ (নাজমুল ১২২, নাসির ৬৩; সাইফ উদ্দিন ৩/৬৬, জায়েদ ২/৪৫)। পূর্বাঞ্চল : ২১৬ ও ৩৬ ওভারে ১২৮/৩ (তাসামুল ৪৪*, শফিউল ২/৩৭)।

ফল : ড্র। ম্যাচসেরা : ফরহাদ হোসেন।


মন্তব্য