kalerkantho


তিন গোলে হারের স্বস্তি

৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



তিন গোলে হারের স্বস্তি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : প্রত্যাশার এদিক-ওদিক কিছু হয়নি। হার ধরে নিয়েই মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ এবং শেষও হয়েছে হারেই।

তবে মালয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলের এই হারে গ্লানির চেয়ে স্বস্তিই বেশি। দুই দলের র্যাংকিংয়ে অবস্থানগত এবং গুণগত মানের পার্থক্যে হারটা আরো লজ্জার হতে পারত। সেটা না হয়ে অন্তত স্বাগতিকদের স্বস্তিদায়ক শুরু হয়েছে ওয়ার্ল্ড হকি লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডে।

বাংলাদেশ দলের কোচ অলিভার কার্টজের চেহারায়ও ধরা পড়েছে সেই স্বস্তির ছাপ, ‘প্রথমার্ধে আমরা একটু ইতস্তত বোধ করছিলাম, স্বাভাবিকভাবে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি ছিল। এটাও ঠিক অনূর্ধ্ব-২৩ দল দিয়েই আমরা ম্যাচটি শুরু করেছিলাম। তবে তৃতীয়ার্ধে খুব ভালো খেলেছে, গোলও পেয়ে যেতে পারতাম। ওই সময় কিছুটা আত্মবিশ্বাসী দেখা গেছে ছেলেদের। সব মিলিয়ে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ হিসেবে ভালো। আমি সন্তুষ্ট।

’ এই জার্মান কোচ সব সময় তারুণ্যেই খোঁজেন উত্তরণের পথ। ঘানার বিপক্ষে প্র্যাকটিস ম্যাচেও তেমনটা দেখা গেছে। কালও তেমনি সিনিয়রদের বাইরে রেখে তরুণদের দিয়ে শুরু করেছেন মালয়েশিয়ার ম্যাচ। শক্তিশালী দলের চাপের মুখে পড়ে তারা শুরুতেই যেন ভ্যাবাচেকা খেয়ে বসে। তিন মিনিটের মাথায় গোল খাওয়ার উপক্রম হয়েছিল, গোলরক্ষক জাহিদের সেভে বেঁচে গেছে। কিন্তু পরের মিনিটে দুর্দান্ত মুভে চমত্কার এক ডামিতে গোলমুখ খুলে যায়, জালাল বলের দিক পরিবর্তন করে দিয়ে এগিয়ে নেন মালয়েশিয়াকে। প্রথমার্ধ শেষের মিনিটখানেক আগে প্রথম পেনাল্টি কর্নার থেকে আরেকটি গোলের আয়োজন করেও পারেনি। দ্বিতীয়ার্ধেও সেই আধিপত্য ধরে রেখে তারা দ্বিতীয় পেনাল্টি কর্নার থেকে রহিম রাজি গোল করে ব্যবধান বড় করেন।

২৮ মিনিটে বাংলাদেশও প্রথম পেনাল্টি কর্নার পায় রোমান সরকারকে ফাউল করায়। কিন্তু আশরাফুলের ফ্লিক রুখে দিয়ে মালয়েশিয়ান গোলরক্ষক স্বাগতিকদের হতাশ করেছেন। ৩৩ মিনিটে দ্বিতীয় পেনাল্টি কর্নারে খোরশেদের হিটেও প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়ে গেছেন এই গোলরক্ষক। স্বাগতিকদের বড় শক্তি এই পেনাল্টি কর্নার, সেগুলো অকার্যকর করে দিলে গোল পাওয়ার আর সুযোগ কোথায়। এর পরও ৩৮ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাকে একটি গোল শোধের আয়োজন প্রায় হয়ে গিয়েছিল। গোলপোস্টের সামনে আরশাদ বলটা স্টিকে নিতে ব্যর্থ হওয়ায় সুযোগটা নষ্ট হয়। পরে সারোয়ার কোনাকুনি হিট করেও মালয়েশিয়ার পোস্টের নাগাল পাননি। এখানেই খানিকটা আফসোস আছে বাংলাদেশের জার্মান কোচের, ‘আসলে তৃতীয়ার্ধে দুর্দান্ত খেলেছে ছেলেরা, আত্মবিশ্বাসী হয়ে খেলেছে। পেনাল্টি কর্নার এবং কাউন্টার অ্যাটাক থেকে একটা গোল হওয়া উচিত ছিল। ’

তৃতীয়ার্ধের ১৫ মিনিটে বাদে বাকি ৪৫ মিনিটই মালয়েশিয়ার আধিপত্যের গল্প। গতি আর স্কিলে তারা এগিয়ে। তাই র্যাংকিংয়ের ১৩ নম্বর দলটির বিপক্ষে চড়াও হয়ে খেলা কঠিন। খেলতে গেলে ডিফেন্স ফাঁকা হতো, গোল ব্যবধানও বড় হতো। ৩২তম অবস্থানে থাকা বাংলাদেশ পুরো ম্যাচ একরকম ঠেকিয়ে গেছে। এর মধ্যেও তারা সুযোগ করে নিয়েছে এবং মিসও করেছে। আবার ৫৪ মিনিটে তিনজনে মিলে টাচলাইনে চমত্কার খেলে আইমান শেষ গোলটি করে প্রথম ম্যাচে ৩-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিকদের।

উদ্বোধনী দিনে ‘এ’ গ্রুপের আরেক ম্যাচে ফিজিকে গোলবন্যায় ভাসিয়ে ৭-০ ব্যবধানে জিতেছে ওমান। ‘বি’ গ্রুপের দুটি ম্যাচেও গোলের মহোৎসব হয়েছে। চীন ৭-৩ গোলে ঘানাকে এবং মিসর ৬-২ গোলে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছে। টুর্নামেন্টের সব দলের প্রথম ম্যাচ দেখার পর বাংলাদেশ কোচের বিশ্লেষণ, ‘চীন ভালো ম্যাচ খেলেছে ঘানার সঙ্গে। প্রথম দিনে সাধারণত কোনো দলের সেরাটা দেখা যায় না। টুর্নামেন্ট যত এগোবে ততই শক্তিশালী দলগুলোর খেলা ভালো হবে। ’ কোয়ার্টার ফাইনাল-সেমিফাইনালের জন্য অন্য গ্রুপের দলগুলোর পারফরম্যান্স নিয়েও তাঁকে ভাবতে হচ্ছে, ‘চীন ও মিসরের মানে পৌঁছাতে হলে পরের ম্যাচগুলোতে আরো উন্নতি করতে হবে আমাদের। আশা করি সেটা পারবে বাংলাদেশ। ’ আজ ফিজির বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।


মন্তব্য