kalerkantho


ফাইনাল নিয়ে বিপাকে পাকিস্তান

১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ফাইনাল নিয়ে বিপাকে পাকিস্তান

পাকিস্তান ক্রিকেট লিগের (পিএসএল) ফাইনাল ৫ মার্চ। কিন্তু খেলাটা হবে কোথায়? ক্রিস গেইল, কেভিন পিটারসেনের মতো তারকারা আগেই জানিয়ে রেখেছেন লাহোরে খেলতে চান না তাঁরা।

এর পরও একগুঁয়ে পিসিবি ফাইনাল করতে চায় লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। অথচ গত কয়েক দিনে তিনটি বড় আত্মঘাতী হামলা হয়েছে লাহোরে। পাঞ্জাবের পক্ষ থেকে অবশ্য পাঁচ স্তরের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে আশ্বস্ত করা হচ্ছে খেলোয়াড়দের। এর পরও খোদ পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটাররাই বিরোধিতা করছেন এমন সিদ্ধান্তের। ইমরান খান, জাভেদ মিয়াদাঁদ, আমির সোহেলের মতো তারকারা ক্রিকেটারদের জীবনের শঙ্কা মাথায় নিয়ে খেলার যুক্তি খুঁজে পাচ্ছেন না। ফাইনাল মাঠে গড়ানোর আগে অবশ্য বড় ধাক্কাই খেয়েছে পিএসএল। গতকাল টেলিভিশন সম্প্রচারের দায়িত্বে থাকা প্রতিষ্ঠান সানসেট অ্যান্ড ভাইন ফাইনাল থেকে সরিয়ে নিয়েছে তাদের। যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ কয়েকজন ধারাভাষ্যকরাও জানিয়ে দিয়েছেন লাহোরে না যাওয়ার কথা।

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের ওপর হামলার পর থেকে গত এক দশকে জিম্বাবুয়ে ছাড়া পাকিস্তানে খেলতে আসেনি আর কোনো বিদেশি দল।

বাংলাদেশকে চাপ দিয়েও নিতে পারেনি পিসিবি। তাই ১৯৯২ বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ইমরান খান মনে করেন, পিএসএল ফাইনাল লাহোরে সফলভাবে হলেও বিদেশি দলগুলো খেলতে আসবে না পাকিস্তানে। লাহোরের উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে ফাইনাল আয়োজন করাটা তাঁর কাছে ‘পাগলামি’ ব্যাপার, ‘লাহোরে ফাইনাল আয়োজনের চিন্তাটাই আমার কাছে পাগলামি মনে হচ্ছে। এমন উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে শান্তির কোন বার্তাটা তারা দিতে পারবে, জানি না আমি। ফাইনালটা সফল হলেও আমার মনে হয় না বিদেশি দলগুলো খেলতে রাজি হবে এখানে। ’

জাভেদ মিয়াদাঁদের কণ্ঠেও একই সুর। ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন তিনি, ‘ফাইনালের দিন বাজে কিছু যদি ঘটে যায়, এর দায় নেবে কে? এই ম্যাচের পর বিদেশি দলগুলো যে পাকিস্তানে খেলতে আসবে না, সবাই জানি আমরা। এর পরও এমন ঝুঁকি নিতে যাচ্ছি কেন?’ লাহোরে ফাইনাল করার চিন্তাটা পিসিবির একগুঁয়েমি বলে মনে করছেন সাবেক অধিনায়ক আমির সোহেল, ‘সব কিছু যেভাবে চলছে তাতে একটা একগুঁয়ে জেদি বাচ্চার কথাই মনে পড়ছে। ’

সাবেকরা বিরোধিতা করলেও শহীদ আফ্রিদি লাহোরের ফাইনালটা দেখছেন নিজের বিদায়ী ম্যাচ খেলার সুযোগ হিসেবে, ‘লাহোরে ফাইনালের সিদ্ধান্তটা বিশাল কিছু। এ জন্য মুখিয়ে আমি। ’ দ্য ডন


মন্তব্য